শুক্রবার, ৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ২০শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইরাকে শতাধিক শ্রমিক অবরুদ্ধ নির্যাতনের অভিযোগ

imagesআন্তর্জাতিক ডেস্ক :ইরাকের নাজাফে আবু তোরাব হাউজিং কোম্পানির ১৮০ শ্রমিকের মধ্যে এখনো এক প্রকৌশলীসহ ১১৭ জনই কষ্টের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আটকেপড়া এসব শ্রমিকের স্বজনরা তাদের প্রিয় মানুষকে দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনতে সংবাদ সম্মেলন, মানববন্ধন করলেও সরকারের পক্ষ থেকে রিক্রুটিং এজেন্সি ‘ক্যারিয়ার ওভারসিসে’র বিরুদ্ধে গতকাল পর্যন্ত কোনো আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। প্রায় সাত মাস ধরে তারা ওই কোম্পানিতে অবরুদ্ধ হয়ে আছেন।  তবে যুদ্ধবিধ্বস্থ ইরাকে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল রেজা নুর রহমান খান নয়া দিগন্তকে বলেন, আবু তোরাব কোম্পানিতে কাজ না পাওয়া ১৮০ শ্রমিকের সাথে কোম্পানি মালিক, রিক্রুুটিং এজেন্সির মালিক রুহুল আমিন ও দুতাবাসের মধ্যে ত্রিপক্ষীয় বৈঠক হয়েছে। বৈঠকের সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রকৌশলী ফরিদসহ ৬৩ জনকে ১২ নভেম্বর নিয়ে আসা হয়েছে। তাদের ইউনাইটেড হ্যান্ড অব ইনভেস্টমেন্ট নামে একটি কোম্পানিতে কাজ দেয়া হয়। সেখানে তারা ভালো আছেন। ওই কোম্পানি কর্তৃপক্ষ বাকি ১১৭ জনকেও চাকরিতে নিতে চাচ্ছে। তবে ১১৭ শ্রমিকের মধ্যে কিছু শ্রমিক এ কথা বুঝতেই চাচ্ছেন না। মোটকথা তারা ইরাকে থাকবে না। তাদের মধ্যে প্রকৌশলী সিদ্দিকসহ বেশ কিছু কর্মী আছেন। ভালো কাজ দেয়ার পরও তারা থাকতে রাজি না হলে তাদের দেশে ফেরত পাঠানো ছাড়া বিকল্প নেই।  এক প্রশ্নের উত্তরে রাষ্ট্রদূত বলেন, ১৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত ঈমাম হোসেনের শাহদতবার্ষিকী উপলক্ষে এখানে বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হচ্ছে। তাই এ সময়ের পর বাকি শ্রমিকের সমস্যা নিয়ে আবার আমরা বৈঠকে করব। তবে প্রথম বৈঠকের আলোচনা থেকে বোঝা যাচ্ছে প্রকৌশলী সিদ্দিকসহ কিছু শ্রমিক ইরাকের কোথাও কাজ করতে চাইছেন না। তবে তাদের মধ্যে যারাই কাজ করতে চাইবে আমরা তাদের অ্যাডজাস্ট করব। রিক্রুটিং এজেন্সির মালিক রুহুল আমিন কাতারে শ্রমিকদের পাঠানোর কথা বলে কৌশলে ১৮০ শ্রমিককে ইরাকে পাঠিয়েছেন এমন অভিযোগের ব্যাপারে তিনি বলেন, এটা তো আমার জানার কথা নয়। এটা জানবে জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো। যেখান থেকে তাদের বহির্গমন কিয়ারেন্স হয়েছে। তবে এটা নিশ্চিত, শ্রমিকেরা কাজ করতে এসেছেন। তারা প্রত্যেকে গরিব। তারা জেনে হোক আর না জেনেই হোক এজেন্সিকে জমিজমা বিক্রি করে কম করে হলেও সাড়ে তিন লাখ টাকা দিয়েই এসেছেন। তাই আমি চাচ্ছি এ গরিব লোকগুলো যাতে কোনোভাবেই দেশে ফিরে গিয়ে বিপদে না পড়েন। সে জন্য তাদের দেশে না পাঠিয়ে এ দেশের সরকারের সাথে আলোচনা করে অন্য কোম্পানিতে চাকরি দেয়ার ব্যবস্থা করছি। কিন্তু শ্রমিকদের একটি অংশ আমার কথায়ও আশ্বস্ত হতে পারছেন না। তাদের জন্যই অন্যরা এখন সাফার করছেন। ইরাকে জনশক্তি রফতানি এখনো ঝুঁকিপূর্ণ কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাগদাদ ও এর দক্ষিণের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভালো। কোনো সমস্যা নেই। তবে উত্তরের অবস্থা ঝুঁকিপূর্ণ। সেইফ জোনে শ্রমিকেরা এলে তাদের কাজের অনুমতি দেয়া যেতে পারে বলে আমি আমার পাঠানো প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছি। বর্তমানে ইরাকে বেতন খারাপ নয়। ১১৭ শ্রমিক অবরুদ্ধ থাকার প্রসঙ্গে তিনি দাবি করেন, রিক্রুটিং এজেন্সির মালিক এ দেশে দুবার এসে তাদের সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করেছেন। শুধু তা-ই নয়, শ্রমিকদের অগ্রিম বেতনের টাকাও তাদের পরিবারের সদস্যদের হাতে এজেন্সির পক্ষ থেকে পরিশোধ করা হয়েছে। এ ছাড়াও থাকা, খাওয়া ও মোবাইলের সিম পর্যন্ত কিনে দেয়া হয়েছে বলে দূতাবাসের ফাস্ট সেক্রেটারিকে দেয়া চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে। শ্রমিকেরা বৈধভাবে যাওয়ার পরও কেন বিপদের মধ্যে পড়েছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, আসলে আবু তোরাব নামে যে কোম্পানিতে শ্রমিকেরা এসেছিলেন সেই কোম্পানিটি ভালো। তবে তাদের প্রজেক্টের বাজেট শেষ হয়ে যাওয়ার কারণে সমস্যা হয়েছে।  এর আগে অবরুদ্ধ শ্রমিকদের পরিবারের পক্ষ থেকে গত ৩ ডিসেম্বর জাতীয় প্রেস কাবে সংবাদ সম্মেলন করে অভিযোগ করা হয় রিক্রুটিং এজেন্সি ক্যারিয়ার ওভারসিসের মালিক অবৈধভাবে তাদের সন্তানদের ইরাকে পাঠিয়েছে। গত ২২ মে যাওয়ার পর থেকে অদ্যাবধি তারা সেখানেও কাজ পায়নি। না খেয়ে অবরুদ্ধ হয়ে আছে। কাটাচ্ছে মানবেতর জীবন। পরিবারের পক্ষ থেকে তখন একটাই দাবি করা হয় তাদের প্রিয় মানুষদের দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনা হোক।  এ ব্যাপারে রিক্রুটিং এজেন্সি ক্যারিয়ার ওভারসিসের মালিক রুহুল আমিন নয়া দিগন্তকে বলেন, আমি সরকারি নিয়মের বাইরে একটি শ্রমিককেও ইরাকে পাঠাইনি। তারপরও কুচক্রী একটি মহল আমাকে ও আমার প্রতিষ্ঠানকে হেয়প্রতিপন্ন করতে নানা মিথ্যা ও ভিত্তিহীন খবর প্রচার করে যাচ্ছে। এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি দাবি করেন, শ্রমিকেরা সেখানে যাওয়ার পর সমস্যায় পড়েছে ঠিকই, তবে আমাদের প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে তাদের যাতে কষ্ট না হয় সেই টাকা দেয়ার পাশাপাশি একই সাথে তাদের তিন মাসের বেতন পরিবারের কাছে দেয়া হয়েছে। তারপরও ‘রাইটস যশোর’ নামে একটি এনজিও বিষয়টি ভিন্নভাবে প্রবাহিত করতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আমরা তাদের সার্বিক কর্মকাণ্ডের মোবাইল কথোপকথনের রেকর্ড একটি গোয়েন্দা সংস্থাকে দিয়েছি।  গতকাল শুক্রবার রাতে রাইটস যশোর-এর প্রধান বিনয় কৃষ্ণ মল্লিক নয়া দিগন্তকে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, যারা ইরাকে গেছেন তাদের মধ্যে থেকে শুনেছি কিছু শ্রমিককে কাজ দেয়া হয়েছে। বাকি ১১৭ জনকে এখনো ওই অবস্থায় ফেলে রেখেছে। কাজ দেয়নি। তাদের ওপর মেন্টাল টর্চার চলছে। তারপরও রিক্রুটিং এজেন্সি ক্যারিয়ার ওভারসিসের মালিক ও রাষ্ট্রদূত ওখানে বসে যা বলছেন সবাই তাই শুনছেন। আমি আর কিছু বলব না। যারা কষ্টের মধ্যে আছে তাদের সাথে কথা বলেন। তারা যেটা বলবে সেটাই আপনারা তুলে ধরেন। এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, এজেন্সি প্রত্যেকের কাছ থেকে সাড়ে তিন লাখ থেকে চার লাখ টাকা পর্যন্ত নিয়ে পাঠিয়েছে। তার চেয়ে বড় কথা হচ্ছে তাদের কাতারে পাঠানোর কথা বলে ইরাকে নিয়ে গেছে। এটাই সত্য কথা।