বুধবার, ২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৯ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সরাইলে সংঘর্ষে আহত-২০, বসত ঘর ভাংচুর

sarail pic 1সরাইল প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে দুইদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে শিক্ষার্থীসহ আহত হয়েছে ২০ জন। হামলা চালিয়ে প্রতিপক্ষের তিনটি বসত ঘর ভাংচুর করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে উপজেলার চুন্টা গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ৬-৭ মাস আগে চুন্টা গ্রামের জিন্নত আলীর (৫৪) কাছ থেকে ৭৯ শতাংশ ফসলি জমি ক্রয় করেছিল একই গ্রামের মৃত সুলতান মিয়ার ছেলে গিয়াস উদ্দিন (৩৪)। তাদের লেনদেনও সম্পন্ন হয়েছে। জিন্নত আলী ৩০ শতাংশ জমি রেজিষ্ট্রি করে দিলেও বাকি ৪৯ শতাংশ রেজিষ্ট্রি হয়নি আদৌ। গত কিছু দিন ধরে রেজিষ্ট্রির জন্য জিন্নত আলীকে চাপ দিচ্ছিলেন গিয়াস। এ বিষয়টি নিস্পত্তির জন্য সকালে চুন্টা বাজারে ইউপি সদস্য আক্তার মিয়ার উপস্থিতিতে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে সালিস সভা বসে। সভায় বাক-বিতন্ডার এক পর্যায়ে জিন্নত আলী গিয়াস উদ্দিনকে মারধর করে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে গিয়াস উদ্দিনের লোকজন দৌড়ে বাজারে প্রবেশ করতে থাকে। এক সময় উভয় পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। চলে ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া। এ সময় গোটা বাজারে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। মূহুর্তের মধ্যে পাশের দুইটি কিন্ডার গার্টেন স্কুল ও বাজারের সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যায়। বিভিন্ন গোষ্ঠীর অংশ গ্রহনে সংঘর্ষটি এক সময় বিভিন্ন পাড়ায় ছড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষ চলাকালে দিনমজুর শুক্কুর আলী (৪০) ও তার দুই ভাইয়ের বসত ঘর ভাংচুর লুটপাট করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। এক ঘন্টা স্থায়ী সংঘর্ষে নজরুল ইসলাম (১২) ও জহিরুল ইসলাম (১০) নামের দুই শিক্ষার্থী সহ উভয় পক্ষের অন্তত: ২০ জন আহত হয়েছে। আহতদের স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও গন্যমান্য ব্যক্তি বর্গের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আসে।

পরে সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আলী আরশাদের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।