বৃহস্পতিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

যুদ্ধাপরাধের প্রতিটি রায় কার্যকর হবে- শেখ হাসিনা

hasina=3যুদ্ধাপরাধীদের সঙ্গ ছাড়তে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘যুদ্ধাপরাধের প্রতিটি রায় এ দেশের মাটিতে কার্যকর করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতাবিরোধীদের ক্ষমতায় বসিয়েছিলেন জিয়াউর রহমান। তিনি বাংলাদেশের গণতন্ত্রের কবর রচনা করেছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করে ফেলেছিলেন। জিয়ার সঙ্গে এরশাদও খুনিদের মদদ দিয়েছিলেন।’

রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জেলহত্যা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আওয়ামী লীগের মহাসমাবেশে সোমবার বিকেলে এ সব কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘যা খালেদা জিয়ার জন্য অভিশাপ তা আমাদের জন্য আশীর্বাদ। রাস্তা করতে না পারলেও আন্দোলনের নামে রাস্তা কাটা, মানুষ হত্যা করা, এমনকী নিরীহ গরুও হত্যা করতে পারেন তিনি।’

বিএনপি চেয়ারপারসনের সমালোচনা করে তিনি আরও বলেন, ‘তিনি এখন ক্ষমতায় নাই, দুর্নীতি করতে না পারায় আপসোস করছেন। খালেদা জিয়া কমিশন খেতে পারেন না তাই দেশের উন্নয়ন চোখে দেখেন না। একটি শিক্ষিত জাতি ছাড়া দেশের উন্নয়ন হয় না। আমরা দেশকে শিক্ষিত করছি, জাতিকে উন্নত করছি কিন্তু খালেদা জিয়া বাংলাদেশের মানুষের উন্নয়ন চোখে দেখেন না।’

তিনি বলেন, ‘উনি (খালেদা জিয়া) দেখবেন কেমনে, এখন তো আর হাওয়া ভবন নাই, ক্ষমতা নাই, কমিশনও নাই, তাই তিনি উন্নয়ন চোখে দেখেন না।’

‘দুর্নীতি, হত্যা ও ক্যু করে বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্র করেছিল বিএনপি’ এ অভিযোগ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘হাওয়া ভবন খুলে কোটি কোটি টাকার মালিকনা আজ দেশের বাইরে নেওয়া হয়েছে। খালেদা জিয়া খুনি-হত্যাকারীকে সমাজকল্যাণমন্ত্রী বানিয়েছিলেন। তিনি আলবদর প্রধান নিজামীকে মন্ত্রী করেছিলেন।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি খুনি রশিদ-হুদাকে ১৫ ফেব্রুয়ারির বিতর্কিত নির্বাচনে জয়ী করেছিল। ৭৫ এর হত্যাকারীদের পুরস্কৃত করে রাষ্ট্রদূত বানানো হয়েছিল। ১৯৯৬ সালের পর বাংলার জনগণ গণতন্ত্রের স্বাদ পায়।’

জিয়াউর রহমানের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘৭৫ এর ১৫ আগস্টের পর সেনাবাহিনী, বিমানবাহিনীর সদস্যদের হত্যা করা হয়েছিল। মুক্তিযোদ্ধা হয়েও হত্যাকারীদের পুনর্বাসন করেন জিয়াউর রহমান। হত্যাকারীদের মন্ত্রী বানান তিনি। রাজাকার শাহ আজিজকে প্রধানমন্ত্রী বানান জিয়া।’

তিনি বলেন, ‘জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের গণতন্ত্রের কবর রচনা করেছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করে ফেলেছিলেন। জিয়ার সঙ্গে এরশাদও খুনিদের মদদ দিয়েছিলেন।’

‘মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতি হয়েছে ৭৫ এর ১৫ আগস্টের পর’ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘১৫ আগস্টে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করা হয়। ১৫ আগস্টের পর দেশে শুরু হয়, হত্যা, ক্যু ও নির্যাতনের রাজনীতি।’

প্রধানমন্ত্রী দুপুর সাড়ে ৩টার দিকে মহাসমাবেশ স্থলে এসে পৌঁছান। দুপুর ৩টার সমাবেশ শুরুর কথা থাকলেও নির্ধারিত সময়ের আগেই তা শুরু হয়। ৩টার আগেই রমনা কালীমন্দির সংলগ্ন মঞ্চের আশপাশের জায়গা দলটির নেতাকর্মীদের পদচারণায় মুখর হয়ে ওঠে।

সভায় সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের সিনিয়র প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী। উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, তোফায়েল আহমেদ, বেগম মতিয়া চৌধুরী, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মাদ নাসিম, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম এ আজিজ ও সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া প্রমুখ।

সমাবেশে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মাদ নাসিম নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘যেকোনো মূল্যে একাত্তরের পরাজিত শক্তি, রাজাকার ও বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া রুখতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘তাদের কাছে আমরা মাথা নত করবো না। ২০১৯ সালেই দেশের নির্বাচন হবে।’

সমাবেশে ঢাকা ও আশপাশের জেলা থেকে বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী যোগ দেন।

 

এ জাতীয় আরও খবর

৮৭ হাজার টাকার মদ খান পরীমণি, পার্সেল না দেওয়ায় চালান তাণ্ডব

যুদ্ধ পরিস্থিতি মোকাবিলায় আগাম প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব ঢাকায় আসছেন শনিবার

পি কে হালদারের বিরুদ্ধে প্রথম চার্জশিট দিচ্ছে দুদক

কেমন ছিল জিম্মিদশার দিনগুলো, জানালেন জাহাজের ক্যাপ্টেন রশিদ

ইসরায়েলে ড্রোন হামলা হিজবুল্লাহর, ১৪ সেনাসদস্য আহত

হাথুরুকে নিয়ে ধোঁয়াশা নেই, ২১ এপ্রিল রাতে ফিরছেন ঢাকায়

উপজেলা নির্বাচন সরকারের আরেকটা ভাওতাবাজি : আমীর খসরু

গরমে গতি কমিয়ে ট্রেন চালানোর নির্দেশ

পশ্চিমবঙ্গে ৪৬ ডিগ্রিতে পৌঁছাবে তাপমাত্রা

গুলশানে চুলোচুলি করা সেই ৩ নারী গ্রেপ্তার

দায়িত্বশীল ও টেকসই সমুদ্র ব্যবস্থাপনার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর