সোমবার, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইসির প্রস্তুতি না থাকলেও ডিসিসি নির্বাচনে অনড় সরকার!

Dhaka city corডেস্ক রির্পোট : ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন করার জন্য কমিশনের প্রস্ততি বিবেচনা না করেই ডিসিসি নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। কমিশন কাজ করছে। তবে এখনও দুই ডিসিসি নির্বাচন করার জন্য প্রস্তুত নয় নির্বাচন কমিশন। জানুয়ারি মাসেও তারা নির্বাচন করতে পারবে না।

নির্বাচন কমিশস সূত্র জানায়, দুই সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন ওয়ার্ডের সীমানা নির্ধারণের কাজ চলছে। ভোটার তালিকাও এখন সম্পন্ন হয়নি। হালনাগাদ করা হচ্ছে ভোটার তালিকা। সব মিলিয়ে দুই সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন করার জন্য এখনও নির্বাচন কমিশনের পুরোপুরি প্রস্তুতি নেই। তা না থাকলেও মন্ত্রী পরিষদের সোমবারের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে ২০১৫ সালের প্রথম প্রান্তিকে দুই সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। প্রথম প্রান্তিকের মধ্যে নির্বাচন করলে হাতে সময় আছে আরো সাড়ে তিন মাসের বেশি।

নির্বাচন কমিশন সূত্র জানায়, ঢাকা সিটি করপোরেশনের উত্তরে উত্তরার ১১ থেকে ১৪ নম্বর সেক্টরের সীমানা নির্ধারণ করবে।  দক্ষিণগাঁওয়ের সীমানা বাড়ানোর প্রক্রিয়া চলছে। দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ৫৫, ৫৬ ও ৫৭ নম্বর ওয়ার্ডের সীমানা নিয়ে জটিলতা রয়েছে। সেটাও নিরসন করা হচ্ছে।

সূত্র জানায়, আগামি সাড়ে তিনমাসের মধ্যে সীমানা নির্ধারণ সংক্রান্ত জটিলতা শেষ না হলে নির্বাচন করা কঠিন হয়ে যাবে। এছাড়াও ভোটার তালিকা হাল নাগাদ করে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার জন্যও সময়য়ের প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ। তিনি বলেছেন, ঢাকা সিটি করপোরেশন (ডিসিসি) নির্বাচন জানুয়ারিতে করা সম্ভব হবে না। এই নির্বাচন করার জন্য সময়ের  প্রয়োজন। জানুয়ারি মাসে দুই সিটি কর্পোরেশনে নির্বাচন হবে এমন খবর বিভিন্ন দিক থেকে ছড়িয়ে পড়ায় ও আলোচনায় আসার কারণে মঙ্গলবার নির্বাচন কমিশনের মিডিয়া সেন্টারে প্রধান নির্বাচন কমিশনার সিটি করপোরেশনের ব্যাপারে তার কমিশনের বর্তমান অবস্থান তুলে ধরেন। জানুয়ারিতে কমিশনের পক্ষে নির্বাচন করা সম্ভব কিনা এমন কথা কেউ কেউ তার কাছে জানতে চেয়েছেন। এতে তিনি কিছুটা বিস্মিত হয়েছেন। আর এটাও পাল্টা প্রশ্ন করেছেন জানুয়ারির মধ্যে নির্বাচন কেন করবো? সময় দিতে হবে। সীমানা নির্ধারণ, ভোটার তালিকা মুদ্রণ ও তফসিল ঘোষণার জন্য সময় লাগবে। আমাদের  অনেক আগে থেকেই প্রস্তুতি রয়েছে। তা হলেও কিছু জটিলতা কাটানো সম্ভব হয়নি। দুই সিটি করপোরেশন উত্তর ও দক্ষিণে সীমানা সংক্রান্ত জটিলতা রয়েছে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় দ্রুত সীমানা পুননির্ধারণ করার জন্য কমিশনের কাছে অনুরোধ করতে পারে। সেটা হলে ও অন্য যে সব ছোট ছোট সমস্যা রয়েছে সেগুলো কাটিয়ে উঠতে পারলে দ্রুত নির্বাচন করতে চায় কমিশন। বর্তমানে ভোটার তালিকা হালনাগাদ করা হচ্ছে। এটা শেষ হয়নি। এখন নির্বাচন করলে পুরান ভোটার তালিকা দিয়ে  করতে হবে। সেটা করলে ৫ লাখ নতুন ভোটার ভোট দিতে পারবে না।

সূত্র জানায়, সরকার মার্চ মাসের মধ্যে নির্বাচন করার জন্য সময় ঠিক করলেও কমিশন বিভিন্ন দিক বিবেচনা করছে। এরমধ্যে পাবলিক পরীক্ষার বিষয়টি রয়েছে। পাবলিক পরীক্ষা নির্বাচনের সময় হবে না এমনটি নিশ্চিত করার পরই তফসিল দেওয়া হবে। কমিশন কখনো পরীক্ষা চলাকালে নির্বাচন করে না।

amadershomoys.com