মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্র, ইইউ, ব্রিটেন, বিএনপি সবাই একলাইনে সরকার ভিন্ন লাইনে

hasina khaleda-21জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্র, ইইউ, বৃটেন, বিএনপি চলমান সংকট সমাধানের জন্য সবাই একলাইনে অবস্থান করছে। কিন্তু সরকার ভিন্ন লাইনে হাঁটছে। জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্র, ইইউ, ব্রিটেন, বিএনপি সবাই চাইছে সংলাপের মাধ্যমে সংকটের নিরসন। কিন্তু সরকার তা চায় না। সরকারের কাছে এই মূহুর্তে সংলাপের কোন গুরুত্ব নেই। সরকারের অবস্থান স্পষ্ট। তারা এখন বিএনপির অবরোধ, হরতালের চাপের মুখে ও বিদেশিদের দূতিয়ালীর চাপে কোন সংলাপে বসবে না বিএনপির সঙ্গে। আগাম নির্বাচনও করবে না। আগামীতে বসবে তেমন কোন কথাও বলছে না। কেবল বলছে বিএনপি জোট আগে সন্ত্রাস, সহিংসতা, নাশকতার ঘটনা বন্ধ করুক এরপর সংলাপের বিষয়টি বিবেচনা করবে।

বিশ্বস্ত সূত্র জানায়, সরকারের সংলাপের ব্যাপারে আগ্রহ না থাকার কারণে এখনও সরকার নিজেকে কোন চাপের কাছে কাবু মনে করছেন না। শেখ হাসিনার ঘনিষ্ট একজন মন্ত্রী বলেছেন, বিএনপি নেত্রী, বিএনপি জোটের নেতারা সরকারের উপর চাপ তৈরি করার চেষ্টা করছে। পাশাপাশি তারা বিদেশিদের কাছে দেশের সমস্যার কথা বাড়িয়ে বাড়িয়ে বলছে আর দেশের ইমেজ নষ্ট করছে। বিএনপি দেশ প্রেমিক দল হলে তারা ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য এই ভাবে সরকারের বিরুদ্ধে বলতে গিয়ে দেশের ক্ষতি করতো না। কিন্তু তারা আন্দোলনে সাফল্য না পেয়ে, সরকারকে কাবু করতে না পেরে এখন তারা বিদেশিদের কাছে গিয়ে ধর্না দিচ্ছে। তিনি বলেন, আমি বলতে চাই বিএনপি যতই চাপ দিক না কেন আর বিদেশিরা যতই দূতিয়ালী করুক না কেন সরকার ও শেখ হাসিনা তার  অবস্থান কোন ভাবেই এখন পরিবর্তন করবেন না। তিনি সংলাপে এখন রাজি নন। বিএনপি যতদিন পারে আন্দোলন চালিয়ে যাক সরকার আইন অনুযায়ী তা বন্ধ করবে।

ওই মন্ত্রী আরো বলেন, বিএনপি নেত্রী সংলাপ চান না। তিনি বিদেশিদের হাত ধরে ক্ষমতায় যেতে চান। তিনি সংলাপ চাইলে তার ছেলে মারা যাওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী যখন তার অফিসে যান সেখান থেকে ফিরিয়ে দিতেন না। আসলে সংলাপ চান না বলেই ফিরিয়ে দেন। তিনি মনে করছেন বিদেশিরা সরকারকে চাপ দিয়ে তার দাবি আদায় করে দিবে বিদেশিরা। তিনি সহজেই ক্ষমতায় চলে যাবেন। তার সেই ইচ্ছে আপাতত পূরণ হচ্ছে না।

এদিকে গত পনের দিনে বিদেশি তৎপরতা ছিল চোখে পড়ার মতো। সেখানে বৃটিশ হাইকমিশনার বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করেছেন। সবাইকে পরিণতি ভাবার কথা বলেছেন। এরপর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ঢাকায় আসা নতুন রাষ্ট্রদূত মার্শিয়া স্টিফেন ব্লুম বার্নিকাট প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেছেন সংসদ ভবনে, সেখানে সংসদ অধিবেশনও দেখেছেন, সাংবাদিকদেরকে বলেছেন এই দেশের জনগণই তাদের সমস্যার সমাধান করবে, তিনি সংলাপ করার ব্যাপারে সরাসরি কোনো চাপ দেননি।

সরকারের একটি সূত্র জানায়, তিনি জানেন যে সরকারকে চাপ দিয়ে কিছুই হবে না। যেটা এর আগে ড্যান ডব্লিউ মজিনা চেষ্টা করেও পারেননি। এই কারণে তিনি তার কৌশল কিছুটা পরিবর্তন করেছেন। এর আগে দায়িত্ব দেওয়ার দিনেই তিনি ভারতের হাইকমিশনার পঙ্কজ শরন, রাষ্ট্রপতি এডভোকেট আব্দুল হামিদের সঙ্গেও দেখা করেছেন। ভারত ও যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের সমস্যা সমাধানের ব্যাপারে জনগণকেই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন।

এদিকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের মানবাধিকার বিষয়ক প্রতিনিধি দল ঢাকা সফর করে সরকার, বেগম খালেদা জিয়া, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী, মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান, সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। তারাও দেশের এই অবস্থায় উদ্বেগ প্রকাশ করে সংকটের নিরসন করার তাগিদ দিয়েছেন। তবে তাদের বক্তব্য নিয়ে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ভুল বলায় সেটা নিয়ে তারা আবার নালিশও করেছেন মানবাধিকার কমিশনের কাছে। তারা ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূতের বাসায় ড. ইউনূসের সঙ্গেও বৈঠক করেছেন।
এদিকে ১৯ ফেব্র“য়ারি তিন দিনের সফরে ঢাকায় আসেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। তিনি আসার পর রাজনীতি নিয়ে বিশেষ কোন কথা বলেননি। দেখা করেননি বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গেও। তিনি তার দেশের স্বার্থ বিবেচনা করেই সরকারের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রেখে এগুচ্ছেন বলে তার সঙ্গে আসা সাংবাদিক সফরসঙ্গীদের একজনের মত। রাজনীতি নিয়ে এখনও তাই প্রকাশ্যে কিছু বলেননি। এদিকে তিনি তা না বললেও ২০ ফ্রেবুয়ারি রাতে ঢাকায় পঙ্কজ শরনের বাসভবনে বিএনপি, আওয়ামী লীগ ও চোদ্দদলীয় জোটের নেতা ও সুশীল সমাজের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন।

এদিকে মমতা তার ঢাকা মিশন তার মতো করে শেষ করলেও পররাষ্ট্র মন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্র সফর করে বেশ চাপের মুখেই পড়েন। জাতিসংঘ মহাসচিব তাকে সংকট নিরসনে ও মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রী জন কেরিও সংকট নিরসনের কথা বলেছেন। তাদের তরফ থেকে সেটা বলা হলেও মাহমদু আলীও বাংলাদেশ সরকারের অবস্থান স্পষ্ট করে ব্যাখ্যা করেছেন। সরকার কি চায় সেটাও বলেছেন।

বিরোধী দলের সাথে গঠনমূলক সম্পর্ক স্থাপনে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব বানকি মুন। বান কি মুন এ আহবান জানানোর পাশাপাশি বাংলাদেশের চলমান পরিস্থিতির উন্নয়নে সুনির্দিষ্ট পথ খুঁজে বের করতে সরকারকে উৎসাহ প্রদান করেন। ২০১৫ সালের শুরু থেকে রাজনৈতিক সহিংসতায় জীবনহানির ঘটনায় আবারো উদ্বেগ জানান মহাসচিব বান কি মুন। জাতিসংঘের ওয়েব সাইটে দেয়া তথ্য বিবরণী থেকে আরো জানা যায়, মহাসচিব বান কি মুন ও নিউইয়র্ক থেকে এনা জানায়, পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলীর মধ্যকার বৈঠকে জাতিসংঘ ও বাংলাদেশ সরকারের সহযোগিতার বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। জাতিসংঘের বিভিন্ন কার্যক্রমে বিশেষ করে শান্তিরক্ষী মিশনে বাংলাদেশের ভূমিকায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন মহাসচিব বান কি মুন ।

এদিকে ওয়াশিংটনস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ এম মাহমুদ আলীকে সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড এবং জাতিসংঘের শান্তি রক্ষী মিশনে বাংলাদেশের অংশগ্রহণের প্রশংসা করেন। সেই সাথে বিরোধী দলের মতপ্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিত করার আহবান জানান।

এদিকে গণতান্ত্রিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে রাজনৈতিক সমঝোতায় সহযেগিতার প্রস্তাব দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। গত ১৯ ফেব্রুয়ারি ওয়াশিংটনে বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ এম মাহমুদ আলীর সাথে বৈঠকে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি এ কথা বলেন। যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্টের প্রেস অফিস থেকে এক প্রেস রিলিজের মাধ্যমে জানানো হয়, আমেরিকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি বাংলাদেশ ও আমেরিকার সুসম্পর্কের কথাও বৈঠককে উল্লেখ করেন। দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন, ক্লাইমেট চেঞ্জ এবং শ্রমিকদের উন্নয়ন নিয়ে খোলামেলা আলোচনা করেন। দেশের বর্তমান সংহিস পরিস্থিতিতে শান্তিপূর্ণভাবে দমন করার আহবান জানান এবং সেই সাথে সব দলের শান্তিপূর্ণ মতপ্রকাশে সরকারকে যথাযথ পদক্ষেপ নেবার প্রতি জোর আরোপ করেছেন তিনি। আমেরিকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি গণতান্ত্রিক পরিবেশ বিকাশে মুক্ত গণমাধ্যমের প্রতি গুরুত্বারোপ করে বলেন, মানবাধিকার সুনিশ্চিতের জন্য সুষ্ঠু ও স্বাধীন গণমাধ্যমের সুযোগ নিশ্চিত করতে হবে।

বাংলাদেশকে  গণতান্ত্রিক ভিত্তিমূলে ফিরিয়ে নিয়ে যাবার বিষয়টি গুরুত্¡ারোপ করে জন কেরি বলেন, রাজনৈতিক সংকট নিরসনে সহায়তা করতে যুক্তরাষ্ট্র প্রস্তুত রয়েছে। বেসামরিক লোকজনের প্রাণহানির ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে জন কেরি বলেন, গণতান্ত্রিক বাংলাদেশে নিরপরাধ মানুষকে হত্যা এবং বিরোধী দলের রাজনৈতিক মতপ্রকাশে বিধিনিষেধ আরোপ কোনটাই মেনে নেয়া যায় না। বৈঠকে দ্বিপাক্ষিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আলোচনা হয়। বৈঠকে আরো উপস্থিত ছিলেন  দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক মার্কিন উপসহকারী পররাষ্ট্র মন্ত্রী নিশা দেশাই, ওয়াশিংটনের নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত জিয়া উদ্দিন, পররাষ্ট্র সচিব শহিদুল হক, ডিরেক্টর জেনারেল মাহফুজুর রহমান।

উল্লেখ্য, বিশ্বব্যাপী চরমপন্থী সহিংসতা রুখতে হোয়াইট হাউজ আয়োজিত তিন দিনের সম্মেলনের সাইডলাইনে পররাষ্ট্র দফতরে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলীর সাথে বৈঠক করেন জন কেরি। ওই সম্মেলনে ৭০ এর বেশি দেশের প্রতিনিধিরা অংশ নেন। সেখানে বাংলাদেশ দলের নেতৃত্ব দেন মাহমুদ  আলী।

এদিকে সংকট নিরসনের জন্য দুই নেত্রীকে দুই সপ্তাহ আগে চিঠি দেন বান কি মুন। ওই চিঠি সরকার প্রধান পান দুই সপ্তাহ পর। ওই চিঠি পাওয়ার পর পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেছেন, খুনীদের সঙ্গে কোন সংলাপ হবে না। বান কি মুন তারানকোর সহযোগিতা নিতেও বলেছেন। সরকার সেটাও নিবে না। বলে প্রতিমন্ত্রী বলেছেন, আপাতত তারানকো ঢাকায় আসছেন না।

চার দিকে যখন সরকারের উপর চাপ তখন সরকারের সিদ্ধান্ত কোন সংলাপ হবে না বলে জানান পররাষ্ট্র মন্ত্রী। বাংলাদেশের সমস্যা সমাধানে যুক্তরাষ্ট্র কি ভূমিকা রাখতে পারে এমন কিছু জন কেরি বলেছেন কি না সে প্রশ্নে মাহমুদ আলী ভয়েস অব আমেরিকার কাছে বলেন,-না। তা স্পষ্ট করে কিছু বলেন নি। তবে দ্রুত যেনো সংকট কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয় সে ব্যাবব্থা নেয়ার আহবান জানিয়েছেন জন কেরি। ২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারির নির্বাচনের বৈধতা নিয়ে অনেকের মনে প্রশ্ন। এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের কি মত তা জানতে চাইলে মাহমুদ আলী বলেন। এখনতো সেটি নিয়ে কারো মনো কোনো প্রশ্ন নেই। এখন তা কেউ তুলছেও না। ইউরোপিয়ন ইউনিয়নও বলেছে যে সরকারের সঙ্গে তারা কাজ করছে।

বাংলাদেশের চলমান হরতাল অবরোধ সম্পর্কে জন কেরি কি বললেন সে বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা তাকে আশ্বস্ত করেছি যে সরকার জনগণকে সাথে নিয়ে তার মোকাবেলা করছে। এবং অবস্থা এখন অনেক ভালোর দিকে। এ নিয়ে জন কেরির মন্তব্য কি ছিল জানতে চাইলে তিনি বলেন তিনি বলেছেন হরতাল অবরোধ সহিংসতা-তো গণতান্ত্রিক পদ্ধতি নয়। দ্রুত এর সমাধানের আহবান জানিয়েছেন তিনি।

জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুনের সঙ্গে বৈঠকে কি বিষয়ে আলোচনা হয়েছে জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী বলেন তিনি বাংলাদেশের সহিংসতা ও প্রাণহানিতে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। বাংলাদেশের উজ্জল ভবিষ্যতও কামনা করেছেন বান কি মুন।

বিরোধীপক্ষের সঙ্গে সংলাপের ব্যাপারে কোনে কথা হয়েছে কিনা সে প্রশ্নে তিনি বলেন: যারা সন্ত্রাস করে তাদের সাথে কোনো সংলাপ নয়। জামায়াতের সঙ্গ ছেড়ে, সন্ত্রাস ছেড়ে গণতান্ত্রিক ধারায় ফিরে আসলে বিএনপির সঙ্গে সংলাপ করতে তারা রাজি।

বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, সরকার এখন কঠোর থাকলেও গত ৪৭ দিনে পরিস্থিতি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ করবে বলেও তা সরকার পারেনি। এটা জনগণ ভালভাবে নিচেছ না। কারণ তাদের নিরাপত্তাহীনতা বাড়ছে। উদ্বেগও উৎকন্ঠাও বাড়ছে। সেই সঙ্গে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। সব মিলিয়ে সংকট যত বাড়ছে অবস্থাও খারাপ হচ্ছে। তারা মনে করেন বিদেশিদের চাপে যদি সরকার বসতে না হয় দেশের স্বার্থেই তাদের আলোচনায় বসে সংকটের নিরসন করা দরকার।

এদিকে আইনমন্ত্রী এডভোকেট আনিসুল হক বলেছেন, সরকার কোন সংলাপ এখন করবে না। নির্বাচনও ২০১৯ সালের আগে হবে না। এই কারণে আপাতত বিএনপির সঙ্গে নির্বাচন নিয়ে আলোচনা করার কোন প্রয়োজনও নেই। তারা নির্বাচন চায়। সরকার একবারের জন্যও বলেনি দশম সংসদ শেষ হওয়ার পরে সরকার নির্বাচন দিবে না। সরকার নিয়ম ও সময় মতো নির্বাচন দিবে। এনিয়ে তাদের এত চিন্তিত হওয়ার কিছুই নেই। সময় মতো সব হবে।

তারা তো আন্দোলন করছে, এতে দেশের ক্ষতি হচ্ছে, সরকারতো এগুলো বন্ধ করতে পারছে না তিনি বলেন, তারা অযৌক্তিক, অসাংবিধানিক আন্দোলন করছে। তারা সাংবিধানিক ধারায় ফিরে এসে যদি নির্বাচনে রাজি হয় তাহলে সরকার ২০১৯ সালে তাদের সঙ্গে আলোচনা করবে। এখন কোন আলোচনা হবে না।

বিদেশিরা সরকারের উপর চাপ তৈরি করছে, তিনি বলেন, বিদেশিদের চাপে এই সরকার কোন নতি স্বীকার করবে না। বিদেশিরা যা ভরবে আমাদেরকে তাই করতে হবে ? কেন আমরা দেশের সমস্যা নিয়ে আর একজনের পরামর্শে সমস্যার সমাধান করতে যাব। আজকে তাদের এই মতকে গুরুত্ব দেওয়া হলে তা দেশের জন্য খারাপ হবে। তাদের প্রভুত্ব ও আধিপত্য আমাদেরকে তখন মানতেই হবে। আর এটা সরকার চাইছে না বলেই কোন বিদেশি চাপেই সরকার সংলাপ করবে না।

বিদেশিদের সঙ্গে তাহলে বসে কি বলছেন, তাদেরকে আমরা এটাই বলছি যে আমরা এখনও সংবিধানের মধ্যেই রয়েছি। এই সরকার সংবিধানের বাইরে একটি কাজও করছে না। বিএনপি নির্বাচনে আসেনি সেটা তাদের ভুল। এই ভুুলের মাশুলতো সরকার আর আওয়ামী লীগ দিবে না। তারা যখন সংকট সমাধানের কথা বলে তখন আমরা এটা বলার পর তারা আমাদেরটাই মেনে নেয়। যেই জন্য এখন সবাই বলার চেষ্টা করছে এই দেশের সংকট এই দেশের মানুষই সমাধান করবে। এটা তারা এই জন্য বলছে। তারাও ভুঝতে পারছে যেটা তার বিএনপির কথা শুনে যেটা করছে সেটা হবে না। এই কারণে জনগণকে কেউ কেউ সরকারের বিপক্ষে ব্যবহার করার চেষ্টা করছে। মাঠে নামানোর চেষ্টা করছে। সেটাও আমরা হতে দেব না। আমরা জনগণকে এটাই বোঝাতে চাই যে সরকার যা করছে দেশের উপর বিদেশিদের কর্তৃত্ব বন্ধ করতে, একটি সুদৃঢ় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত করতেই কাজ করছে। আওয়ামী লীগের মূল লক্ষ্য কেবল ক্ষমতায় থাকা নয়। দেশটাকে আরো ভাল অবস্থানে নিয়ে যাওয়া। নিজের মতো করে দেশটাকে যাতে আগামী দিনে যারাই ক্ষমতায় আসুক না কেন তারা যাতে চালাতে পারে সেই ব্যবস্থা করা। বিদেশিদের কথা আমরা আর দেশের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে শুনবো না। এই ব্যাপারে জনগণ সরকারকে সব ধরনের সহযোগিতা করবে বলে আমরা বিশ্বাস করি। তারা কারো কথায় বিভ্রান্ত না হয় সেটাও প্রধানমন্ত্রী চেষ্টা করছেন। তাদেরকে এই সব ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হতেও বলেছেন। আশা করি সেটা জনগণ হবেন।

amadershomoys.com