শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিজয় বাংলা সফটওয়‌্যার অ্যান্ড্রয়েডে: ফেসবুকে বিতর্কের ঝড়

Mustafa-Jabbarডেস্ক রির্পোট : দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর গত ১৯ ফেব্রুয়ারি গুগল প্লে স্টোরে উন্মুক্ত করা হয়েছে বিজয় বাংলা সফটওয়‌্যার। ফেসবুকে এই নিয়ে সফটওয়্যারটির প্রণেতা মোস্তাফা জব্বার স্ট্যাটাস দিলে তা নিয়ে শুরু হয় তুমুল বিতর্ক। অনেকেই মোবাইলে বাংলা লেখার জন্য রিদমিক ও মায়াবী কী-বোর্ডকেই সেরা বলেছেন। এদিকে সদ্য প্রকাশিত বিজয় সফটওয়্যারে লিখতে গিয়ে আরবি হরফ চলে আসছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মোস্তাফা জব্বার বিজয় বাংলা অ্যাপটি গুগল প্লে স্টোরে প্রকাশ করা প্রসঙ্গে গত ২০ ফেব্রুয়ারি ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, "অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের জন‌্য বিজয় বাংলা সফটওয়‌্যার গুগল প্লে স্টোরে আপলোড করতে গিয়ে দেখলাম-বিজয় কীবোর্ডের চোরের অভাব নাই। অনেক আগে থেকেই আমার কী-বোর্ডটিকে বিকৃত করে নানাভাবে যুক্ত করা হয়েছে। যারা বিজয় দিয়ে বাংলা লিখতে চান তাদের কাছে অনুরোধ চুরি ও বিকৃতিকে উৎসাহিত করবেন না। সরাসরি বিজয় বংলা সফটওয়‌্যার দিয়ে কম্পিউটারের মতো করে অ্যান্ড্রয়েডে বাংলা লিখুন-ব‌্যক্তিগত ব‌্যবহারের জন‌্য এটি ফ্রি।" উত্তরে একজন লিখেছেন, চোরে না শোনে ধর্মের কাহিনী।

উক্ত স্ট্যাটাসের প্রেক্ষিতে আলম আল-মামনুর লিখেছেন, not user friendly at all if compared with ridmik which is far far better…… I installed with huge enthusiasm but hugely upset…. so time to think sir… bijoy bangla is a brand for pc… উত্তরে মোস্তাফা জব্বার লিখেছেন, দেখুন আপনি যদি বিজয় কীবোর্ডই পছন্দ না করেন তবে আপনার ভাল লাগবে কেন? আমরা বিজয় কীবোর্ডকে কার্যকর করেছি। এতে ফনেটিক বা অন‌্য কোন কীবোর্ড নাই। বিজয় কীবোর্ড ঠিকমতো বানাতে পেরেছি কিনা সেটি বিবেচ‌্য। রিদমিক বিজয় ও বিজয়ের নকল জাতীয় কীবোর্ড অনুমতি ছাড়া ব‌্যবহার করেছ। এটি মেধাস্বত্ত্ব আইনের লঙ্ঘন। বিজয় কীবোর্ড প্রয়োগে কোন সংকট থাকলে জানাবেন।

আবরার আমিন লিখেছেনে, দুঃখিত স্যার, তবুও বলতে হচ্ছে, আপনারা অনেক দেরি করে ফেলেছেন। যেখানে বিজয় পিসি এর জন্য অনেক আগে থেকেই চালু ছিল তো এন্ড্রয়েডের জন্য এত দেরি করে কেন বানালেন? এটা তো রিদমিকের চেয়ে অনেক আগে বানানোর দরকার ছিল। বাংলা লিখতে সবাই এই একটা এপস ই ব্যাবহার করে। এখন তাদেরকে এই নতুম অ্যাপমুখী করা কঠিন হবে। উত্তরে জব্বার লিখেছেন, রিদমিক বিজয় কীবোর্ডকে বিকৃত করে তথাকথিত ইউনিবিজয় করেছে। এটি অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব‌্যবহার করা বা বিকৃত করা দণ্ডনীয় কাজ্। আমি আমার কীবোর্ডকে কখনও বিকৃত করবনা। আমি মনে করি প্রতিযোগিতাই নিয়ামক-ফলে ভবিষ‌্যতই বলতে পারবে কে থাকবে আর কে থাকবেনা।

আমিনুল ইসলাম লিখেছেন, সিংঘ বনেই রাজা, চিড়িয়াখানায় না। আমি জানি বিজয় পিসি এবং ASCII ব্যবহারে অফিশিয়াল কাজেই বেশ মানানসই। তবে এটাকে এন্ড্রয়েডে এনেই যে সবার সেরা মনে করবেন এটা কেমন করে হয়? বিজয় বিজয়ের যায়গায় সেরা। আর আপনি যে রিদ্মিক কে এভাবে এত্ত গুলো কথা বলেছেন তা একবার রিদ্মিক ব্যবহার করে দেখেছেন ত? রিদ্মিক কিভাবে মেধাস্বত্ত্ব আইনের লঙ্ঘন করলো একটু বিস্তারিত বলবেন? শুনেছি বাংলা ভাষার জন্য নাকি অনেককে জীবন দিতে হয়েছিল যার কারনে ২১শে ফেব্রুয়ারি পালিত হয়। আর আপনারা একজন আরেকজন এর কর্ম কে এইভাবে "ঘৃণা" করেন। কেন? বাংলা ভাষার রাজমর্যাদা শুধুমাত্র আপনাদের কারনে নষ্ট হয়। বাংলা ভাষাকে আমরা অবশ্যই সর্বচ্চশ্রদ্ধা রেখে বাংলা কে নিয়েই কাজ করব। অন্যের কাজ কে আঘাত করার দরকার কি? একদল তরুণ ডেভেলপার না থাকলে ইন্টারনেটে বাংলা এত সমৃদ্ধ হত না যা আপনি অস্বীকার করতে পারবেন না। কারন ইন্টারনেট জগতে বিজয় না অভ্র এসেছিলো যেটার কারনেই ইন্টারনেটে দেশের-বিদেশের ৮০% মানুষ বাংলায় লিখতে পারে যেটাকে আপনি "বেহুদা" বলে থাকেন। প্রয়োজনে পরিসংখ্যান করে দেখতে পারেন। এত কিছু বলার জন্য দুঃখিত, তবে বললাম এই কারনে যে আপনি আপনার সফটওয়ার কে সেরা মনে করেন ঠিক আছে, তবে অন্য সফটওয়্যার গুলো কে আপনার "হেভি" সত্রু মনে হয় যেটা পাবলিক প্লেসে প্রকাশ করেন এবং অন্যের দৃষ্টি তে কটু দেখায়।

উত্তরে মোস্তাফা জব্বার লিখেছেন, সেই পুরানো কাসুন্দি-অভ্রকে বলেছিলাম বিণা অনুমতিতে বিজয় কীবোর্ড ব‌্যবহার করবেন না। তাতেই গালাগাল। আমার কি নিজের মেধাসম্পদ রক্ষা করার অধিকার নাই? রিদমিককেও তাই বলছি। ওরা আমার অনুমতি না নিয়ে বিজয় কীবোর্ড ব‌্যবহার করতে পারেনা। আমি কোথাও বিজয় সম্পর্কে সেরা শব্দটিই প্রয়োগ করিনি। ওটা ব‌্যবহারকারীর নির্ধারণ করার দায়িত্ব। ২৭ বছর ধরে মানুষ বিজয় ব‌্যবহার করে। ২৭ বছল ধরে বিজয় বাংলাদেশের প্রকাশনার সেবা করছে। ইউনিকোডে বিজয় দিয়ে লেখা যায়না-আপনার কি এমন ধারনা? বিজয় এখন উইন্ডোজ, ম‌্যাক, লিনাক্স ও এন্ড্রয়েডে ইউনিকোডে কাজ করে। আপনি যা খুশি দিয়ে লিখুন-কিন্তু যিনি বিজয় কীবোর্ড দিয়ে লিখতে অভ‌্যস্ত তার জন‌্য আমি বিজয়-এর এন্ড্রয়েড সংস্করণ প্রকাশ করবোনা? আমি কারও কর্মকে ঘৃণা করিনা। আমি মনে করি সহজ করার নামে রোমান হরফ দিয়ে বাংলা লিখে, ভুল বানানে অভ‌্যস্ত করে বাংলা ভাষা-সাহিত‌্য ও লিপির অপূরণীয় ক্ষতি করা হচ্ছে। যারা রোমান হরফকে সহজ ভেবে নিজের হরফকে বিসর্জন দিয়েছে তারা এখন চোখের পানি ফেলেও সমাধান পায়না। ডেনমার্ককে দেখুন। আমাকে আঘাতটাতো আপনিই করলেন। আমি কাউকে আমার কীবোর্ড বিকৃত করতে দিতে পারিনা-এই কথাটি বললেই আমাকে আক্রমন করা উচিত নয়।

মোস্তাফা জব্বার এরপর গত ২০ ফেব্রুয়ারি এ প্রসঙ্গে আরও দুটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সেখানে লিখেছেন, "গুগলের এন্ড্রয়েড ইউনিকোড সমর্থন করলেও প্লেস্টোরে াে কার ঠিকমতো বসেনা। কবে যে সব অপারেটিং সিস্টেম বাংলাকে যথাযথভাবে প্রকাশ করার যোগ‌্য হবে!" এই স্ট্যাটাসের প্রেক্ষিতে মুন্তাসির আব্দুল্লাহ লিখেছেন, আমার খুব জানতে ইচ্ছে করছে তরুণ প্রজন্মের কত ভাগ বিজয় ব্যাবহার করে? উত্তরে মোস্তফা জব্বার লিখেছেন, আপনি নিজে খোজ করুন। জরীপও করতে পারেন। আমরা কোন প্রজন্মের জন‌্য আলাদা করে সফটওয়‌্যার বানাই না। বিজয় একটি পেশাদারী সফটওয়‌্যার এবং পেশাদারী কাজে বিজয়ই ব‌্যবহৃত হয়। আপনাকে শুধু এটুক বলতে পারি যে ৯৮ সাল থেকে গড়ে মাসে ৭০ হাজারের মতো বিজয় কীবোর্ড আমদানী হয়। বিজয় ২৭ বছর ধরে চলছে। দেশে এমন কোন কাগজের প্রকাশনা নেই যারা বিজয় ছাড়া অন‌্য কিছু ব‌্যবহার করে। আমরা এন্ড্রয়েড সংস্করণ তাদের জন‌্যই প্রকাশ করেছি যারা বিজয় ব‌্যবহার করতে চায়। অন‌্যরাও বিজয় কপি করে কারণ মানুষ বিজয় ব‌্যবহার করে। তরুণ প্রজন্ম? পত্রিকার অফিস, বাংলা বাজার, নীলখেত, ডিজিটাল কেন্দ্রের পরিছারক, অফিসের টাইপিস্ট ওদের বিজয় ব‌্যবহারের কোন বয়স নাই।

গুগল প্লে স্টোরেও বিজয় বাংলা সফটওয়‌্যার নিয়ে অনেকেই মন্তব্য দিয়েছেন। তারিকুল ইসলাম নামের একজন প্লে স্টোর রিভিউতে লিখেছেন, অ্যান্ড্রয়েড এর জন্য বিজয় বাংলা কী-বোর্ড থেকে মায়াবী কী-বোর্ড অনেক ভাল। বিজয় কী-বোর্ড দিয়ে বাংলা লিখতে গেলে আরবি হরফ আসে।

এ জাতীয় আরও খবর