সোমবার, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সৌদি প্রবাসে নিহত রফিকুলের পরিবারে কান্না

shok ashআমিরজাদা চৌধুরী : সৌদি আরবে গুলিতে নিহত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জের খোলাপাড়া গ্রামের  রফিকুল ইসলামের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম। এ গ্রামের তাজুল ইসলামের ছেলে রফিকুল ইসলাম গত রোববার সৌদি আরবের আল কাসিমে গুলিতে নিহত হন। তার পরিবারের লোকজন জানিয়েছেন-নামাজ পড়ার সময় সেজদারত অবস্থায় তাকে তিনটি গুলি করা হয়। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান রফিকুল। নিহত রফিকুলের বড় ভাই কামাল উদ্দিন জানান,সৌদিতে মালিকের ভাগ্নে গুলি করে তার  ভাইকে হত্যা করেছে। কি কারনে তাকে খুন করা হয়েছে তা এখনো পরিস্কার করে জানতে পারেননি পরিবারের সদস্যরা। তবে কামাল জানান-মালিকের ভাগ্নে তার ভাইকে নানা কারনে প্রায়ই উত্যক্ত করতো। তিন ভাইয়ের মধ্যে রফিকুল ছিলেন মেঝ। রফিকুল আর সবার ছোট ইব্রাহিম মিয়া সৌদি প্রবাসী ছিলেন । ঘটনার পরপরই ইব্রাহিম ফোন করে রফিকুলকে খুন করা হয়েছে বলে বাড়িতে খবর দেন। রফিকুল সেখানে গাড়ি চালানোর পাশাপাশি একটি দোকান পরিচালনা করতেন। এছাড়াও একটি মসজিদে মোয়াজ্জিনের দায়িত্ব পালন করতেন। জানা গেছে,সৌদি পুলিশ রফিকুলের হত্যাকারীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে। আগামী জানুয়ারী মাসে রফিকুলের দেশে ফেরার কথা ছিলো। ইচ্ছে ছিলো দেশে এসে বড় ছেলেকে স্কুলে ভর্তি করানোর। রফিকুল রাহাত ও রিসাত নামে ২ পুত্র সন্তানের জনক। ঘটনার খবর পেয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন রফিকুলের বৃদ্ধ বাবা-মা ও স্ত্রী। রফিকুলের স্ত্রী হেলেনা আক্তার (২৮) বার বার মূর্চ্ছা যাচ্ছেন।তিনি বলেন তার সঙ্গে সর্বশেষ ফোনালাপে রফিকুল বলেন তার সেখানে ভালো লাগেনা। নামাজ পড়ে আমি যেন তার জন্যে দোয়া করি। সেসময় দুই ছেলের সঙ্গেও কথা বলেন। ছেলের স্কুলে ভর্তির বিষয়েও কথা বলেন।   
রফিকুল প্রায় ছয় মাস আগে সর্বশেষ দেশে এসেছিলেন। ১৭ বছর আগে সৌদি আরবে যান তিনি। নিহত রফিকুলের লাশ যত দ্রুত সম্ভব দেশে আনার ব্যবস্থা করার দাবী জানিয়েছেন  বড় ভাই কামাল উদ্দিন ।