সোমবার, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দাম্পত্য অক্ষমতা ঢাকতেই খুন করা হয় এমিকে!

92947_1-4ডেস্ক রির্পোট :বিয়ের পর দেড় মাস পেরিয়ে গেলেও স্ত্রী এমিকে দাম্পত্য সুখ দিতে পারেননি বিদেশ ফেরত স্বামী হারুনুর রশীদ। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মনোমালিন্য হতো। নিজের শারীরিক অক্ষমতার কথা লোকজন জেনে যাওয়ার ভয়ে স্ত্রীকে ইস্ত্রি দিয়ে মাথা থেঁতলে খুন করেন হারুনুর রশীদ। খুনের পর লাশ পাহারা দিয়ে রাখেন দুই ঘণ্টা। ৯ ডিসেম্বর মঙ্গলবার ভোরে নগরের হালিশহর বড়পুল নতুন পাড়া এলাকায় এই হত্যাকাণ্ডটি ঘটে। ময়নাতদন্ত শেষে মঙ্গলবার রাতে এমির লাশ তার গ্রামের বাড়ি সীতাকুণ্ড উপজেলার সলিমপুর পাক্কারপুল এলাকায় পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। পুলিশ ওই দিনই ঘাতক স্বামী হারুনকে গ্রেফতার করে। তিনি পুলিশের কাছে হত্যাকাণ্ডের বর্ণনা দিয়েছেন।
 
এমির দাম্পত্যজীবন : সীতাকুণ্ড উপজেলার সলিমপুর পাক্কারপুল এলাকার মোহাম্মদ ইউনুছের মেয়ে এমির সাথে হারুনুর রশীদের বিয়ে হয় ২৪ অক্টোবর। এমির বাবা ডেকোরেশন ব্যবসায়ী। তিন বোন এক ভাইয়ের মধ্যে এমি সবার ছোট। দশম শ্রেণীতে পড়ালেখার সময় তার বিয়ে হয়। শ্বশুর আবুল কালামের তিন ছেলে-চার মেয়ে। তিন ভাইয়ের মধ্যে হারুন সবার ছোট। বাবা-মাকে নিয়ে তার সংসার। দেড় মাস আগে বিয়ে হলেও স্বামীর শারীরিক সমতা না থাকায় মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন এমি। তবে বিষয়টি কখনো তার মা-বাবাকে জানাননি। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে সবসময় মনোমালিন্য হতো।
 
যেভাবে খুন : হারুন এমিকে খুন করার রোমহর্ষক বর্ণনা দেন পুলিশের কাছে। তিনি জানান, স্ত্রীকে খুন করার কোনো পরিকল্পনা তার ছিল না। রাতভর জেগে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন তিনি। সকাল সাড়ে ৬টায় হঠাৎ এমিকে খুন করার চিন্তা আসে তার মাথায়। হারুন ভাবতে থাকেন তার অক্ষমতার কথা যদি এমি কাউকে ফাঁস করে দেয় তাহলে সর্বনাশ। এ দুশ্চিন্তা থেকে হাতের কাছে থাকা ইস্ত্রি দিয়ে এমিকে খুন করেন তিনি। খুন হওয়ার পর এমির নিথর দেহ উপুড় অবস্থায় পড়ে থাকে বিছানায়। এক পাশে বসে থাকেন হারুন। এভাবে কেটে যায় প্রায় দুই ঘণ্টা। সকাল ৮টার দিকে ঘুম থেকে না ওঠায় এমিকে ডাকতে যান শ্বশুর আবুল কালাম। এ সময় পুত্রবধূর রক্তাক্ত লাশ দেখে চিৎকার দিলে খুনের ঘটনা প্রকাশ পায়। এরপর বিষয়টি পুলিশকে জানানো হয়।
 
এমির মামা আনোয়ার হোসেন নয়া দিগন্তকে জানান, মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে হারুনের স্ট্রোক করেছে বলে তার ছোট বোন আমাদেরকে ফোন করে জানান। এ খবর পেয়ে শ্বশুর বাড়িতে গিয়ে দেখি বিছানায় এমির রক্তাক্ত দেহ পড়ে আছে। এক পাশে বসে আছে ঘাতক হারুন।
 
এমির পরিবারের অভিযোগ : এমির পরিবারের লোকজন বলছেন, খুন হয়ে যাওয়ায় এখন এসব কথা বলছেন তারা। মূলত যৌতুকের কারণে এই খুন। ঘাতক হারুনুর রশিদ, তার বাবা আবুল কালাম (৮৩) ও মা আঞ্জুমান আরা বেগমকে (৭০) আটক করে পুলিশ। এ ঘটনায় হত্যা মামলা করেছেন নিহত এমির বাবা মো: ইউনুচ। এতে হারুনুর রশিদ ও তার বাবা-মাসহ ছয়জনকে আসামি করা হয়েছে।
 
এমির বাবা ইউনুচ কেঁদে কেঁদে বলেন, ‘বড় কষ্টের সংসার আমার। সুখের আশায় মেয়েকে বিয়ে দিয়েছিলাম। আমার প্রাণ কেড়ে নিয়েছে পাষণ্ড হারুন। যৌতুকের জন্য নির্মমভাবে এমিকে হত্যা করেছে সে। আমি তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’
 
ওসির বক্তব্য : হালিশহর থানার ওসি সৈয়দ আবু জাফর মো: শাহজাহান কবীর বলেন, ‘পুলিশের কাছে স্ত্রী খুনের দায় স্বীকার করেছেন ঘাতক হারুন। তিনি স্বেচ্ছায় আদালতে জবানবন্দী দিলে কোনো অসুবিধা নেই।