বৃহস্পতিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অন্যরকম রেকর্ডধারী আফ্রিদী

afridiস্পোর্টস ডেস্ক : ক্রিকেটে পাকিস্তান যেমন আনপ্রিডেকটিবল হিসাবে পরিচিত। তেমনি এ শব্দটির সাথে গভীর সম্পর্ক আরেক আনপ্রিডেকটিবল শহীদ আফ্রিদীর সাথে।

আফ্রিদী ব্যাটিংয়ে ছন্দ পেলে যে কোনো খ্যাতনামা বলারকে নিশ্চিত তুলোধনু করে ছাড়বেন। কাউকে রেহাই দিবেন না তিনি। আবার কখনো এক ছয়েই তার ইনিংস শেষ।

যাইহোক এমন বেশিষ্ট্য নিয়েই তিনি নিজেকে তৈরী করেছেন অন্যরকম রেকর্ডধারী হিসাবে।

১৯৯৬ সালের অক্টোবরে তাঁর অভিষেক। জীবনের দ্বিতীয় ওয়ানডেতেই বিশ্বকে চমকে দিয়েছিলেন মাত্র ৩৭ বলে সেঞ্চুরি করে। ১৮ বছরের ক্যারিয়ারে খেলেছেন ৩৮৪টি ওয়ানডে। এর মধ্যে ব্যাট হাতে মাঠে নেমেছেন ৩৫৬টি ম্যাচে।

ছয়টি সেঞ্চুরি আর ৩৬টি হাফ সেঞ্চুরির মালিক এই আফ্রিদি এমন একটা রেকর্ড নিজের করে নিয়েছেন, যা কেবল তাঁকেই মানায়। শুনলে অবাক হতে হয়, আফ্রিদি এই ৩৫৬টি ইনিংসে এখন পর্যন্ত বল মোকাবিলায় ‘সেঞ্চুরি’ করতে পারেননি। মানে, এখন পর্যন্ত ওয়ানডে ক্যারিয়ারে কোনো ম্যাচেই তাঁর খেলা হয়নি ১০০টি বল।

১৯৯৮ সালে কানাডার টরন্টোয় ভারতের বিপক্ষে একটি ম্যাচে সর্বোচ্চ ৯৪ বল মোকাবিলা করে ১০৯ রানের একটি ইনিংস খেলেছিলেন তিনি। তাঁর ছয়টি সেঞ্চুরির প্রতিটিতেই রানসংখ্যার চেয়ে মোকাবিলা করা বলের সংখ্যা অনেক কম।

২০১০ সালে শ্রীলঙ্কার ডাম্বুলায় বাংলাদেশের বিপক্ষে তাঁর ক্যারিয়ার-সেরা ১২৪ রানের ইনিংসটি এসেছিল মাত্র ৭৫ বল মোকাবিলায়!
ছিয়ানব্বইয়ে ওয়ানডে অভিষেক হলেও আফ্রিদি প্রথম টেস্ট খেলেছিলেন ১৯৯৮ সালে।

২০১০ সালে আফ্রিদী নিজের উদ্যোগেই বিদায় জানান টেস্ট ক্রিকেটকে। এই পুরোটা সময়ই তাঁকে ‘টেস্ট ক্রিকেটের উপযোগী নয়’—এমন অভিধা কানে নিতে হয়েছে। ২৭ টেস্টের ক্যারিয়ারে ৪৮ ইনিংসে তাঁর ব্যাটিং-গড় একেবারেই মন্দ নয়। ৩৬.৫১ গড়কে যেকোনো বিচারেই অভিহিত করা যেতে পারে উন্নত-গড় হিসেবে।

পাঁচটি টেস্ট সেঞ্চুরিও নেই নেই করে পাওয়া হয়ে গেছে তাঁর। হাফ সেঞ্চুরি আটটি। টেস্ট ক্রিকেটে তিনি এক ইনিংসে সর্বোচ্চ বলের মুখোমুখি হয়েছেন ১৯১টি। ১৯৯৯ সালে চেন্নাইয়ে ভারতের বিপক্ষে তাঁর প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরির ইনিংসটি তিনি সম্পন্ন করেছিলেন ১৯১ বল মোকাবিলা করে। টেস্টে তাঁর দ্রুততম সেঞ্চুরিটি ২০০৬ সালে লাহোরে ওই ভারতের বিপক্ষেই। মাত্র ৮০ বল মোকাবিলা করে সেদিন আফ্রিদি খেলেছিলেন ১০৩ রানের ইনিংস।

একদিনের ক্রিকেটে তাঁর স্ট্রাইকরেট ১১৫.৪০। টেস্টে ৮৬.৯৭। ক্রিকেটের ক্ষুদ্রতম ফরম্যাট টি-টোয়েন্টিতে তা ১৪৩.৭৪। তবে টি-টোয়েণ্টিতে এখনো কোনো সেঞ্চুরির মালিক হতে পারেন নি তিনি। তবে রয়েছে ৪ ফিফটি। তবে এতে কোনো ম্যাচেই ৪০ বলের বেশি খেলতে পারেন নি তিনি।

টি-টোয়েণ্টির অন্যতম সেরা অধিনায়ক ও ভয়ঙ্কর বলে বিবেচিত আফ্রিদী ৭৫ টি ম্যাচ খেলেছেন। এখানে তার স্টাইকরেট ১৮.৮৮।
আগামি দিনে আফ্রিদি হয়তো এ ধরনের রেকর্ড গড়ার জন্যই মাঠে নামবেন।

এ জাতীয় আরও খবর

৮৭ হাজার টাকার মদ খান পরীমণি, পার্সেল না দেওয়ায় চালান তাণ্ডব

যুদ্ধ পরিস্থিতি মোকাবিলায় আগাম প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব ঢাকায় আসছেন শনিবার

পি কে হালদারের বিরুদ্ধে প্রথম চার্জশিট দিচ্ছে দুদক

কেমন ছিল জিম্মিদশার দিনগুলো, জানালেন জাহাজের ক্যাপ্টেন রশিদ

ইসরায়েলে ড্রোন হামলা হিজবুল্লাহর, ১৪ সেনাসদস্য আহত

হাথুরুকে নিয়ে ধোঁয়াশা নেই, ২১ এপ্রিল রাতে ফিরছেন ঢাকায়

উপজেলা নির্বাচন সরকারের আরেকটা ভাওতাবাজি : আমীর খসরু

গরমে গতি কমিয়ে ট্রেন চালানোর নির্দেশ

পশ্চিমবঙ্গে ৪৬ ডিগ্রিতে পৌঁছাবে তাপমাত্রা

গুলশানে চুলোচুলি করা সেই ৩ নারী গ্রেপ্তার

দায়িত্বশীল ও টেকসই সমুদ্র ব্যবস্থাপনার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর