সোমবার, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তাঁদের অন্য রকম চ্যালেঞ্জ

f48c24869b37d0d5dce95f4a48ced784-8.1ক্রীড়া ডেস্ক :শামসুর রহমানের ভীষণই আফসোস। ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে নিজের ৯ বছরের ‘ক্যারিয়ারে’ এই প্রথম খেলতে পারছেন না সুপার লিগে। অথচ এবারই সেটা প্রয়োজন ছিল বেশি। বিশ্বকাপের দলে সুযোগ পাওয়ার দারুণ এক মঞ্চ যে হয়ে দাঁড়িয়েছে এই লিগ। কিন্তু সুপার লিগে তিনি খেলবেন কী করে? শামসুরের এবারের দল কলাবাগান ক্রীড়া চক্র তো সেরা ছয়েই উঠতে পারেনি!

২০১৫ বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশ দল সর্বশেষ খেলল জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। জিম্বাবুয়েকে টেস্ট এবং ওয়ানডেতে ধবলধোলাইয়ের এই সিরিজে অনেকেই সামর্থ্যের প্রমাণ দিয়েছেন। এমনকি দলে আসা নতুন মুখগুলোও পারফরম্যান্স দিয়ে বিশ্বকাপের দলে সুযোগ পাওয়ার দাবি জানিয়েছে এই সিরিজে। কিন্তু বিশ্বকাপের আগে আর কোনো আন্তর্জাতিক সিরিজ না থাকলেও ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ তো চলছে! ১৫ জনের দলের অন্তত দু-একটা স্থান নির্ধারণে এই লিগের পারফরম্যান্সও মানদণ্ড হয়ে উঠতে পারে দল নির্বাচনী সভায়।

১৫ জনের দলে টপ অর্ডারের অতিরিক্ত ব্যাটসম্যানটির কথাই ধরুন। এখন পর্যন্ত এই জায়গার দাবিদার ইমরুল কায়েস, শামসুর রহমান দুজনই। তিন নম্বরে মুমিনুল হকই হয়তো প্রথম পছন্দ হবেন। তবে এমনও একটা ধারণা আছে যে জাতীয় দলের কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে শামসুর-ইমরুলকেও বলে রেখেছেন তিন নম্বরের জন্য যোগ্যতা প্রমাণ করতে, যাতে টপ অর্ডারে বিকল্প ভাবা যায় তাঁদের। শামসুর তাই কলাবাগানের হয়ে এখন পর্যন্ত খেলা ১০ ম্যাচের ৯টিতেই তিন নম্বরে ব্যাট করেছেন। ৩৯২ রান করে লিগে সর্বোচ্চ রানসংগ্রাহক তালিকায় চারে আছেন তিনি। কাল আফসোস করছিলেন, ‘আমার দুর্ভাগ্য সুপার লিগে খেলতে পারব না। সুপার লিগে খেলতে পারলে হয়তো আরও ভালো কিছু হতো। ৫০০ রান করতে পারতাম। আর মাত্র ১০৮ রান দরকার ৫০০ রানের জন্য।’

২০১৪ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেললেও এখন পর্যন্ত ৫০ ওভারের আসল বিশ্বকাপে খেলা হয়নি। এবার সেটিতেও খেলার স্বপ্ন শামসুরের। প্রিমিয়ার লিগটাকে সে জন্যই নিয়েছেন চ্যালেঞ্জ হিসেবে, ‘জিম্বাবুয়ে সিরিজে খারাপ খেলে বাদ পড়েছি। এখন ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো করে বিশ্বকাপের দলে ফিরতে চাই।’ স্বপ্ন পূরণের জন্য অবশ্য ইমরুল কায়েসের সঙ্গে একটা অলিখিত লড়াই জিততে হবে তাঁকে। যদিও ইমরুল-শামসুরের কেউই বিষয়টাকে সেভাবে নিচ্ছেন না। ‘পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে সবাই চাইবে ভালো খেলে দলে থাকতে, এটাই স্বাভাবিক। অন্য কিছু নিয়ে না ভেবে আমি আমার পরিকল্পনাটাই বাস্তবায়ন করতে চাই। সামনে বিশ্বকাপ এবং বিশ্বকাপের পরও আরও অনেক সিরিজ আছে। আমি সবকিছুর জন্যই নিজেকে প্রস্তুত করতে চাই’—বলছিলেন শামসুর। ইমরুলের কাছেও ব্যাপারটাকে কেবল বাড়তি চাপ নেওয়াই মনে হয়, ‘প্রতিটা খেলোয়াড়ই চায় ভালো খেলে নির্বাচকদের দৃষ্টি কাড়তে। এখন এটা নিয়ে ভাবতে গেলে নিজের ওপর চাপ নেওয়া হবে। এর চেয়ে ভালো খেলার চেষ্টা করে যাওয়াই উচিত বলে মনে করি।’

জিম্বাবুয়ে সিরিজে ব্যস্ত থাকায় প্রিমিয়ার লিগে এখন পর্যন্ত মাত্র তিনটি ম্যাচ খেলতে পেরেছেন ইমরুল। তিন ম্যাচে ১২০ রান, ফিফটি একটা। এক ম্যাচে ওপেনিংয়ে নামলেও বাকি দুটিতে খেলেছেন তিন নম্বরে। লিগের পরের ম্যাচগুলোয়ও তিনেই ব্যাটিং করবেন ভিক্টোরিয়ার ইমরুল, ‘বিশ্বকাপে খেললে হয়তো আমাকে তিনেই ব্যাট করতে হবে। সে জন্য লিগের বাকি ম্যাচগুলোয় তিনেই ব্যাট করব।’

ইমরুল-শামসুরের লড়াইয়ে কে জেতে, সেটা সময় বলবে। তবে নাসির হোসেনের সঙ্গে ব্যাটিং অর্ডারের ছয়-সাত নম্বরের লড়াইয়ে অনেকটাই এগিয়ে জাতীয় দলে নবাগত সাব্বির রহমান। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে সুযোগ পেয়ে সামর্থ্যের প্রমাণ দিয়েছেন। প্রিমিয়ার লিগে কলাবাগান ক্রিকেট একাডেমির হয়ে ৫ ম্যাচে এখন পর্যন্ত ৪৫ গড়ে রান করেছেন ২২৫, ফিফটি দুটি। প্রিমিয়ার লিগের স্কোরকার্ডে অবশ্য খুব পিছিয়ে নেই নাসিরও। আবাহনীর হয়ে ৯ ম্যাচ খেলে সমানসংখ্যক ফিফটিসহ ২৬৮ রান, গড় ৪৪.৬৭।

তবে পরিসংখ্যানই সব নয়। সাব্বিরের পক্ষে কথা বলছে তাঁর ধারাবাহিকতা। জিম্বাবুয়ে সিরিজের ফর্ম ধরে রেখে লিগের সর্বশেষ তিন ম্যাচে করেছেন ৩৩, ৭৩ ও ৮৩। কাল কণ্ঠেও বাজল আত্মবিশ্বাসী সুর, ‘জিম্বাবুয়ে সিরিজে ভালো খেলার পর আমার মনে বিশ্বাস জন্মেছে, আমি হয়তো বিশ্বকাপের ১৫ জনের দলে সুযোগ পাব। তবে সে জন্য লিগে ভালো খেলাটা গুরুত্বপূর্ণ।’ বাকি ম্যাচগুলোয় তাহলে নিশ্চয়ই আরও ভালো কিছু করার লক্ষ্য ঠিক করেছেন। ভুল ভাঙালেন সাব্বির, ‘সে রকম কোনো লক্ষ্য নেই। লক্ষ্য ঠিক করে খেললে আমি কখনোই তা পূরণ করতে পারি না। এমনি এমনি খেললেই বরং ভালো হয়।’

সাব্বিরের সময়টাই এমন যাচ্ছে যে, সবকিছুতেই দেখছেন আত্মবিশ্বাসের প্রতিফলন। অথচ কদিন আগেও জাতীয় দলে অপরিহার্য থাকা নাসিরের কণ্ঠ কেমন মলিন, ‘বিশ্বকাপে খেলার স্বপ্ন সবারই থাকে। আমারও আছে। তবে সেটি নিয়ে এখন ভাবছি না। আমার কাজ ভালো খেলার চেষ্টা করা। আমি সেটাই করে যাচ্ছি।’

বিশ্বকাপ সামনে রেখে প্রিমিয়ার লিগের চ্যালেঞ্জে কে কতটা সফল হলেন, তা জানা যাবে ৭ জানুয়ারির আগেই। ২০১৫ বিশ্বকাপের জন্য ১৫ জনের চূড়ান্ত দল ঘোষণা করার ওটাই যে শেষ তারিখ।