মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

লঞ্চডুবিতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬৭

padma-launch-dieপাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথে কার্গোর ধাক্কায় ডুবে যাওয়া লঞ্চ এমভি মোস্তফা ১৪ ঘণ্টা পর উদ্ধার করা হয়েছে। এরই মধ্যে লঞ্চটিকে টেনে তীরে তুলে এনছে উদ্ধারকারী জাহাজ রুস্তম। শেষরাতে নতুন করে আরও ২৪টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৬৭।

সোমবার দিবাগত রাত পৌনে ৩টার দিকে লঞ্চটি উদ্ধার করা হয়। ভোর সাড়ে ৫টা পর্যন্ত নারী-শিশুসহ ৬৭ যাত্রীর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধার হওয়া যাত্রীদের মধ্যে রয়েছেন- ২৩ নারী, ১৫ শিশু ও ২৯ জন পুরুষ রয়েছেন। তাৎক্ষণিকভাবে তাদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

মানিকগঞ্জের সহকারী পুলিশ সুপার শাহীনুর আলম খান এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, উদ্ধার হওয়া মৃতদেহগুলোর মধ্যে ১৯জনকে তাদের স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়ছে। এদিকে, নৌবাহিনীর ১১ সদস্যের একটি ডুবুরি দল পদ্মানদীর দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার কাজ চালাচ্ছে।

জানা যায়, কমফোর্ট লাইন ও রাজধানী এক্সপ্রেসের যাত্রীরা ডুবে যাওয়া লঞ্চ মোস্তফায় ছিল। বাস দুটি ঢাকা থেকে গোপালগঞ্জের উদ্দেশে যাচ্ছিল। লঞ্চডুবির ঘটনায় দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়া ঘাটে স্ব স্ব জেলা প্রশাসকের উদ্যোগে দুটি নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খোলা হয়েছে।

এছাড়া মানিকগঞ্জের শিবালয় ‍উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উদ্যোগে একটি মেডিকেল সেন্টার খোলা হয়েছে পাটুরিয়া ঘাটে।

এর আগে গতকাল বেলা পৌনে ১২টার দিকে পাটুরিয়া থেকে দৌলতদিয়া যাওয়ার পথে সারবোঝাই কার্গোর ধাক্কায় ডুবে যায় লঞ্চটি। পাটুরিয়া লঞ্চঘাট শাখার সুপারভাইজার জুয়েল রানা জানান, লঞ্চটিতে দেড় শতাধিক যাত্রী ছিলেন।