বৃহস্পতিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

লেখা নিয়ে আমার সন্দেহ অনেকটা দূর হয়েছে

49687174f2df27fdeedb5b10f629cd1b-29

লাইফস্টাইল ডেস্ক :পাঠকের উকিল কলামে লেখালেখির ব্যাপারটি আকস্মিক। সেই সময় আমি অ্যাটর্নি জেনারেল অফিসে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেলের দায়িত্ব পালন করছি এবং বিভিন্ন মামলা-মোকদ্দমা সরকারের পক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করাও ছিল আমার কাজ। পাঠকের উকিলের সুবাদে বিভিন্ন ধরনের পারিবারিক সমস্যা চিঠির মাধ্যমে আমার কাছে আসা শুরু হয়। সেসব চিঠির সমস্যার আইনগত সমাধানের প্রয়োজনে আমি নির্দিষ্ট আইনগুলো নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি শুরু করি এবং এসব ব্যাপারে আমার আগ্রহ জাগতে শুরু হয়।বিভিন্ন সময়ে চিঠিপত্র ছাড়াও টেলিফোনের মাধ্যমে মানুষের সমস্যার কথা শুনি। কখনো অনেকে সরাসরি আমার সঙ্গে দেখা করেন এবং তাঁদের সমস্যার কথা শোনান। কখনো আইনজীবী না হয়ে শুধু বন্ধু হয়েই তাঁদের কথা শোনা ও সমবেদনা-সহমর্মিতা প্রকাশ করা ছাড়া আমার বিশেষ কিছু করার থাকে না। এ ছাড়া বিভিন্ন পাঠক সামাজিক সমস্যা নিয়ে আমাকে চিঠি পাঠান। এসব সমস্যার আইনগত সমাধান দেওয়া সম্ভব হয় না। এ ছাড়া আইনের প্রয়োগ অনেক সময় প্রচুর ব্যয়সাপেক্ষ ও সময়সাপেক্ষ হয়ে থাকে। সেসব ক্ষেত্রে মেডিয়েশন বা আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করা যায়। তবে মানুষ তাঁর আইনগত অধিকারগুলো সম্বন্ধে জানতে পারেন, যা তাঁকে সামাজিকভাবে সচেতন করে তোলে। বিশেষ করে পারিবারিক ও উত্তরাধিকার আইনগুলো নিয়ে সাধারণ মানুষের বিভিন্ন ভ্রান্ত ধারণা থাকে, যার ফলে তাঁরা তাঁদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। প্রথম প্রথম মনে হতো এই যে লিখছি বিভিন্ন সমস্যার উত্তর দিচ্ছি, তাতে মানুষ আদৌ উপকৃত হচ্ছেন কি না। মনে সন্দেহ হতো তাঁরা সমস্যার সমাধান করতে পারছেন কি না। একটা ঘটনার কথা মনে পড়ছে, এক নারী তাঁর স্বামীর তরফ থেকে উপহার বা হেবা হিসেবে একটি অ্যাপার্টমেন্ট পেয়েছিলেন। পরবর্তী সময়ে তালাকের পর প্রথম স্বামীর আত্মীয়স্বজন ওই বাড়ি ফেরত পাওয়ার জন্য তাঁর জীবন দুর্বিষহ করে তোলেন। তাঁরা তাঁকে বোঝান যে তালাকের পর তাঁর দান বাতিল হয়ে গেছে এবং ওই অ্যাপার্টমেন্টে তাঁর কোনো অধিকার নেই। দানের আইনগত ভিত্তি সম্বন্ধে ওই নারীর কোনো ধারণা ছিল না এবং দান যে অফেরতযোগ্য তাও তাঁর জানা ছিল না। অসহায় সেই অবস্থায় হেবা বিষয়ে আমার এক প্রশ্নের উত্তর তাঁর নজরে আসে। হেবা নিয়ে বিস্তারিত লেখা ছিল সেই চিঠির জবাবে। সেই লেখা তাঁকে কতখানি সাহস জুগিয়েছিল তা বুঝেছি যখন তাঁর সঙ্গে আমার দেখা হয়। এরপর লেখা নিয়ে আমার সন্দেহ অনেকটা দূর হয়েছে। মানুষ পড়ছে, জানছে তবে পালন করছে কতটুকু, তা নিয়ে প্রশ্ন থাকবে সব সময়। তবে আমার উত্তরগুলোতে যদি কিছু অসহায় ব্যক্তি সামান্যভাবে উপকৃত হন, তবেই আমার লেখালেখি সার্থক।

সমস্যা

আমি ৩৪তম বিসিএস লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছি। আমি শারীরিকভাবে প্রতিবন্ধী। আমার উচ্চতা ৪ ফুট ৮ ইঞ্চি। ৩৪তম বিসিএসের বিজ্ঞাপনে পুরুষ প্রার্থীর উচ্চতা কমপক্ষে ৫ ফুটের কথা বলা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে শারীরিক প্রতিবন্ধী প্রার্থীদের বিষয়ে বিশেষ কিছু বলা নেই। আমার প্রশ্ন হচ্ছে, সাধারণ প্রার্থীদের ক্ষেত্রে আরোপিত শারীরিক যোগ্যতার শর্তসমূহ শারীরিক প্রতিবন্ধী প্রার্থীদের জন্য প্রযোজ্য কি না? আর ১৯৮২ সালে প্রণীত বিশেষ আইনে অনগ্রসর জনগোষ্ঠী বলতে কাদের বোঝানো হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক, রংপুর।

সমাধান

বিসিএস বিজ্ঞাপনে শারীরিকভাবে প্রতিবন্ধীদের ব্যাপারে স্পষ্টভাবে কিছু বলা নেই। দৈহিক যোগ্যতা পূরণ না হলে সাধারণত প্রার্থীকে অযোগ্য বলে ধরা হবে। তবে এ ব্যাপারে আপনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারেন। অনগ্রসর গোষ্ঠী বলতে সাধারণত আদিবাসীদের বোঝানো হয়।

এ জাতীয় আরও খবর

৮৭ হাজার টাকার মদ খান পরীমণি, পার্সেল না দেওয়ায় চালান তাণ্ডব

যুদ্ধ পরিস্থিতি মোকাবিলায় আগাম প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব ঢাকায় আসছেন শনিবার

পি কে হালদারের বিরুদ্ধে প্রথম চার্জশিট দিচ্ছে দুদক

কেমন ছিল জিম্মিদশার দিনগুলো, জানালেন জাহাজের ক্যাপ্টেন রশিদ

ইসরায়েলে ড্রোন হামলা হিজবুল্লাহর, ১৪ সেনাসদস্য আহত

হাথুরুকে নিয়ে ধোঁয়াশা নেই, ২১ এপ্রিল রাতে ফিরছেন ঢাকায়

উপজেলা নির্বাচন সরকারের আরেকটা ভাওতাবাজি : আমীর খসরু

গরমে গতি কমিয়ে ট্রেন চালানোর নির্দেশ

পশ্চিমবঙ্গে ৪৬ ডিগ্রিতে পৌঁছাবে তাপমাত্রা

গুলশানে চুলোচুলি করা সেই ৩ নারী গ্রেপ্তার

দায়িত্বশীল ও টেকসই সমুদ্র ব্যবস্থাপনার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর