শুক্রবার, ৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ২০শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক কমিটি নিয়ে চলছে তোড়জোড়

Awamileg logoনিজস্ব প্রতিবেদক : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হাজী মো. ছফিউল্লাহ মিয়ার পদত্যাগ পত্র ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা  গ্রহন করার পর থেকে গত ৮ মাস ধরে চলছে আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক কমিটি নিয়ে তোড়জোড়। নতুন কমিটিতে  স্থান নিতে জেলা ও কেন্দ্র  পর্যায়ে চলছে উপজেলা নেতাদের চলছে জোর লবিং। আহবায়ক কমিটিতে থাকার জন্য যাদের যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন পদত্যাগ কারি উপজেলা আওয়ামীলীগের  সভাপতি হাজী মো.ছফিউল্লাহ মিয়া,বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মো. হানিফ মুন্সি, সাবেক সভাপতি হাজী ফিরোজ মিয়া, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবু নাছের আহমেদ, সাবেক  উপজেলা  চেয়ারম্যান মো.আনিছুর রহমান। তবে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ মো. হানিফ মুন্সি ছাড়া বাকি নেতাদের  বিরুদ্ধে রয়েছে নানা অভিযোগ। অধিকাংশ তৃর্ণমূল নেতাকর্মীরা মনে করছে যারা দুর্দিনে দলের সাথে ছিল তাদের যেন আহবায়ক কমিটিতে রাখা হয়।

জানাযায় জেলা আওয়ামীলীগের একটি সূত্রে  জানা যায় জেলা আওয়ামীলীগ আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি  হাজী  মো.ছফিউল্লাহ মিয়ার পদত্যাগ পত্র  গ্রহন করার ৮ মাস ধরে চলছে  আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক কমিটি নিয়ে তোড়জোড় । তবে আহবায়ক কমিটিতে দলীয় পদের জন্য যারা ঘুরছেন তাদের মধ্যে অনেকে বিগত সংসদ ও উপজেলা নির্বাচনে দলীয় প্রাথীর বিরুদ্ধে সরাসরি অস্হান নিয়েছিলেন। তবে এখন আলোচনা পুরো উপজেলা জুড়ে আহবায়ক কমিটি নিয়ে। কে থাকছেন আহবায়ক কমিটিতে। বিগত ৫ বছর যারা পুরো উপজেলা কাপিঁয়েছেন। বর্তমান সরকারের ক্ষমতার স্বাদ ভোগ করতে গিয়ে অনেকেই সংবাদপত্রের শিরোনাম ও হয়েছেন। আর সেই সব প্রভাবশালি নেতারা  বিগত সংসদ ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে  দলীয় প্রার্থীর পক্ষে সরাসরি  মাঠে নামেনি। এমনকি বিরোধীতা করারও অভিযোগ রয়েছে। সেইসব নেতারা আহবায়ক কমিটিতে থাকার জন্য জেলা ও কেন্দ্র পর্যায়ে জোর লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীও পরাজয়ের কারণ বের করার জন্য  জেলা আওয়ামীলীগ থেকে একটি ৩ সদস্য একটি তদন্ত কমিটি করে ছিল। তদন্ত কমিটির কাজ আজও জানা যায়নি।

আহবায়ক কমিটি থাকার জন্য তদবীর চালিয়ে যাচ্ছেন বর্তমান উপজেলা আওয়ামীলীগের পদত্যাগকারি সভাপতি হাজী মো.ছফিউল্লাহ মিয়া। তিনি সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর আশুগঞ্জ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সকল উন্নয়ন কাজ তিনি একক ভাবে আধিপত্য বিস্তার করতে থাকেন। এ নিয়ে তিনি একাধিক বার সংবাদ পত্রের শিরোনাম হয়েছেন। আওয়ামীলীগের ক্ষমতার এত স্বাদ পেয়েও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে  দলীয় মনোনয়ন  না পেয়ে পদ থেকে পদত্যাগ করার জন্য লিখিত ভাবে জেলা আওয়ামীলীগ এর কাছে লিখিত আবেদন করেছেন। তবে আবেদনটি জেলা আওয়ামীলীগ গ্রহন করে। তিনি পদত্যাগের দোহাই দিয়ে তিনি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে কাজ করছেন। তার অনুসারি হিসাবে পরিচিত খ্যাত উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক মেয়ের জামাই শরিফুল ইসলাম মিলন,উপজেলা সেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ন আহবায়ক সালাউদ্দিন, লালপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মোরশেদ মাষ্টার ও সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমান ও বন্দর আওয়ামলীগের সভাপতি শফিকুল ইসলাম প্রকাশ্যে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্হান নিয়েছিলেন। তবে উপজেলা আওয়ামীলীগের পদত্যাগকারি  সভাপতি হাজী মো.ছফিউল্লাহ মিয়ার সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান দলের পদ ছিল না তাই দলীয় প্রার্থীর জন্য নির্বাচন করেনি।

আহবায়ক কমিটি থাকার জন্য লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে সাবেক  সভাপতি  হাজী ফিরোজ মিয়া। তিনি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয়  কাউন্সিল ভোটে নির্বাচিত না হতে পারলেও দলের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে মনোনয়ন জমা দেয়নি। তবে তিনি সরাসরি আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে মাঠে নামেনি এবং ভোটও কারো কাছে চাননি। সাবেক  সভাপতি হাজী ফিরোজ সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান আমি শারিরিক অসুস্থ কথা বলতে পারবনা। আহবায়ক কমিটিতে বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান মো.আনিছুর রহমান ও লবিং করে  যাচ্ছেন। দলীয় কাউন্সিল ভোটে  লজ্জাজনক  পরাজয় হলেও  আওয়ামীলীগের কাউন্সিল সম্মেলনে ভোটে বিজয়ী না হলে নির্বাচন করবেন না এবং যিনি মনোনয়ন পাবেন তার পক্ষে কাজ করবেন এমন ওয়াদা করার পরও তিনি এবার নির্বাচন করেছেন। তিনি ও দলের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে ছিলেন। তার জন্যই উপজেলা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী পরাজয় হয়েছে বলে নেতা কর্মিরা  ধারণা করছেন। তার সাথে মাঠে নেমে ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি রস্তুম আলী  সিকদার, সাবেক সহসভাপতি খুরশেদ মিয়া,  উপজেলা ছাত্রলীগের  সাবেক সভাপতি মতিউর রহমান সরকার ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ সুমন, শরিফপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শাফি চৌধুরি, শরিফপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ কবির আহাম্মেদ, উপজেলা যুবলীগের সদস্য আইয়ুব মেম্বার। সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আনিছুর রহমানে সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান আমি আশুগঞ্জের বাহিরে তবে এখন কথা বলতে পারবনা। আহবায়ক কমিটিতে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক আবু নাছের আহমেদ লবিং করে যাচ্ছেন। তার বিবুদ্ধে স্থানীয় নেতাকর্মিদের অভিযোগ তিনি  বিএনপির সমর্থীত প্রার্থী  আবু আসিফ আহমেদ এর ভাতিজা হওয়ায় তার পুরো গ্রুপ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে  বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে সরাসরি কাজ করে। তাদের  মধ্যে উপজেলা আওয়ামলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম ভুইয়া, সাবেক যুগ্ন সাধারন সম্পাদক হেবজুল বারি, ডা.মোবারক আলী চৌধুরি, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক হাজী ছায়দুর রহমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতা গফুর মিয়া, আবু রেজভী আহমেদ সেচ্ছাসেবকলীগের আহবায়ক শাহিন সিকদার ও উপজেলা সেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ন আহবায়ক সালাউদ্দিন সরাসরি প্রকাশ্যে বিরুদ্ধে অবস্হান নিয়েছিলেন দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে। এতে তৃর্নমূল নেতাকর্মীরা মনে করেন যারা অতীতে দলের সাথে ছিল তাদের যেন আহবায়ক কমিটিতে রাখা হয় কমিটিতে রাখা হয়। তাড়া আবু আসিফ উপজেলা চেয়ারম্যান’র পাশপাশি বর্তমানে সদ্য ঘোষিত উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি মনোনীত হয়েছেন। একই পরিবারে দুই দলের গুরুত্বর্পূণ পদ থাকলে আগামী দিনের রাজনীতিতে তার প্রভাব পড়বে।

এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মো.হানিফ মুন্সি বলেন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কারা দলীয় প্রার্থীর পক্ষে ছিল আর কারা বিরুদ্ধে ছিল তা আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামলীগের প্রতিটি নেতাকর্মী জানে। তাদের  নাম আপনারা সাংবাদিকরা ও জানেন। দল চাইলে আহবায়ক কমিটিতে থাকব।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আল মামাুন সরকার জানান বুধবার জেলা আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা রয়েছে। সভাতে আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামলীগের কমিটি নিয়ে আলোচনা হবে।
তৃর্নমূল নেতাকর্মীরা দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্হানকারিদের  আহবায়ক কমিটিতে না রাখার  জন্য বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার সরাসরি হস্তক্ষেপ কামনা করেন।