সোমবার, ২২শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৯ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তথ্য প্রযুক্তি আইনের অপব্যবহার : লালনের গান পোস্ট করায় কারাগারে দেবাশিষ!

news-image

D 2

বিশেষ প্রতিনিধি : মোশতাক আহমেদ সম্পাদিত ‘লালন ভেদের গোপন খবর’- বইয়ের ১৪১ নম্বর গানটি ফেসবুকে পোস্ট করার অপরাধে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার লালপুর গ্রামের এস.কে দাস উচ্চ বিদ্যালয়ের অতিথি শিক্ষক ও ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক দেবাশীষ দাস সোহেলকে গত মঙ্গলবার গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
তার বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক মামলা দিয়ে বলা হয়, দেবাশীষ ধর্মীয় উসকানি ও মহানবীকে (সা.) কটুক্তি করেছেন। এ ঘটনায় ওই গ্রামের কিছু দুর্বৃত্ত তার বাড়িঘর ও মন্দিরে হামলা-ভাংচুর চালিয়েছে।  
গত ৪ নভেম্বর এ ঘটনার পর থেকে কারাগারে আটক রয়েছেন দেবাশীষ। এরপর থেকে তার বাড়িতে পুলিশ প্রহরা বসানো হয়েছে।
এদিকে গত ৭ নভেম্বর শুক্রবার রাতে এ ঘটনারই জের ধরে স্থানীয় কিছু দুর্বৃত্ত একযুগে লালপুর গ্রামের টানপাড়া, দাসপাড়া এবং কান্দাপাড়ায় লোকনাথ মন্দির, কালীমন্দির, রামঠাকুরের মন্দির, দয়াময় মন্দির, অনুকুল ঠাকুর মন্দিরসহ পাঁচটি মন্দিরে হামলা চালায়। এ ঘটনার পর থেকে লালপুর গ্রামের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোকজনের মধ্যে চরম আতংক বিরাজ করছে। বাজারে যেতে পারছে না দেবাশীষের পরিবারের লোকজন।
সরেজমিন লালপুর গ্রামে গিয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ধর্মীয় উসকানি ও মহানবীকে (সা.) কটুক্তি নয়, দেবাশীষকে রাজনৈতিকভাবে ঘায়েল করতে ছাত্রলীগের কতিপয় সদস্য তাকে ফাঁসিয়ে দিয়েছে। তাকে রাজনৈতিকভাবে ঘায়েল করার অস্ত্র হিসেবে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনকে ব্যবহার করা হয়েছে।
দেবাশীষের বাবা গ্রামের মেম্বার প্রমোথ দাস বলেন, দেবাশীষের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা ঠিক নয়। তাকে ফাঁসিয়ে দেওয়া হয়েছে।
দেবাশীষের মামলার আইনজীবি অ্যাডভোকেট নাসির মিয়া বলেন, দেবাশীষ আদৌ এটা ফেসবুকে দিয়েছে কি না বা তাকে কেউ ট্যাগ করেছে কি না তা এখনও নিশ্চিত নয়। আর যদি দিয়েও থাকে তাহলে এটা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে দন্ডনীয় অপরাধ নয়। যেহেতু লালনের গানটি বাংলাদেশে নিষিদ্ধ নয়, সেহেতু এটা অবিকৃত অবস্থায় প্রচার করলে তথ্য প্রযুক্তি আইনে এটা অপরাধ নয়। আর যদি এতে ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাত আসে তাহলে সরকারেরই উচিত এটা নিষিদ্ধ করা।

A B
তিনি বলেন, ছাত্রলীগের কমিটি সংক্রান্ত বিরোধে স্থানীয় প্রতিপক্ষের কিছু নেতা কথিত ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ার ছুতোয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের মামলায় তাকে আসামি করেছে। শুধু তা-ই নয়, তাদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে জানালার কাঁচ ও মন্দির ভেঙ্গে ফেলা  হয়। তার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের অপব্যবহারের একটি দৃষ্টান্ত বলে মন্তব্য করেন তিনি।
এদিকে এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দেবাশীষ সাধক মহর্ষি মনমোহন দত্তের অনুসারি। তার বাড়ির নাম ‘দয়াময় শান্তি নীড়’ এবং নিজের নামের সাথে ‘দয়াময়’ যুক্ত রয়েছে। এলাকার মুরুব্বিসহ সকলেই তাকে সমীহ করে এবং ছাত্রলীগের নেতা হিসেবে এলাকায় তার বিশেষ গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। এ কারণেই রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়েছে তিনি।   
চরলালপুর এলাকার বাসিন্দা পাদুকা ব্যবসায়ি মাসুদ রানা বলেন, দেবাশিষ একেশ্বরবাদে বিশ্বাসী। তাকে এলাকার মানুষ ভাল ছেলে ও নিরীহ প্রকৃতির হিসেবেই চেনে ও জানে। কোন ধরণের উসকানির উদ্দেশ্যে সে এমন কাজ করেনি।
লালপুর বাজারের একাধিক ব্যবসায়ি বলেন, এলাকার কিছু টেটনা দেবাশিষকে ঘায়েল করতে অপপ্রচার চালিয়ে সাধারণ মানুষকে ক্ষিপ্ত করেছে। কোন ধর্মই তো কারো বাড়িতে এ্যাটাক করাকে সাপোর্ট করে না। তাহলে কেন দেবাশীষের বাড়িতে হামলা করা হলো। আর ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাতের কথা বলে যারা দেবাশীষের বাড়িতে হামলা চালিয়েছে তাদের বেশিরভাগই নামাজ পড়ে না।  
জানা যায়, মঙ্গলবার বিকেলে লালপুর গ্রামের ফ্লাওয়ার গার্ডেন ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের শিক্ষক মাজহারুল ইসলাম শাফি, তৌফিক আলী, মসজিদের ইমাম ইসমাইল হোসেন হামিদীসহ একদল উগ্র মৌলবাদি চেতনার লোক জড়ো হয়ে মিছিল নিয়ে দেবাশীষদের বাড়িতে হামলা চালায়। তারা পাকা সীমানা প্রাচীর টপকে বাড়িতে ঢুকে দালান ঘরটির সাতটি জানালার কাঁচ ভেঙ্গে ফেলে। এসময় তারা মন্দিরও ভাংচুর করে।    
তবে এ বিষয়ে আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আবু জাফর বলেন, দেবাশীষ ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাত করে ফেসবুকে লিখেছে। এটা নিয়ে মিছিল হয়েছে, হামলা হয়েছে। এ কারণে মামলাও করা হয়েছে। লালনের গান যদি নিষিদ্ধ না হয়, সেটা লিখলে ধর্মীয় অনুভুতিতে কিভাবে আঘাত আসে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আদালত এটা বিবেচনা করবে। আমার দৃষ্টিতে এটা অপরাধ।

 

এ জাতীয় আরও খবর