মঙ্গলবার, ১৬ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ওয়াসব্লক: অর্ধশত কোটি টাকায় যে কাজ হলো ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়

22222আমিরজাদা চৌধুরী : মোটরে পানি উঠেনা,দরজা ফিটিং হয়না,অযুখানা করা হয়নি। পানির পাম্প বসানো হয়নি,জানালার গ্লাস লাগানো হয়নি। টাইলসের কাজ অসম্পূর্ন। জানালার সীট লাগানো হয়নি,পানির লাইন ও টেপ নষ্ট। হাই কমডের সামনে পানির লাইন ও টেপ নেই। টয়লেট সামগ্রী দেয়া হয়নি,ছাদের ঢালাই নিম্নমানের। ফ্ল্যাশ বক্স নেই,পুরাতন টাঙ্কিতে সংযোগ দেয়া হয়েছে। ঢাকনা দেয়া হয়নি। বিদুৎত সংযোগ দেয়া হয়নি। ল্যাট্রিনগুলো চারবার মেরামত করার পরও ফাটল দেখা দিয়েছে। পার্টিশনের দেয়াল ফেটে ঝুকিপূর্ন অবস্থায় রয়েছে। হাই কমোডের ঢাকনা ছোট,ফ্লাস হয়না। জানালার কাচ, বেসিনের আয়না,তোয়ালে ষ্ট্যান্ড ও বাথরুম সামগ্রীর কোন কিছুই দেয়া হয়নি। বাথরুমের ভেতরের কোন কল দিয়ে সঠিকভাবে পানি আসেনা। মোট ১০টি ট্যাপের সবগুলোই অকেজো। ব্যবহারের আগেই টাইলসগুলো খুলে পড়ে যাচ্ছে।  ফ্লাসগুলো নিম্নমানের, কোন কাজ করেনা। হাই কমোড সেটিং  হয়নি,বেসিনগুলো নড়বড়ে। অভিযোগের পাহাড়। হাজারো অভিযোগ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে নির্মিত ‘ওয়াসব্লক’ নিয়ে। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশর অধিদপ্তরের  ব্রাহ্মণবাড়িয়া নির্বাহী প্রকৌশলী অফিসসুত্র জানায়,বিদ্যালয়গুলোতে স্বাস্থ্যকর ল্যাট্রিন এবং পরিস্কার-পরিচ্ছনতার জন্যে পানির সংস্থানের একটি  প্রকল্প এটি। একটি ডবল ওয়াসব্লকে থাকে ৩ টি লেট্রিন। এরমধ্যে ১ টি হাইকমোড ও অন্য ২ টি প্যান। বেসিন, পা ধোয়ার ব্যবস্থা,ওয়াটার সাপ্লাই,সাবমার্সিবল পাম্প,১ হাজার লিটার পানির টাঙ্কি ও বিদুৎত সংযোগ। কিন্তু বর্ণিত এসব কাজের পুরোপুরি বাস্তবায়ন এই পর্যন্ত সম্পন্ন হওয়া কয়েক’শ ওয়াশব্লকের কোনটিতেই হয়নি বলে অভিযোগ রয়েছে। ওয়াশব্লক বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে একেবারে আলাদা করে নির্মানের কথা থাকলেও অধিকাংশ বিদ্যালয়ের পুরাতন লেট্রিনের দেয়াল,ছাদের অংশ আর টাঙ্কি ব্যবহার করা হয়েছে। আর সেকারনে এই পর্যন্ত প্রকল্প বাস্তবায়নে বরাদ্দ অর্ধশত কোটি টাকা লুটের নামান্তর হয়েছে বলেই অভিযোগ উঠেছে। ইউনিসেফ জাইকা,ইউএনডিপিসহ সর্বাধিক ১১টি দাতা সংস্থা এই প্রকল্পে অর্থ সংস্থান করছে।  
একটি ডবল ওয়াসব্লক নির্মানে বরাদ্দ ৭ লাখ টাকা,আর সিঙ্গেল ওয়াসব্লকের নির্মান ব্যয় ৩ লাখ ৭০ হাজার টাকা বলে জানিয়েছে অফিসের ঐসুত্র। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কাজের জন্যে ২০০৩ সালের  মার্চে অর্থ বরাদ্দ আসে। প্রথমে দফায় সাড়ে ৭ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়্ াহয়। ঐ বছরের মে মাস থেকেই প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ শুরু করে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর। পিইডিপি-৩ প্রকল্পের আওতায় এ পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে  ৫৪৯টি ওয়াসব্লক নির্মান কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। মোট সাড়ে ৭ ’শ ওয়াসব্লক নির্মান করার কথা জানিয়েছে জনস্বাস্থ্য অফিস। ইতিমধ্যে  ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরে ৭৬টি,বিজয়নগর উপজেলায় ৩৪টি,নবীনগরে ১১১টি,বাঞ্চারামপুর ৫৮টি,সরাইলে ৮১টি,কসবায় ৬৭টি,আশুগঞ্জে ৩৪টি ,নাসিরনগর ৬৩টি ,আখাউড়ায় ২৫ টি ওয়াসব্লক নির্মান হয়েছে। এরমধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরে নির্মিত ৭৬ টি ওয়াশব্লকের মধ্যে ৪০টিরও বেশীর নির্মান কাজ নিয়ে অভিযোগ জমা হয়েছে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে। প্রতিদিনই কোন কোন বিদ্যালয় থেকে ওয়াশব্লক নিয়ে অভিযোগ আসছে শিক্ষা অফিসে। চান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নির্মানের ৪ মাসের মাথায় দেবে যায় ওয়াসব্লকের মেঝে। এতে কমোডটিও নীচে চলে যায়। ভেঙ্গে যায় একাংশের দেয়াল। বিদ্যালয় সংশ্লিষ্টরা জানান,এটি নির্মাণের সময়ই নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার ও বিভিন্ন ধরণের অনিয়ম করা হয়। এসময় বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি সদস্য ও এলাকার লোকজন ভালোভাবে কাজ করার কথা বলতে গিয়ে হেনস্থা হন। এমনকি তাদেরকে দেখে নেওয়ারও হুমকি দেন ঠিকাদার। ওই বিদ্যালয়ের দপ্তরি কাম নৈশ প্রহরী মো. জালাল মিয়া বলেন, ‘বাঁশ-বেত দিয়ে কাজ করলেও তো তিন-চার মাস টিকে। আর মাত্র দুই মাসেই দেয়াল ভেঙ্গে গেল।শহরের গোকর্ণঘাট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাসরিন আক্তার বলেন, সিডিউলে কি আছে বা কি কাজ হচ্ছে ঠিকাদার সেসবের কোন কিছুই আমাদেরকে বুঝাননি। এই স্কুলে কাজ হয়েছে সামার ভ্যাকেশনের সময়। আমাদের না দেখার মধ্যেই ঠিকাদাররা কাজ কাজ সম্পন্ন করেছেন। তিনি বলেন ওয়াসব্লক করে আমার পুরনো টয়লেট অচল করে দেয়া হয়েছে। বাচ্চাদের সুবিধের জন্যে করা হলেও এখন অসুবিধাই বেশী হচ্ছে। তিনি আরো জানান, ওয়াসব্লকের টাঙ্কি না করে পুরনো টাঙ্কির সঙ্গে সংযোগ দেয়া হয়েছে। মোটর কানেকশন নেই। পুরনো মোটর ব্যবহার করে পানি উঠালেও ওয়াশব্লকের নিম্নমানের কাজের জন্যে পানি নিস্কাষন পুরোপুরি বন্ধ। মোটরের তারও টানা হয়েছে ঝুকিপূর্নভাবে। ওয়াশব্লক এখন পরিত্যক্ত। নাটাই সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা জানান,ওয়াশব্লকের দেয়াল নির্মান না করে সাপোর্ট হিসেবে বিদ্যালয়ের ডান দিকের দেয়াল ব্যবহার করা হয়েছে। ওয়াসব্লকের ছাদ বিদ্যালয়ের পুরনো দেয়ালের সাথে যুক্ত করা হয়েছে। ফলে ছাদে পানি জমে বিদ্যালয়ের ডান দিকের দেয়াল স্যাতস্যাতে ও জরাজীর্ন হয়ে পড়েছে। এই অবস্থা চলতে থাকলে ২/৩ বৎসরের মধ্যে দেয়াল ভেঙ্গে পড়বে। সীতানগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে খোজ নিয়ে জানা গেছে,তাদের ওয়াশব্লকের মোট ১০টি টেপই ব্যবহার অনুপযোগী। সঠিকভাবে পানি নিস্কাশন না হওয়ায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে দূর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। টাইলস সঠিকভাবে ফিটিং না হওয়ায় খুলে যাচ্ছে। টিউবওয়েলের লেয়ার সঠিক না হওয়ায় গাঢ় লাল পানি বের হয়। সেফটি টাঙ্কির সংযোগ ভাঙ্গা। ২ টি হাইকমোডের ফ্লাশও নষ্ট। হাইকমোডের কাছে টেপ দেয়া হয়নি। ঘাটুরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ফ্লাশ কাজ করেনা। হ্যান্ড ওয়াশ দিয়ে পানি আসেনা। পূর্ব মেড্ডা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দেলোয়ারা বেগম বলেন, কি কাজ হবে তা জানতে চাইলে আমাদের কোন কিছুই জানায়নি। কাজ সম্পন্ন করার ২ মাস পরই ওয়াসব্লক ব্যবহার করতে পারছিনা। পশ্চিম মেড্ডা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: দেওয়ান হাফিজ বলেন, ঠিকাদাররা কি কাজ করেছে জানিনা। তারা আমাদের কাজ বুঝিয়েও দেয়নি। সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুল আলিম রানা বলেন, আমরা এপর্যন্ত ৪০টির মতো স্কুল থেকে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এনিয়ে গত মাসে উপজেলা শিক্ষা কমিটির বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। নবীনগরের অনেক স্কুলে খোজ নিয়ে এই কাজে ত্রুটির অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধানরা জানান,তাদের এখানে অধিকাংশ ওয়াশব্লকের ছাদ ঢালাই করা হয়েছে রাতে এবং বন্ধের সময়। স্কুল পরিচালনা কমিটি ও বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ছাদ ঢালাইয়ের সময় উপস্থিত থাকবেন বলে জানালেও রাতের আধারে কাজ করা হয়। নবীনগরের গৌরনগর দক্ষিন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা জেসমিন আক্তার বলেন তাদের এখানকার কাজ ভালো হয়নি। টয়লেটের পানি সরেনা। ঠিকাদার বলেছিলো আবার আসবে। কিন্তু আর আসেনি। আমতলী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহবুবুর রহমান বলেন, কাজের কোন সিািডউলই পাইনি। তিনি বলেন আমি শুনেছি ৩ লাখ টাকার কাজ। বীরগাও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুল্লাহ আল শাহজাদ বলেন, আমাকে ঠিকাদার ওয়ার্ক অর্ডারের একটি কাগজ দিয়েছে। তাতে ৭ লাখ ৯০ হাজার টাকার কাজ হবে বলে উল্লেখ রয়েছে। কিন্তু কাজের তুলনায় অর্থ বরাদ্দ অনেক বেশী  বলে মনে হয়েছে। নবীনগর উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শরীফ রফিকুল ইসলাম বলেন, আমরা বিভিন্ন স্কুলে খোজখবর নিচ্ছি। এরমধ্যে ব্রাহ্মণহাতা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে আমাকে জানানো হয়েছে কাজের মান খারাপ হয়েছে বলে। এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জনস্বাস্থ্য  প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী সোহরাব উদ্দিন আহমেদ বলেন, আমরা কাজ করিনা। ঠিকাদার কাজ করে। তারা শতকারা ১৫ থেকে ২০ ভাগ কম মুল্যে কাজ নিয়েছে। সেই ক্ষতি পুষানোর জন্যেই তারা এখন এমন কাজ করছে। তাছাড়া এই কাজের যেমুল্য ধরা হয়েছে তাও ভাল না। তাই এলজিইডি এই দরে কাজ করতে রাজি হয়নি বলে আমাদের বিভাগকে দেয়া হয়েছে।
সদরে অর্ধেকের বেশীতেই নিম্নমানের কাজ: ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার ৭৬ টিতে এপর্যন্ত ওয়াসব্লক নির্মান হয়েছে। এরমধ্যে ৪০টিরও বেশীতে নামমাত্র কাজ হয়েছে বলে অভিযোগ মিলেছে। যেসব প্রতিষ্ঠান থেকে অভিযোগ এসেছে সেগুলো হচ্ছে ধানসার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,থলিয়ারা শাহজাহান মিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,বিরাসার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,খাকচাইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,বিলকেন্দুয়াই সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,সুলতানপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,শিলাউর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,উজানিসার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,ঘাটিয়ারা পূর্ব সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,বরিশল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,চান্দি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,অষ্টগ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,গোকর্ণঘাট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,মৈন্দ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,মজলিশপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,দারমা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,বাকাইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,সুহিলপুর উত্তর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,মালিহাতা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,সুতিয়ারা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,বুধল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,ঘাটুরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,মীরহাটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,সীতানগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,মেড্ডা পশ্চিম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,মেড্ডা পূর্ব সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,পৈরতলা দক্ষিন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,গোকর্ণঘাট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,পৌর আদর্শ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,শহীদ লুৎফুর রহমান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,ভাদুঘর পূর্ব সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,ভাদুঘর ঋষিপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,বড়হরন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,বিরামপুর পশ্চিম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,চিনাইর উত্তর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,চিনাইর দক্ষিন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,কাছাইট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,চাপুইর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,জগতসার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,বিরামপুর দক্ষিন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,বেতবাড়িয়া বৈরাগী শাহ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,চান্দিয়ারা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,আমিরপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,সাদেকপুর দক্ষিন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,মৈন্দ পূর্ব সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,ভোলাচং সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,সিন্দুউরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়।

11111111111111 copy

 

 

এ জাতীয় আরও খবর

পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিলো বিজিপির আরও ১২ সদস্য

তীব্র গরমের পরে রাজধানীতে স্বস্তির বৃষ্টি

উপজেলা নির্বাচন বর্জনের সিদ্ধান্ত বিএনপি ও জামায়াতের

এখনও কেন ‘জলদস্যু আতঙ্কে’ এমভি আবদুল্লাহ

বাড়ছে তাপমাত্রা, জেনে নিন প্রতিরোধের উপায়

বিএনপির অনেকে উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে : কাদের

অনিবন্ধিত অনলাইনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেবো : তথ্য প্রতিমন্ত্রী

প্রার্থীদের মনোনয়নপত্রের প্রিন্ট কপি চাওয়া যাবে না : ইসি

ইসরায়েলকে সহায়তা করায় জর্ডানে বিক্ষোভ

পণ্যের দাম ঠিক রাখতে বিকল্প ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে : প্রতিমন্ত্রী

লিটারে ১০ টাকা বাড়ল সয়াবিন তেলের দাম

ফরিদপুরে বাস-পিকআপের সংঘর্ষে নিহত বেড়ে ১৪