মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রোববার থেকে হরতাল অবরোধের সঙ্গে বিক্ষোভ

images (38) ডেস্ক রির্পোট : আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে হরতাল-  অবরোধের  টানা কর্মসূচিতে একদিনের বিরতি দিচ্ছে বিএনপি  নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয়  জোট। এ কারণে কাল ২১ ফেব্রুয়ারিতে  অবরোধ-হরতালসহ সরকারবিরোধী  কোনো কর্মসূচি থাকছে না।  তবে আগামী রোববার থেকে কঠোর হয়ে  আন্দোলনে নতুন মাত্রা  যোগ করবে জোটটি। হরতাল-অবরোধ রেখেই  রাজধানীসহ সারাদেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে টানা বিক্ষোভ মিছিল করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। 
গুলশান কার্যালয় সূত্র জানিয়েছে, আন্দোলন কৌশলের ভিন্নতা আনতে দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জ্যেষ্ঠ কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলেছেন। হরতাল-অবরোধের পাশাপাশি কোন কর্মসূচি দিলে জনগণের সম্পৃক্ততা বাড়াবে, তা নিয়ে গত কয়েকদিনে দলের নেতারা তাদের মধ্যে আলোচনা করেছেন। 
জানা গেছে, ঢাকায় বড় ধরনের শোডাউনের চিন্তা করা হলেও এ নিয়ে মতভিন্নতা রয়েছে। ওই ধরনের শোডাউন করতে জ্যেষ্ঠ নেতাদের প্রকাশ্যে আসতে হবে। বর্তমান অবস্থায় সেটা অনেকটাই অসম্ভব। কারণ, নেতারা প্রকাশ্যে এলেই তাদের গ্রেপ্তার করা হবে। আর নেতারা গ্রেপ্তার হয়ে গেলে আন্দোলনে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। তবে চলমান কর্মসূচিতে জনগণের সম্পৃক্ততা বাড়ানোর পাশাপাশি নেতাকর্মীদের রাজপথে নামানোর উদ্যোগ নেয়ার বিষয়ে অধিকাংশ নেতা একমত হয়েছেন। এজন্যই হরতাল ও অবরোধের সঙ্গে বিক্ষোভ মিছিলের কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। অবশ্য অনেকে শুধু অবরোধ রেখে বিক্ষোভ করার পক্ষে মত দিয়েছেন। এক্ষেত্রে তারা হরতাল না রাখার ব্যাপারে যুক্তি দিয়েছেন। কেউ কেউ বলছেন, হরতাল ও অবরোধ রেখেই বিক্ষোভ কর্মসূচি দিতে হবে। এতে তারা সমস্যা দেখছেন না। 
হরতাল-অবরোধের সঙ্গে নতুন করে বিক্ষোভ মিছিলের কর্মসূচির সপক্ষে যুক্তি হিসেবে বিএনপির নীতিনির্ধারণী সূত্র জানিয়েছে, দেড় মাসের কর্মসূচিতে নেতাকর্মীরা অনেকটা ক্লান্ত হয়ে পড়েছে। গুলিতে বেশ কয়েক নেতাকর্মী নিহত হওয়ায় অনেকের মধ্যে ভীতি তৈরি হয়েছে। যার প্রভাব পড়েছে কর্মসূচিতে। হরতাল-অবরোধের মধ্যে রাজধানী ঢাকায় যানবাহন চলাচল বেড়ে গেছে। কর্মসূচিতে শিথিলতা এসেছে। এ বাস্তবতায় রাজপথে নেতাকর্মীদের নামিয়ে আন্দোলনের গতি বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এ কারণে রাজধানীর সব ওয়ার্ডে মিছিল করার সিদ্ধান্ত নেয়া হচ্ছে। 
নেতারা বলছেন, টানা বিক্ষোভ চললে ওয়ার্ড পর্যায়ে মিছিলের সংখ্যা বাড়বে। মিছিলে নেতাকর্মীদের অংশগ্রহণ বাড়লে পরবর্তীতে বড় ধরনের শোডাউনও করা যেতে পারে।
বিএনপির এক নেতা জানিয়েছেন, ২১ ফেব্রুয়ারির পরই চূড়ান্ত আন্দোলনে যাওয়ার উপযুক্ত সময়। শিগগিরই সভা-সমাবেশের কর্মসূচির ঘোষণাসহ চলমান আন্দোলন এবং রাজনীতির সর্বশেষ অবস্থা নিয়ে বিবৃতি প্রদান বা যে কোনো সময় সংবাদ সম্মেলন করতে পারেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।
বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা মনে করছেন, চলমান আন্দোলন সফলতার দিকে যাচ্ছে। শীর্ষনেতাকে 'বিচ্ছিন্ন', সিনিয়র নেতাদের কারাবন্দি, হামলা-মামলা, গুম, খুন, ক্রসফায়ার, ট্রাক-বাসের চাপায় মেরে ফেলার হুমকির মধ্যেও আন্দোলন ৪৫ দিন পেরিয়ে গেছে। সারাদেশ থেকে এখন ঢাকা বিচ্ছিন্ন। এতদিন রাজপথে টিকে থাকাটাই প্রথম সফলতা। এছাড়া সুশীল সমাজ ও বহির্বিশ্বের সমর্থন সফলতার আরেক দিক বলে মনে করা হচ্ছে। তাদের এ আন্দোলন শুরুর মূল লক্ষ্য ছিল, নতুন নির্বাচনের জন্য সরকারের কাছ থেকে 'সংলাপ' আদায় করা। দেশ-বিদেশে দাবির যৌক্তিকতা ও অপরিহার্যতা পেয়েছে। 
জোট নেতারা দাবি করেন, বাংলাদেশের চলমান রাজনৈতিক সঙ্কট নিয়ে আলোচনার ঝড় বয়ে যাচ্ছে কূটনৈতিক মহলে। এতকিছুর পরও সরকার সংলাপের পথে যাচ্ছে না। এই আন্দোলনে জনসমর্থন নেই বলে বিভিন্ন মহলে নানা রকমের অপপ্রচার চালানোর চেষ্টা করছে সরকার। আন্দোলনে গণজোয়ার আনতে ২০ দলীয় জোট রাজপথে শোডাউনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। 
আন্দোলনের পরবর্তী কর্মসূচির বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, আন্দোলনের গতি দিন যত যাবে ততই বাড়বে। সরকারকে দাবি মানতে বাধ্য করতে চলমান আন্দোলনে নতুন মাত্রা যোগ হবে।