শনিবার, ১৩ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩০শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঘরোয়া ফুটবল শুরু করা নিয়ে নানা টালবাহানা

b9a93873215208b9d188d9dadd08b7b1-Untitled-20ক্রীড়া ডেস্ক :প্রতিবছর একই চিত্র। ঘরোয়া ফুটবল শুরু করা নিয়ে নানা টালবাহানা চলে। ক্লাবগুলোর নানা ওজর-আপত্তিতে সময়মতো মাঠে গড়ায় না ফুটবল। তবে সাম্প্রতিক বছরগুলোয় এবারই সবচেয়ে দেরিতে শুরু হবে ঘরোয়া ফুটবল। নতুন কোনো অজুহাত তৈরি না হলে খেলা শুরু হতে হতে ফেব্রুয়ারি!

ইউরোপে সাধারণত ঘরোয়া ফুটবল শুরু হয় আগস্ট মাসে। এশিয়ায় এমন নির্দিষ্ট সূচি হয়তো নেই, তবে বিভিন্ন দেশে আগস্ট-সেপ্টেম্বরের দিকে খেলা শুরু হয়ে যায়। ইউরোপ বা এশিয়ার বড় দেশগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের তুলনা টানা বাড়াবাড়ি। তার পরও আগস্ট-সেপ্টেম্বরে না হোক, নভেম্বর-ডিসেম্বরের দিকে এত দিন ঘরোয়া ফুটবল শুরু হয়ে যেত।

কিন্তু এবার দৃশ্যপট ভিন্ন। কথা ছিল ১৯ ডিসেম্বর ফেডারেশন কাপ দিয়ে খেলা মাঠে গড়াবে। এমন অবস্থায় লিগ কমিটি সভায় বসে খেলা পিছিয়েছে ৪০ দিন! মানে সব ঠিক থাকলে ফেডারেশন কাপ শুরু ২৯ জানুয়ারি! তখন আবার নতুন অজুহাত যে তৈরি হবে না, সেই নিশ্চয়তা নেই।

এভাবে লম্বা সময় খেলা পেছানোর যৌক্তিক কারণ হিসেবে দাঁড় করানো হচ্ছে, আগামী ১৬-২৬ ডিসেম্বরে অনুষ্ঠেয় বঙ্গবন্ধু কাপ। ওই সময় ঘরোয়া ফুটবল এমনিতেই বন্ধ থাকবে। তা ছাড়া ১৮ ডিসেম্বর ঢাকায় জাপান অনূর্ধ্ব-২১ দলের সঙ্গে বাংলাদেশ জাতীয় দলের প্রীতি ম্যাচ আছে, এ জন্য ৮ ডিসেম্বর জাতীয় দলের ক্যাম্প শুরু। তখন খেলোয়াড় পাওয়া যাবে না বলছে ক্লাব।

যুক্তি যা-ই হোক, পৃথিবীর কোথাও বাংলাদেশের মতো জাতীয় দলের খেলা এলে সব বাক্সবন্দী হয়ে পড়ে না। বঙ্গবন্ধু কাপ তো আগামী মাসে, তার আগে ফেডারেশন কাপ অনায়াসে হয়ে যেতে পারত। কিন্তু বেশির ভাগ ক্লাবেরই ঘর গোছাতে না-পারা, প্রস্তুতির অভাব খেলা শুরুর পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। কোনো কোনো বড় দল চলছে কচ্ছপগতিতে। এক মৌসুম আগে ট্রেবল জেতা শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্রের কথাই ধরা যাক। এ মৌসুমে দলটি তাদের কোচও এখনো ঠিক করতে পারেনি। ‘আচ্ছা, খেলব আর কী’—এই মানসিকতা নিয়েই যেন চলে ক্লাবগুলো।

জানা গেছে, আবাহনী, শেখ জামাল ও ফেনী সকারই খেলা ১৯ ডিসেম্বর শুরুর ব্যাপারে আপত্তি তোলেনি। কিন্তু মোহামেডান ও শেখ রাসেল খেলা পেছানোর পক্ষে জোরালো অবস্থান নেয়। খেলা পেছালে তাদের লাভ, প্রস্তুতিটা নেওয়া যাবে। কথা হচ্ছে, খেলা ১৯ ডিসেম্বর শুরু হবে এটা অনেক আগেই ঠিক করা ছিল। তাহলে সেই অনুযায়ী তারা প্রস্তুতি নেয়নি কেন?

এসব প্রশ্ন তুলে আসলে কোনো লাভ নেই। এ দেশে ক্লাব যা চায় তাই হয়ে আসছে। বাফুফে হলো চাবি দেওয়া পুতুল। যেভাবে ঘোরায় সেভাবেই ঘোরে। কোনো নীতিমালার বালাই নেই। ক্লাব এসে খেলা পেছানোর চাপ দিলেই ‘ওকে’, ‘ওকে’ বলে সব মেনে নেয় লিগ কমিটি। অবশ্য ক্লাবগুলোকে নিয়েই লিগ কমিটি, ক্লাব কর্মকর্তারা ক্লাবের স্বার্থই দেখেন, ফুটবলের নয়। যাহা বায়ান্ন, তাহাই তিপ্পান্ন!

এ বিষয়ে লিগ কমিটির সভাপতি সালাম মুর্শেদীর ভাষ্য, ‘বেশির ভাগ ক্লাবের প্রস্তুতির অভাবেই আমরা খেলা পিছিয়েছি, তা ছাড়া জাপান ম্যাচ, বঙ্গবন্ধু কাপ ইত্যাদি আছে।’ লিগ কমিটির সভায় উপস্থিত থাকা ব্রাদার্সের ম্যানেজার আমের খানের বক্তব্য বেশ চকমপ্রদ, ‘আবাহনী, শেখ জামাল, ফেনী খেলতে রাজি ছিল, বিজেএমসিও আপত্তি করেনি। এমনকি ব্রাদার্সও খেলতে চেয়েছে। কিন্তু অফিশিয়ালি বলা হয়েছে, “ক্লাব খেলতে রাজি নয়।” লিগ কমিটি শক্ত অবস্থান নিলে খেলা শুরু হতে পারত। কিন্তু ফেডারেশন তো ক্লাবের হাতে জিম্মি।’

সেই জিম্মি দশা থেকে মুক্তি পেয়ে ফেব্রুয়ারিতে ফেডারেশন কাপ শুরু হলেও ওই মাসেই শেখ রাসেলের এএফসি কাপে খেলা আছে। মার্চে ঢাকাতেই হবে এএফসি অনূর্ধ্ব-২৩ ফুটবল। সে সময় আরেক দফা খেলা বন্ধ হবে। এর বাইরে আরও কতবার যে খেলা বন্ধ হবে, তার কোনো হিসাবও হয়তো থাকবে না। এটা গা-সহা হয়ে গেছে। ঘরোয়া ফুটবল পড়ে গেছে পেছনের পাতায়!

এ জাতীয় আরও খবর

ক্যানসার আক্রান্ত অভিনেত্রীর পাশে ফারহান

যুক্তরাষ্ট্রে ঈদ উদযাপনে গোলাগুলি, আহত ৩

ফিলিস্তিন রাষ্ট্রকে স্বীকৃতি দিতে প্রস্তুত স্পেন

গোর-এ-শহীদ ময়দানে ৬ লাখ মুসল্লির ঈদের নামাজ আদায়

একদিনে শীর্ষস্থান হারালেন মুস্তাফিজ

মায়ের জমানো টাকা ও গাড়ি বেচে সিনেমা, হল না পেয়ে কাঁদলেন নায়ক

অপরাজনীতি যেন চিরতরে দূর হয়, প্রার্থনা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

পরিবারের মুখে হাসি ফোটাতে আড়ালেই থাকে তাদের কষ্ট

শুধু বিএনপি নয়, পুরো দেশ দুঃসময় পার করছে : মির্জা ফখরুল

ঈদের আনন্দ থেকে কেউ যেন বঞ্চিত না হয় : রাষ্ট্রপতি

রোজায় এক হাজার ইফতার পার্টি করেছে বিএনপি : প্রধানমন্ত্রী

মিরপুর চিড়িয়াখানায় হাতির আঘাতে কিশোরের মৃত্যু