শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দূর্ঘটনা এড়াতে আকাশ পথের মত নৌ-পথেও ট্রাফিক সিস্টেম

shipping-trafficপ্রযুক্তি ডেস্ক : বারবার নৌ দূর্ঘটনা কেন হচ্ছে, এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে সংসদীয় কমিটি। তারা বলেছে, নৌ দূর্ঘটনা নিয়ে শুধু শোক প্রকাশ করেলেই চলবে না। এ থেকে কিভাবে পরিত্রান পাওয়া যায় সেই বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়ার সময় এসেছে। তাই আকাশ পথের মত নৌ-পথেও ট্রাফিক সিস্টেম করা যায় কি না সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছে। এজন্য আগামী বৈঠকে একটি সুস্পষ্ট প্রস্তাব চেয়েছে কমিটি।

বৃহস্পতিবার দশম জাতীয় সংসদের ‘নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি’র ১১তম বৈঠকে এ প্রস্তাব চাওয়া হয়। কমিটি সভাপতি মেজর (অব:) রফিকুল ইসলাম সভাপতিত্ব করেন। বৈঠকে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌ-পরিবহন কর্পোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি), বাংলাদেশ স্থল বন্দর এবং গভীর সমুদ্র বন্দর সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়।

কমিটি সূত্র জানায়, শুরুতেই লঞ্চ দূর্ঘটনা নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়। আলোচনায় বৈঠকে কমিটির সভাপতি বলেন, বারবার কেন নৌ-দূর্ঘটনা ঘটছে? এ থেকে উত্তোরণে উপায় কী?

এ সময় তিনি সমুদ্র অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের কাছে তিনি জানতে চান, দূর্ঘটনা এড়াতে আকাশ পথের মত নৌপথেও ট্রাফিক সিস্টেম চালু করা যায় কিনা?

জবাবে মহাপরিচালক বলেন, এটা খুব তাড়াতাড়ি সম্ভব না। এটি সময় সাপেক্ষ ব্যাপার, অন্তত ১০ বছর সময় লাগবে।

এ সময় সভাপতি উত্তরে বলেন, দূর্ঘটনা এড়াতে একটি সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব করেন। ১০ বছর নয়, এটা দুই বছরেই করতে হবে। প্রয়োজনে আমরা প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতাও নিবো।

এ সময় মেজর (অব:) রফিকুল ইসলাম নৌ দূর্ঘটনা এড়াতে সুনির্দিষ্ট কিছু প্রস্তাব আগামী বৈঠকে উপস্থাপনের জন্য নির্দেশ দেন। আলোচনায় সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তর কর্তৃক নদী পথে বিভিন্ন দুর্ঘটনা রোধে কি কি পদক্ষেপ গ্রহন করা যায় তার একটি সুস্পষ্ট প্রস্তাব কমিটির পরবর্তী বৈঠকে প্রদানের জন্য সুপারিশ করে।

বৈঠক শেষ কমিটির সভাপতি মেজর (অব:) রফিকুল ইসলাম প্রিয়.কম-কে বলেন, ‘আকাশ ও রাস্তার ট্রাফিক সিস্টেমের মত নৌ-পথেও একটি সুনির্দিষ্ট নিয়মে আনা যায় কি না এ বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। আগামী বৈঠকে এই বিষয়ে প্রস্তাব চাওয়া হয়েছে।’

এছাড়া বৈঠকে আরিচায় ল্যান্ড বেইজ ওয়ার্কশপ স্থাপন এবং বিশেষ পরিস্থিতিতে দেশের নৌ-পরিবহন সচল রাখতে জরুরি জ্বালানী সরবরাহ করার নিমিত্তে কমপক্ষে ২টি অয়েল ট্যাংকার রিজার্ভ রাখার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করা হয়। বৈঠকে ভারত-বাংলাদেশের উত্তর-দক্ষিণ পার্শ্বে স্থল বন্দরগুলোতে অবকাঠামো উন্নয়নে কি অবস্থা তা পরিদর্শন করে কী সমস্য ও করনীয় সম্পর্কে সুস্পষ্ঠ প্রতিবেদন জমা দিতে তাগিদ দিয়েছে কমিটি।

বৈঠকে খাগড়াছড়ির রামগড়ে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে স্থল বন্দর চালু করার এবং উত্তর ও দক্ষিণে যে সকল স্থল বন্দর আছে সে সকল স্থল বন্দরের নাম, বর্তমান অবস্থা, সমস্যাবলী, এ বিষয়ে কি কি করণীয় তার একটি বিস্তারিত প্রতিবেদন কমিটির পরবর্তী বৈঠকে প্রদানের জন্য মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করা হয়।

বৈঠকে আরিচায় নৌ দুর্ঘটনায় নিহতদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা এবং শোক-সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করা হয়।

বৈঠকে কমিটি সদস্য নৌ-পরিবহন মন্ত্রী মো: শাজাহান খান, মো: আব্দুল হাই, মো: হাবিবর রহমান, এম আব্দুল লতিফ এবং মো: আনোরুল আজীম (আনার) অংশগ্রহণ করেন। এছাড়া নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এ জাতীয় আরও খবর