শুক্রবার, ১লা জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তোপের মুখে মান্না

image_1112_167522ডেস্ক রির্পোট : সেনা হস্তক্ষেপ এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে লাশ ফেলার টেলিফোন কথোপকথন ফাঁস হওয়ার পর তোপের মুখে পড়েছেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। এই কথোপকথন নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শুরু হয়েছে তুমুল আলোচনা-সমালোচনা। আর তীব্র প্রতিক্রিয়া আসে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ, ১৪ দল, ছাত্রলীগ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে।
ইতোমধ্যে তাকে গ্রেপ্তারের দাবি উঠেছে খোদ মন্ত্রিসভায়। এই কথোপকথনকে গভীর ষড়যন্ত্র হিসেবে আখ্যায়িত করে মন্ত্রিসভার সদস্যদের অনেকেই তাকে গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন। আবার কেউ কেউ তাকে বিএনপির 'পেইড এজেন্ট' হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন।
সংবাদমাধ্যমে সোমবার মাহমুদুর রহমান মান্নার দুটি পৃথক অডিও প্রকাশিত হয়। বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকা এবং অন্য একজন অজ্ঞাত ব্যক্তির সঙ্গে মান্নার কথোপকথনের ওই অডিও নিয়ে গতকাল মন্ত্রিসভার বৈঠকে আলোচনা হয় বলে জানিয়েছে একটি সূত্র। বৈঠকে ওই অডিও নিয়ে মন্ত্রিসভার সদস্যরা ব্যাপক ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, কেউ কেউ মান্নার আগের রাজনৈতিক অবস্থান নিয়েও কথা বলেছেন। তারা বলেন, মান্না একেক সময় একেক দল করেছেন। কখনো জাসদ, কখনো বাসদ, এরপর আওয়ামী লীগ_ এভাবে দল বদল করেছেন। তার নিজের রাজনৈতিক কোনো চরিত্র নেই। এ নিয়ে হাস্যরসও হয় মন্ত্রিসভায়। বিএনপির 'পেইড এজেন্ট' হয়ে এখন তিনি কাজ করছেন বলেও মন্ত্রিসভার সদস্যদের কেউ কেউ অভিযোগ করেছেন।
আবার কেউ কেউ বলেছেন, মান্নার বড় ভাই জামায়াতের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত। জামায়াতের তৎকালীন ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্র সংঘ করতেন মান্নার বড় ভাই। ঘটনাচক্রে হয়তো মান্না জাসদে যোগ দিয়েছিলেন।
মন্ত্রীদের ক্ষোভের কথা শোনার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, 'কথোপকথনের যে তথ্য ফাঁস হয়েছে, তাতে স্পষ্ট যে, তারা একটা ষড়যন্ত্র নিয়ে অগ্রসর হচ্ছেন। এখন আপনারাই চিন্তা করেন, ভেবে দেখেন, কী করা যায়?'
এদিকে, কথোপকথনের অডিও টেপ প্রচারের পর এ বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নাও। নিজের ফেসবুক পেজে দেয়া প্রতিক্রিয়ায় তিনি বিস্ময় প্রকাশ করে বলেছেন, দেশের এই যুগ সন্ধিক্ষণে কারো চরিত্র হননের কাজ এই সঙ্কটকে আরো ঘনীভূত করবে।
তিনি বলেন, 'সামগ্রিক ঘটনায় আমি বিস্মিত, দুঃখিত, মর্মাহত। এ পর্যন্ত আমার রাজনৈতিক জীবনে কখনো সহিংসতা-ষড়যন্ত্রকে প্রশ্রয় দেইনি। আমার অতীত ইতিহাস সাক্ষ্য দেবে। যে দুটো সাক্ষাৎকার ছেপেছে, পাঠকদের অনুরোধ করব, যেন ভালো করে সেটা শোনা এবং পড়ে দেখার। কোথাও কোনো ষড়যন্ত্রের গন্ধ নেই, উস্কানি নেই।'
তিনি বলেন, 'সাদেক হোসেন খোকার সঙ্গে কথা হয়েছে, আলাপচারিতার মতো আন্দোলনের প্রসঙ্গ এসেছে। আমি বলেছি, গণতন্ত্রের দাবিতে আমি আন্দোলনে সমর্থন করি; সহিংসতা সমর্থন করি না। এ থেকে বেরিয়ে আসার জন্য ব্যাপক জনগণকে সংযুক্ত করার চেষ্টা করা উচিত। সহিংসতা দায়িত্ব নিয়ে বর্জন করা উচিত। এই আন্দোলনে এখনো ছাত্ররা অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে পারে। এজন্যই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ছাত্র আন্দোলন প্রতিষ্ঠিত ও বিস্তৃত করতে হবে। এটা করতে গিয়ে যদি পুলিশি বা সন্ত্রাসী হামলায় দু-চারজনের জীবনও যায়, কিছু করার নেই। এমনিতেই তো মানুষ মরছে।'
তিনি বলেন, 'আমার এই বক্তব্যকে বিকৃতভাবে ব্যাখ্যা করা হয়েছে। যেন, আমি লাশ চাই। একইভাবে সেনাবাহিনীর কোনো কোনো কর্মকর্তা আমার সঙ্গে কথা বলতে আগ্রহী হলে বলব কিনা, সেই কথা জানতে চাইলে আমি বলেছি, রাজি আছি। আমি রাজনীতি করি, সবার সঙ্গে কথা বলতে হয়। এটা থেকে এক এগারো বা সামরিক ক্যুর ষড়যন্ত্রের আবিষ্কার হয় কিভাবে?'
তিনি আরো বলেন, 'যেখানে এ রকম কোনো বৈঠকই হয়নি, দেশের এই যুগ সন্ধিক্ষণে কারো চরিত্র হননের কাজ সঙ্কটকে আরো ঘনীভূতই করবে। আমি আশা করি, সবাই শুভ বুদ্ধিতে জাগ্রত হবেন এবং এই সঙ্কটকে ইতিবাচকভাবে মোকাবেলা করবেন।'
তার মানে এই নয়
যে, লাশ চেয়েছি
অন্য দিকে, ঢাকা টাইমসকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে গণমাধ্যমে ফাঁস হওয়া কথোপকথন অসত্য নয় বলে জানিয়েছেন নাগরিক ঐক্যের উদ্যোক্তা মাহমুদুর রহমান মান্না। তিনি দাবি করেছেন, তার কথোপকথন নিয়ে যে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে, তার শিরোনামটি ঠিক হয়নি। সংবাদের উপস্থাপনায় তার ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে।
তিনি বলেন, প্রতিদিন কত লোকের সঙ্গেই তার কথা হয়। খোকা (সাদেক হোসেন খোকা) ভাইয়ের সঙ্গেও তার কথা হয়েছে। খোকা রাজনীতিক। রাজনীতির সঙ্গে আছেন, যে কারণে রাজনীতি নিয়ে তাদের মধ্যে প্রায়ই কথা হয়। কিন্তু তাদের ফোনালাপকে যেভাবে বিকৃত করে প্রচার করা হচ্ছে, তা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও ষড়যন্ত্রের অংশ।
বিশ্ববিদ্যালয়ে লাশ ফেলার বিষয়ে জানতে চাইলে ডাকসুর সাবেক সভাপতি মান্না বলেন, 'পুরো ফোনালাপের কোথাও কি আমি বলেছি, লাশ চাই? খোকা ভাইকে আমি বলেছি, আপনারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বের হয়ে গেছেন। ওখানে আবার ঢোকার চেষ্টা করেন। তিনি বললেন, ঢোকার চেষ্টা করলে তো সংঘাত হবে, মানুষ মারা যাবে। তখন কথার কথা বলেছি, এখন যদি কেউ মারা যায়, তাহলে আপনার কী করার আছে। তার মানে তো এই নয় যে, আমি লাশ চেয়েছি।'
সোমবার ঢাকায় নাগরিক ঐক্যের গণমিছিলের বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাবেক এই সাংগঠনিক সম্পাদক বলেন, 'লোক চাইতে আমার নিউইয়র্কে ফোন দিতে হবে কেন? ঢাকায় আমার কর্মসূচি, এজন্য আমি নিউইয়র্কে ফোন দেব? সরকার তো বিরোধী দলের লোকজনদের মিটিং-মিছিল করতে দিচ্ছে না। তাছাড়া আমারটা তো কোনো রাজনৈতিক সংগঠন নয়। এটা সাধারণ মানুষের একটা প্ল্যাটফর্ম। কিন্তু তারপরও কেন সরকার আমার ওপর এত খড়্গহস্ত হয়েছে, আমার বুঝে আসছে না। আমাকে বেকায়দায় ফেলতে এসব করা হচ্ছে।'
আপনি গ্রেপ্তার-মামলা-হামলার আশঙ্কা করছেন কিনা_ জানতে চাওয়া হলে মান্না বলেন, 'আমার তো এর চেয়ে বেশি কিছু মনে হচ্ছে। তা না হলে এভাবে আমার ওপর ক্ষ্যাপার কারণ কী?'
অজ্ঞাত ব্যক্তির সঙ্গে সেনা হস্তক্ষেপ নিয়ে ফোনালাপের বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে মাহমুদুর রহমান বলেন, "অনেকেই আমাকে ফোন দেন। বলেন, 'ভাই, এভাবে আর কতদিন চলবে। অবস্থার কি পরিবর্তন হবে না?' যে লোকটার সঙ্গে আমার কথা হয়েছে, আমি তাকে চিনিও না। দ্বিতীয়বার তার সঙ্গে কোনো কথাও আমার হয়নি। সে বলেছে, কাদের কাদের সঙ্গে কথা বলিয়ে দেবে। আমি বলেছি, ঠিক আছে কেউ কথা বললে বলব। এর বেশি কিছু নয়। তাই বলে আমি সেনা অভ্যুত্থানের চেষ্টা করছি, এটা কেমন কথা?"
তার ব্যাপারে সমালোচনার বিষয়ে মান্না বলেন, 'টিভি টকশোতে আমাকে নিয়ে যেভাবে কথা হচ্ছে, তা শুনে মনে হয়, আমি রাজনীতির ভিলেন হয়ে গেছি। কী এমন যেন আমি করে ফেলেছি। গণমাধ্যমকে ব্যবহার করে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। এখন যদি দেশের সচেতন সাংবাদিক সমাজ ও গণমাধ্যম এগিয়ে না আসে, তাহলে তো এই বিপদ থেকে রক্ষা মিলবে না।'
ঢাকা সিটি করপোরেশন (উত্তর) নির্বাচনে মেয়র পদে লড়তে চান মান্না। বিষয়টি উল্লেখ করে তিনি বলেন, 'ঢাকা সিটি নির্বাচনে আমি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করব। সরকার যখন দেখছে, আমার পক্ষে জনসমর্থন বেশি, তখন অকৌশলে আমাকে মানুষের কাছে হেয় করার জন্য এসব করে বেড়াচ্ছে। কিন্তু তাই বলে আমি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াব, এটা ভাবা ঠিক হবে না।'
মান্নার গণমিছিল স্থগিত
অন্যদিকে, টেলিফোন কথোপকথন ফাঁস হওয়ার পর দৃশ্যত বেকায়দায় থাকা মাহমুদুর রহমান মান্নার সংগঠন নাগরিক ঐক্যের সোমবারের গণমিছিল কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে।
সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ইফতেখার আহমেদ বাবু বলেন, 'উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আমরা আমাদের কর্মসূচি স্থগিত করেছি। আজ আর হচ্ছে না, পরে আপনাদের জানাব।'
'শান্তি ও সংলাপের দাবিতে' সোমবার বিকাল ৩টা থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ওই জমায়েত ও গণমিছিলের কর্মসূচি ছিল। আর তাতে প্রধান অতিথি থাকার কথা ছিল গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের। কিন্তু ওই সময় প্রেসক্লাবের সামনে গিয়ে কোনো কর্মসূচি দেখা যায়নি।
এ বিষয়ে জানতে সেগুনবাগিচায় নাগরিক ঐক্যের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে গেলে বলা হয়, 'মান্না ভাই নেই, উনি অসুস্থ।' পরে ইফতেখার আহমেদ বাবু কর্মসূচি স্থগিতের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।
প্রেসক্লাবের সামনে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা জানান, বিকাল ৩টার আগে নাগরিক ঐক্যের হাতেগোনা কয়েকজন কর্মী ওই এলাকায় গেলেও অল্প সময় পরে তারা ফিরে যান।
এ ব্যাপারে নাগরিক ঐক্যের উপদেষ্টা ও সাবেক সংসদ সদস্য এসএম আকরাম বলেন, অনিবার্য কারণে তারা গণমিছিলে উপস্থিত হতে পারেননি। তারা কেন মিছিলে আসেননি, তার সঠিক কারণ তার জানা নেই।
নাগরিক ঐক্যের নেতা নাজমুল হাসান বলেন, অনিবার্য কারণে তারা (কামাল-মান্না) গণমিছিলে আসতে পারেননি। তবে যে কোনো সময় একই দাবিতে গণমিছিলের পরবর্তী দিন জানিয়ে দেয়া হবে।
তিনি আরো বলেন, তাদের গণমিছিল শান্তির দাবিতে। জাতীয় সংলাপ হতে হবে, দেশে শান্তি ফিরিয়ে আনতে হবে। অন্যথায় তারা রাজপথে থাকবেন। তারা সরকারের ভয়-ভীতি ও হুমকিতে ভয় পান না।
নাগরিক ঐক্যের একজন নেতা বলেন, ড. কামাল হোসেন বিদেশ থেকে সোমবারই দেশে এসেছেন। তিনি (ড. কামাল হোসেন) অনেক টায়ার্ড, সেজন্য আসেননি। তবে মান্না কেন গণমিছিলে উপস্থিত হতে পারেননি, এ বিষয়ে কিছুই বলেননি নাগরিক ঐক্যের এই নেতা।
তবে সমাবেশকে কেন্দ্র করে প্রেসক্লাবের সামনে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ব্যাপক উপস্থিতি লক্ষ করা গেছে। সমাবেশস্থল পুলিশি ব্যারিকেড দিয়ে ঘিরে রাখা হয়।
মান্নাকে সাবধান হতে
বললেন হাছান
সম্প্রতি নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার গণমাধ্যমে কথোপকথন ফাঁস হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, 'যারা সহিংসতাকারীদের সঙ্গে সংলাপের কথা বলছে, জনগণের কাছে তারা চিহ্নিত হয়েছে। তাই চিহ্নিতদের এখনই সাবধান হওয়ার আহ্বান করছি।'
সোমবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদ আয়োজিত '২০ দলীয় জোটের অযৌক্তিক হরতাল-অবরোধে পেট্রলবোমায় সাধারণ মানুষ হত্যার প্রতিবাদে' এক সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।
হাছান মাহমুদ বলেন, 'যে খোকা সাহেব (সাদেক হোসেন খোকা) বিএনপি জোটের সহিংসতার দায়-দায়িত্ব স্বীকার করে নিয়েছে, সেই সহিংসতাকারীদের সঙ্গে পরামর্শ করছে। যারা এই সহিংসতাকারীদের সঙ্গে সংলাপের কথা বলছে, তারা চিহ্নিত হয়েছে। জনগণের কাছে তারা প্রকাশ পেয়েছে। তাই চিহ্নিতদের এখনই সাবধান হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।'
সহিংসতায় নিহতদের মুক্তিযোদ্ধার সম্মাননা দেয়া হবে_ বিএনপির এমন বিবৃতির পরিপ্রেক্ষিতে হাছান বলেন, 'তারাই মানুষ হত্যা করে তারাই মুক্তিযুদ্ধের সনদ দিতে চাইছে। এটা নিহতদের আত্মার সঙ্গে এবং সমগ্র জাতির সঙ্গে উপহাস মাত্র। এর মানে, রাজাকারের কাছ থেকে মুক্তিযুদ্ধের সনদ নেয়া।'
এজন্য জাতির সঙ্গে উপহাস না করতে বিএনপির প্রতি আহ্বানও জানান সাবেক এই বনমন্ত্রী।
মান্নাকে গণধোলাই
দেয়া হবে : ছাত্রলীগ
বাংলাদেশ ছাত্রলীগ নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নাকে গণধোলাই দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে। একই সঙ্গে তাকে সারাদেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনটি।
সোমবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে এক বিক্ষোভ সমাবেশে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম এ ঘোষণা দেন।
বিএনপি-জামায়াতের হরতাল-অবরোধের নামে অগি্নবোমা হামলা এবং মানুষ হত্যাসহ নৃশংসতার প্রতিবাদে ওই বিক্ষোভ মিছিল করা হয়।
সিদ্দিকী নাজমুল আলম বলেন, মাহমুদুর রহমান মান্নাকে যেখানে পাওয়া যাবে, সেখানেই গণধোলাই দেয়া হবে।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সাধারণ সম্পাদক ওমর শরীফ মাহমুদুর রহমান মান্নাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কুলাঙ্গার বলে আখ্যায়িত করেছেন। সেই সঙ্গে তিনি ঢাবি প্রশাসনের কাছে মান্নার সার্টিফিকেট বাজেয়াপ্তের দাবি জানান।
তিনি বলেন, কোনো কুলাঙ্গার ডাকসুর সাবেক ভিপি হতে পারে না। বিক্ষোভ মিছিল থেকে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা 'মান্নার দুই গালে, জুতা মারো তালে তালে' সস্নোগান দিতে থাকেন।
ছাত্রলীগের সভাপতি এইচএম বদিউজ্জামান সোহাগের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামসুর কবির রাহাত, দপ্তর সম্পাদক শেখ রাসেল এবং ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি মেহেদী হাসান মোল্লাসহ সংগঠনের কেন্দ্রীয় এবং বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নেতৃবৃন্দ।

এ জাতীয় আরও খবর

ঈদের আগে ফ্রিজ পরিষ্কারের দারুণ কিছু টিপস

ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ২২

পদ্মা সেতু হওয়ায় দুশ্চিন্তায় দৌলতদিয়ার ১৪০০ হকার

বাসার নিচতলায় হাঁটুপানি, বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ২ জনের মৃত্যু

‘সোনার চর’ দিয়ে কাজে ফিরলেন মৌসুমী

কিশোরীকে ‘আই লাভ ইউ’ বলায় যুবকের কারাদণ্ড

কোক স্টুডিও বাংলায় গান গাইবেন ওস্তাদ রশিদ খান

সেই জিতুকে স্কুল থেকে আজীবন বহিষ্কার

জাতির কাছে নূপুর শর্মার ক্ষমা চাওয়া উচিত : ভারতীয় সুপ্রিম কোর্ট

যাত্রীর চাপে এক্সপ্রেসওয়ের টোল প্লাজায় বাড়ল বুথ

‘আমরা শেষ পর্যন্ত সিদ্ধান্তে অটল থাকতে পারলে আ.লীগ সরকার থাকবে না’

ভাইয়ের জানাজায় অংশ নিতে প্যারোলে মুক্তি পেলেন হাজী সেলিম