সোমবার, ১৬ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অবরোধ দীর্ঘায়িত হতে দেবে না সরকার

1421517078.ডেস্ক রির্পোট : বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট ঘোষিত অনির্দিষ্টকালের অবরোধ কর্মসূচি আর দীর্ঘায়িত করতে দেবে না সরকার। সংলাপে বসারও কোনো ইচ্ছে নেই। সংলাপে না বসার অনড় অবস্থানে থেকেই দেশকে স্বাভাবিক পর্যায়ে ফিরিয়ে আনতে চায় সরকার। তবে বিএনপি যদি নিজ দলের পক্ষ থেকে সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ছেড়ে শান্তিপূর্ণ সমাধানে ফেরার প্রতিশ্রুতি দেয় সেক্ষেত্রে সরকার তাদের সহযোগিতার জন্য প্রস্তুত রয়েছে। সভা-সমাবেশ করার অনুমতিও দিতে পারে। কিন্তু অবরোধ কর্মসূচি আজ থেকেই সংকুচিত করা হবে। ক্ষমতাসীন দলের একাধিক সিনিয়র নেতা মনে করেন, বিএনপি যদি মনে করে এভাবে সন্ত্রাস, নৈরাজ্য সৃষ্টি করে জনগণের ভোগান্তি বাড়িয়ে সরকারকে বিপদে ফেলবে তাহলে তারা বোধহয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চিনতে ভুল করছেন। জনগণের জানমালের নিরাপত্তার কথা ভেবে আজ থেকেই কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে সরকারের নানা সংস্থা। স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনাই হবে সরকারের একমাত্র লক্ষ্য। পাশাপশি বিএনপির পরবর্তী পদক্ষেপের প্রতিও শ্যেনদৃষ্টি রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ হবে দক্ষিণ এশিয়ার শান্তিপ্রিয় দেশ। এখানে কোনো জঙ্গি কার্যক্রম বরদাস্ত করা হবে না।
সরকারের উচ্চপর্যায়ের একাধিক সূত্র জানায়, দেশে স্বাভাবিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে আজ রোববার থেকেই প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেয়াসহ সাংগঠনিক কর্মসুচি নিয়ে সন্ত্রাসবিরোধী কমিটি মাঠে নামবে। কোনো কোনো জেলায় গতকাল থেকেই আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে গঠিত সন্ত্রাসবিরোধী কমিটি কাজ শুরু করেছে। এরই অংশ হিসাবে গতকালই শান্তির সমাবেশ কর্মসুচি পালন শুরু করেছে ১৪ দল। দেশে স্বাভাবিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে এবং জ্বালাওপোড়াও বন্ধে এর আগে পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি মাঠে নেমেছে। সরকারের হাইকমান্ডের দেয়া নির্দেশ তামিল করতে তিন সংস্থার প্রধানরা ইতোমধ্যে সংবাদ সম্মেলন ও মতবিনিময় করেছেন। তারা ঘোষণাও দিয়েছেন, যে কোনো মূল্যে দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে কাজ করবেন। এটি তাদের রুটিন দায়িত্ব। এদিকে সরকারের একাধিক মন্ত্রীও বলেছেন, আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে দেশব্যাপী নৈরাজ্য, সন্ত্রাস ও চলমান অচলাবস্থার অবসান হবে। সরকারী সূত্রগুলো জানায়, সরকারের গৃহীত কঠোর পদক্ষেপে বিএনপি-জামায়াতের ডাকা অবরোধ, হরতালে সৃষ্ট নৈরাজ্য ও বিচ্ছিন্ন হামলার ঘটনার অবসান হতে পারে। পাশাপাশি পরস্পরবিরোধী অবস্থান থেকে সরে আসলে বিএনপির গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক কর্মসূচিতে সহযোগিতা দেয়ার কথা ভাবছে সরকার। 
মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, অবরোধের নামে যারা গাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও পেট্রোল বোমা মেরে মানুষ হত্যা করছে, এসব নাশকতাকারীদের আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে ঠা-া করে দেয়া হবে। তিনি কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, নাশকতাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। অবরোধ ও হরতাল দিয়ে দেশে নৈরাজ্য করছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে এই নাশকতাকারীদের আইনের আওতায় আনা হচ্ছে। তিনি বলেন, গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্ট অনুযায়ী আমরা জানতে পেরেছি, প্রথম টার্গেট হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার পরিকল্পনা করেছে নাশকতাকারীরা। প্রধানমন্ত্রীকে হত্যা করে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকে বাধাগ্রস্ত করতে চাচ্ছে জামায়াত-জঙ্গি সংগঠনের সদস্যরা। তবে এধরনের নাশকতাকারীদের মোকাবিলা করতে সরকার প্রস্তুত রয়েছে। 
খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেছেন, আগামী দশদিনের মধ্যে পালিয়েও বিএনপি পার পাবে না। তিনি বলেন, বিএনপি যে আন্দোলন করছে তার জন্য অচিরেই তাদেরকে তার খেসারত দিতে হবে। আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা জানান, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে বাসভবনে ফেরানোর কৌশল হিসেবে সভা-সমাবেশের অনুমতি দেয়ার চিন্তা-ভাবনা করছে সরকার। আজ রোববার বিশ্ব ইজতেমার পর যে কোনো সময়ে রাজধানীতে সভা-সমাবেশ করতে চাইলে শর্তসাপেক্ষ অনুমতি দেয়া হতেও পারে। নেতাদের সাথে আলাপকালে জানা যায়, বিএনপি সংলাপ চায়, কিন্তু সংলাপের জন্য রাজনৈতিক পরিবেশ সৃষ্টির বদলে তারা সন্ত্রাস, নৈরাজ্যের পথ বেছে নিয়েছে। আমাদের মনে হয়, তারা যদি সন্ত্রাস পরিহার করে তাহলে সমাবেশ করতে সরকার বাধা দেবে না। তবে দেশের শান্তিপ্রিয় জনগণ সন্ত্রাস, নৈরাজ্য, পেট্রোলবোমা কখনো সমর্থন করে না। গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে হলে সরকার ও বিরোধী দল উভয়কেই বিবেচনা করতে হবে। আর বিএনপি যদি মনে করে, এভাবে নৈরাজ্য সৃষ্টি করে সরকারকে বিপদে ফেলবে তাহলে তারা বোধহয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চিনতে ভুল করছেন। 
আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, বিএনপি অবরোধ তুলে নিলে, মানুষ হত্যা বন্ধ করলে, গণতান্ত্রিক পথে ফিরে এলে রাজনৈতিক দল হিসেবে সরকার সব ধরনের সহযোগিতা করবে। কিন্তু নাশকতা-সহিংসতা করলে কোনো ছাড় দেয়া হবে না। বিএনপি জামায়াতের প্ররোচণায় ৫ জানুয়ারি নির্বাচন বর্জন করে সংসদ থেকে ছিঁটকে পড়েছে। এখন ধ্বংসাত্মক কর্মকা- করে মানুষের ধিক্কার পাচ্ছে। 
আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এক অনুষ্ঠানে বলেন, বিএনপি শান্তিপূর্ণ সভা-সমাবেশ করতে চাইলে সরকার অনুমতি দেবে। বিএনপির সঙ্গে এখন কোনো সংলাপ হবে না। কারণ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের এখনো চার বছর বাকি। এখন সংলাপ করার মতো কোনো ইস্যু নেই। তিনি বলেন, বিএনপি মানুষ হত্যা করে ক্ষমতায় যেতে চাইছে, যে কারণে অবরোধ-হরতালের নামে ঘুমন্ত মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করছে। সন্ত্রাসী কায়দায় ক্ষমতায় যাওয়া যাবে না। ক্ষমতায় যেতে হলে নির্বাচনের মাধ্যমে যেতে হবে। এ জন্য বিএনপিকে অপেক্ষা করতে হবে। 
দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেন, বেশি দিন এই নাশকতা চলতে দেয়া যায় না। বিএনপির এ আন্দোলন শুধু ব্যর্থই হবে না, শোচনীয়ভাবে ব্যর্থ হবে। এক সপ্তাহের মধ্যে বিএনপির এ আন্দোলন আপনা-আপনি স্তিমিত হয়ে যাবে।

এ জাতীয় আরও খবর

সর্বদলীয় সরকার গঠনে বিরোধী দলকে আমন্ত্রণ শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রীর

টাইগার স্পিনারদের দাপট, ম্যাথিউসের সেঞ্চুরিতে শ্রীলঙ্কার স্বস্তি

বিজেপি নেতাকে কষে চড় মারলেন এনসিপি কর্মী

উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় মাকে লাথি, মেয়েকে ‘ধর্ষণচেষ্টা’!

ঢাকাবাসীকে ‘স্বস্তির খবর’ দিলো কোয়ালিটি ইনডেক্স

দেশের উত্তরাঞ্চলে ভারি বৃষ্টির সম্ভাবনা

ঘুরে ঘুরে ময়লা সংগ্রহ করেন মামুন, বিলান গাছ

ক্ষমতাচ্যুত হতে পারেন পুতিন : ইউক্রেন জেনারের

টিসিবিতে সোমবার থেকে সয়াবিন মিলবে ১১০ টাকায়

সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক হাসপাতালে

ভোটের এক মাস আগেই কুমিল্লায় বিজিবি মোতায়েন

অসুস্থ মঈন খান আইসিইউতে