বৃহস্পতিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মাঠ দখলের প্রস্তুতি আওয়ামী লীগের

91258_1-1

ডেস্ক রির্পোট :বিএনপি জোটের সরকারবিরোধী সম্ভাব্য আন্দোলন মোকাবেলার প্রস্তুতি নিচ্ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। সেই লক্ষ্যে চলছে দল গোছানোর কাজ। এরই অংশ হিসেবে ইতোমধ্যেই মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে পড়া বিভিন্ন জেলা, থানা, উপজেলা ও নগরসহ দলের তৃণমূল সম্মেলন সেরে ফেলা হয়েছে। এ মাসের মধ্যেই বাকি শাখাগুলোরও সম্মেলন শেষ করার মাধ্যমে ঝিমিয়ে পড়া নেতাকর্মীদের নতুন করে চাঙ্গা করার টার্গেট রয়েছে। তৃণমূল সম্মেলনের পর কেন্দ্রীয় কাউন্সিল আয়োজনেরও চিন্তাভাবনা রয়েছে দলের নীতিনির্ধারকদের। এ ছাড়া মিছিল, সভা, সমাবেশ ও সেমিনারসহ নানা কর্মসূচি অব্যাহত রাখা হবে। থাকবে সরকারবিরোধী যেকোনো কর্মসূচির পাল্টা কর্মসূচিও।  এ দিকে দল গোছানোর পাশাপাশি সরকারবিরোধী আন্দোলন দমনে প্রশাসনিক প্রস্তুতিও নিচ্ছে সরকার। এরই অংশ হিসেবে ইতোমধ্যেই সহিংসতা দমনের নামে সারা দেশে কয়েক দফা গণগ্রেফতার সেরে ফেলেছে প্রশাসন। বিরোধী নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত পুরনো মামলা সক্রিয় করার নির্দেশও দেয়া হয়েছে সরকারের তরফ থেকে। আন্দোলন চাঙ্গা হলে এসব মামলায় আবারো গ্রেফতার অভিযান শুরু হবে। মাঠে নামলে নতুন নতুন আরো মামলা দিয়ে কোণঠাসা করা হবে বিরোধী জোটের নেতাকর্মীদের। এভাবে দলীয় ও প্রশাসনিক পদক্ষেপের মাধ্যমে রাজপথ দখলে রাখার পরিকল্পনা রয়েছে ক্ষমতাসীনদের। সরকারি দলের দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র এসব তথ্য জানিয়েছে। তবে দলের চেয়ে পুলিশ ও প্রশাসননির্ভর হয়ে পড়ার কারণে চূড়ান্ত সফলতা নিয়ে যথেষ্ট শঙ্কাও রয়েছে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহল।  সূত্র জানায়, নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে শিগগিরই আন্দোলনে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। বিশেষ করে নতুন বছরের শুরু থেকে কঠোর আন্দোলনে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি-জামায়াত নেতৃত্বাধীন সরকারবিরোধী জোট। এতে আবারো রাজপথ উত্তপ্ত হওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। বিএনপি জোট নেতারা বলছেন, আন্দোলনে কোনো ধরনের বাধা দেয়ার চেষ্টা হলে পাল্টা আঘাত করা হবে। প্রয়োজনে হরতাল-অবরোধ, অসহযোগ ও অবস্থানের মতো কঠোর কর্মসূচিও ঘোষণা করা হতে পারে। বিএনপি জোটের আন্দোলনের এ হুমকির বিষয়টিকে খুব গুরুত্বের সাথে নিচ্ছেন ক্ষমতাসীন দলের নীতিনির্ধারকেরা। সে জন্য গত ২০ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ ও উপদেষ্টা পরিষদের যৌথসভা থেকে তৃণমূল সম্মেলনের তাগিদ দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ ব্যাপারে দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদকদের কঠোর হুঁশিয়ারি দেন তিনি। সর্বশেষ গত শুক্রবার অনুষ্ঠিত দলের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকেও সারা দেশে চলমান তৃণমূল সম্মেলনের খোঁজ খবর নেন তিনি। দলের মাঠপর্যায়ে গতি আনতে এ মাসের মধ্যেই এসব কাউন্সিল শেষ করতে কঠোর নির্দেশনা দেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।  কাউন্সিলের দায়িত্বে থাকা একজন সাংগঠনিক সম্পাদক জানান, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী পুরোদমে দল গোছানোর কাজ চলছে। ইতোমধ্যেই মেয়াদোত্তীর্ণ প্রায় ৪০ শতাংশ শাখায় সম্মেলন শেষ করা হয়েছে। এ মাসের মধ্যেই বাকি সম্মেলন শেষ করে তৃণমূলে নতুন নেতৃত্ব নিয়ে আমরা এগিয়ে যেতে চাই। শুধু তা-ই নয়, আগামী বছর আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের পরিকল্পনাও রয়েছে।  তিনি আরো জানান, বিএনপিকে কোনোভাবেইে মাঠ ছেড়ে দেয়া হবে না। নিয়মিত সভা-সমাবেশসহ নানা কর্মসূচি নিয়ে মাঠে থাকবে আওয়ামী লীগ। বিএনপি-জামায়াত জোটের সহিংস আন্দোলন ও সরকারের উন্নয়নমূলক বিভিন্ন কর্মকাণ্ড জনগণের কাছে তুলে ধরতে সেমিনারসহ সচেতনতামূলক নানা কর্মসূচি পালন করা হবে। সম্প্রতি বিদ্যুৎ সেক্টরে সফলতা নিয়ে দলের প্রচার বিভাগ থেকে একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। অন্যান্য সেক্টর নিয়ে ধারবাহিকভাবে এ সেমিনার অব্যাহত থাকবে। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে দেশব্যাপী বিএনপি-জামায়াত জোটের ‘সহিংস’ আন্দোলনের একটি ভিডিওচিত্র নির্মাণ করে দলের পক্ষ থেকে সম্প্রতি সারা দেশে মাঠ নেতাদের কাছে পাঠানো হয়েছে। এ সময় সারা দেশে ছড়িয়ে থাকা নেতাকর্মীদের সরকারবিরোধী আন্দোলন মোকাবেলার জন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়।  আওয়ামী লীগের নির্ভরযোগ্য একাধিক সূত্র জানায়, বিএনপি জোট যাতে কোনোভাবেই রাজপথ দখলে নিতে না পারে সে ব্যাপারে সজাগ রয়েছেন নীতিনির্ধারকেরা। বিশেষ করে গত ৫ জানুয়ারির পূর্ববর্তী অবস্থা বিশ্লেষণ করে এবার তৃণমূলকে বেশ গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। পাশাপাশি ঢাকায় যাতে কোনোভাবে আন্দোলন দানা বাঁধতে না পারে, সে জন্য বিভক্ত ডিসিসির দুই অংশের নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিষয়টিও নতুন করে বিবেচনায় নেয়া হয়েছে। সরকারবিরোধী সম্ভাব্য কঠোর আন্দোলনের সময় ডিসিসি নির্বাচনের হুজুগ তুলে সেই আন্দোলনকে বিভ্রান্ত করতেই এ কৌশল নেয়া হতে পারে।  সূত্র জানায়, আওয়ামী লীগ শুধু এককভাবে নয়, জোটগতভাবেও মাঠে থেকে সরকারবিরোধীদের মোকাবেলার চিন্তা করছে। দলের সর্বশেষ কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় একজন নেতা জোটের শরিক একটি দলের সমালোচনা করলে তা থামিয়ে দিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেন, ‘এসব কথা আর বলবেন না। তারা আমাদের পাশে না থাকলে ৫ জানুয়ারির নির্বাচন হতো না, দেশের পরিস্থিতি এত স্বাভাবিক থাকত না আর আমাদের নেত্রীকেও আমরা বাঁচাতে পারতাম না। তাই তাদের আমাদের সাথে রাখতে হবে।’ জানা গেছে, শিগিগরিই ১৪ দলের বৈঠক ডেকে জোটগতভাবে আন্দোলন মোকাবেলার ছক তৈরি করা হবে।  সরকারের নীতিনির্ধারকেরা জানিয়েছেন, নির্বাচনের আগের পরিস্থিতিতে দেশ ফিরে যাক মতাসীনরা তা কোনোভাবেই চায় না। সম্প্রতি দলের প্রভাবশালী প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী আবদুল লতিফ সিদ্দিকীকে কেন্দ্র করে বড় ধরনের অস্থিরতা তৈরির আগেই তা সামাল দিয়েছে সরকার। দলের অন্যতম উপদেষ্টা এইচ টি ইমামকে নিষ্ক্রিয় করে দিয়ে বিদেশে পাঠিয়ে অস্বস্তিকর পরিস্থিতিও কিছুটা কাটিয়ে উঠেছে তারা। ভবিষ্যতেও আন্দোলন করতে গিয়ে বিএনপি ও তার মিত্রদের সহিংস হয়ে উঠতে দেয়া হবে না। তাই বিএনপির প থেকে সরকারবিরোধী আন্দোলনের ঘোষণা আসার পরপরই সরকারের নীতিনির্ধারক মহল তৎপর হয়ে উঠেছে। ইতোমধ্যে তারা আইন মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, র‌্যাব, পুলিশসহ গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে একাধিক বৈঠক করেছেন। নির্বাচনের আগে বিএনপি-জামায়াত এবং তারও আগে হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলাগুলোর সর্বশেষ অবস্থার খোঁজখবরও নেয়া হচ্ছে। জানা গেছে, সরকারবিরোধী আন্দোলনের হুমকির পরই বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে থাকা মামলার গতি বেড়ে গেছে। কয়েক দফায় তাকে আদালতেও যেতে হয়েছে। এ ছাড়া গত কয়েক বছরে সারা দেশে বিরোধী নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে প্রায় ৯ হাজারের মতো মামলা করা হয়। নির্বাচনের আগে রাজনৈতিক আন্দোলনের ওপর ভিত্তি করে সাত শতাধিক মামলা হয়েছে। হেফাজতে ইসলামের বিরুদ্ধে এক শ’র কাছাকাছি মামলা রয়েছে। সব মিলিয়ে প্রায় দশ হাজার মামলার খড়গ রয়েছে বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীদের ওপর। এসব মামলার অর্ধেকের তদন্ত শেষে চার্জশিট প্রদান করা হয়েছে। এখন আন্দোলনের ঘোষণার পর বাকি মামলা তদন্তের জন্য পুলিশকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। জেলা-উপজেলায় পুলিশের মামলা তদন্তের এ মিশন মূলত বিরোধীদের শক্তি সঞ্চয়ে বাধা দেয়ারই কৌশল। একই সাথে যুক্ত হবে নতুন নতুন আরো অনেক মামলা।  এ দিকে আন্দোলনের নামে সব ধরনের সহিংসতা বা জ্বালাও-পোড়াও রোধে পুলিশ, র‌্যাব এবং সব ক’টি গোয়েন্দা সংস্থা ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে। পাশাপাশি তারা আগ্নেয়াস্ত্রসহ অন্যান্য সরঞ্জামও মজুদ করছে। বিরোধী নেতাকর্মীরা রাজপথে সহিংস হয়ে উঠলে প্রশাসনিকভাবে তা দমন করার নির্দেশ রয়েছে আইন-শৃঙ্খলা রাকারী বাহিনীর ওপর।  অন্য দিকে রাজধানীতে বিরোধী দল মোকাবেলায় ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগকে সক্রিয় করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। সেই লক্ষ্যে শিগগিরই মহানগর আওয়ামী লীগের নতুন কমিটির ঘোষণা আসতে পারে। নতুন নেতৃত্ব পেলে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ স্থবিরতা কাটিয়ে গতিশীল হবে বলে আশা করছেন নীতিনির্ধারকেরা।  বিএনপির আন্দোলনের হুমকির বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. নূহ উল আলম লেনিন বলেন, বিএনপি শুধু লাফালাফি করতে পারেÑ আন্দোলন করতে পারে না। তাদের আন্দোলন হচ্ছে খুনাখুনি আর বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে হত্যার টার্গেট। কিন্তু আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা বেঁচে থাকতে তা হতে দেয়া হবে না। তারা কোনো ধরনের অস্থিরতা সৃষ্টি করতে চাইলে প্রশাসনের পাশাপাশি আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরাও মাঠে থাকবে। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ এমপি বলেন, যেকোনো গণতান্ত্রিক এবং শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে তাদের বাধা নেই। তবে যদি কর্মসূচির নামে জ্বালাও-পোড়াও, ভাঙচুর করা হয় তাহলে আইনশৃঙ্খলা রাকারী বাহিনী তা দমন করবে।  দলের আরেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা: দীপু মনি এমপি বলেন, তাদের হুমকি-ধমকির কোনো অর্থ নেই। কারণ আন্দোলন মানুষ ছাড়া হয় না। কিন্তু তাদের আন্দোলনে মানুষের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। সে জন্য অতীতে তারা সফল হতে পারেনি, ভবিষ্যতেও পারবে না। আসলে তারা আন্দোলনের নামে সন্ত্রাসের মাধ্যমে দেশ এগিয়ে যাওয়ার নিরলস প্রচেষ্টাকে বাধাগ্রস্ত করতে চায়। তবে শান্ত এ দেশে নতুন করে অস্থিরতা তৈরির চেষ্টা করা হলে তাদের বিরুদ্ধে প্রচলিত আইনেই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

৮৭ হাজার টাকার মদ খান পরীমণি, পার্সেল না দেওয়ায় চালান তাণ্ডব

যুদ্ধ পরিস্থিতি মোকাবিলায় আগাম প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব ঢাকায় আসছেন শনিবার

পি কে হালদারের বিরুদ্ধে প্রথম চার্জশিট দিচ্ছে দুদক

কেমন ছিল জিম্মিদশার দিনগুলো, জানালেন জাহাজের ক্যাপ্টেন রশিদ

ইসরায়েলে ড্রোন হামলা হিজবুল্লাহর, ১৪ সেনাসদস্য আহত

হাথুরুকে নিয়ে ধোঁয়াশা নেই, ২১ এপ্রিল রাতে ফিরছেন ঢাকায়

উপজেলা নির্বাচন সরকারের আরেকটা ভাওতাবাজি : আমীর খসরু

গরমে গতি কমিয়ে ট্রেন চালানোর নির্দেশ

পশ্চিমবঙ্গে ৪৬ ডিগ্রিতে পৌঁছাবে তাপমাত্রা

গুলশানে চুলোচুলি করা সেই ৩ নারী গ্রেপ্তার

দায়িত্বশীল ও টেকসই সমুদ্র ব্যবস্থাপনার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর