বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বেতন বাকি রেখেই দুই ডাচ কোচ ছাঁটাই

2_160996ক্রীড়া প্রতিবেদক :জাতীয় ফুটবল দলের ডাচ কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফ যখন বিমানে, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন তার চাকরি খেলেন। ক্রুইফের বিমান মাটি স্পর্শ করার আগেই বাংলাদেশের ফুটবলের সঙ্গে তার সম্পর্ক চুকেবুকে গেছে। যুগান্তরে প্রকাশিত খবরই সত্যি হল। চার মাসের বেতন বকেয়া রেখেই জাতীয় দলের প্রধান কোচ ডি ক্রুইফ ও সহকারী কোচ রেনে কোস্টারকে বিদায় করার ঘোষণা দিলেন বাফুফে সভাপতি। সালাউদ্দিনের ছয় বছরের সময়ে এ নিয়ে পাঁচজন বিদেশী কোচ এবং দু’জন স্থানীয় কোচ বিদায়ের ঘটনা ঘটল। অন্যদিকে ২০১০ সালে সালাউদ্দিন যাকে বরখাস্ত করেছিলেন, সেই সাইফুল বারী টিটুকে আবারও জাতীয় দলের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। ২০১৩ সালের জুনে জাতীয় দলের দায়িত্ব নেন ক্রুইফ ও রেনে। দায়িত্ব নেয়ার পর থেকেই কোনো মাসের বেতনই নির্ধারিত সময়ে পাননি তারা। দুই-তিন মাসের বেতন বকেয়া ছিল সব সময়। চুক্তির শর্তানুযায়ী ফ্ল্যাট ও গাড়ি দেয়ার কথা থাকলেও কোচরা তা পাননি। মাঝে দু’মাসের জন্য ফ্ল্যাট দেয়া হয়েছিল। কিন্তু ভাড়া বকেয়া পড়ায় ফ্ল্যাটের মালিক রুষ্ট হন। ফলে ক্রুইফ ও রেনে তাদের স্ত্রী এবং সন্তানদের দেশে ফেরত পাঠিয়ে দেন। বাফুফে অ্যাসাইনমেন্ট না দেয়ায় প্রায়শই কোচদের নেদারল্যান্ডসে বসে অলস সময় কাটাতে হয়েছে। ছুটি শেষে ফিরে আসতে চাইলেও বাফুফে তাদের সঠিক সময়ে বিমান টিকিট পাঠায়নি। এ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে কম জল ঘোলা হয়নি। সর্বশেষ চার মাসের বেতন বকেয়া পড়ে দুই কোচের।

ইনচন এশিয়ান গেমস থেকে ঢাকায় ফিরে বকেয়া বেতন নিয়ে বাফুফে সভাপতির সঙ্গে বৈঠকে বসেছিলেন ক্রুইফরা। তখন কথা ছিল, ৩ অক্টোবরের মধ্যে এক মাসের বেতন এবং ১৫ নভেম্বরের মধ্যে তিন মাসের বেতন পরিশোধ করা হবে। সালাউদ্দিনের কথায় আশ্বস্ত হয়ে কোচরা ছুটিতে নেদারল্যান্ডসে যান। কিন্তু বাফুফে আর তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। বেতন দেয়া দূরে থাক, বিমান টিকিট পাঠাতেও গড়িমসি করেছে বাফুফে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বকেয়া বেতন পরিশোধ না করায় সহকারী কোচ রেনে কোস্টার ঢাকায় আসছেন না। শনিবার ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয়েছেন ক্রুইফ। আজ ভোর ৪টায় পৌঁছার কথা তার। তবে নেদারল্যান্ডসে থাকতে ফেসবুকে ক্রুইফ যুগান্তরের এ প্রতিবেদককে জানান, ‘আমার অনেক কিছু বলার রয়েছে। বাংলাদেশের ফুটবলকে কিভাবে নিঃশেষ করে দেয়া হচ্ছে তা আমি মিডিয়ায় জানাব। নিজের পাওনা বুঝে নিতে ফিফা ও এএফসির দ্বারস্থ হব আমি।’ ক্রুইফের এই বক্তব্য যদি বাস্তবে রূপ নেয়, তাহলে বিপদে পড়বে বাংলাদেশ। বাফুফের গুটিকয়েক কর্মকর্তার একগুঁয়েমির কারণে বারবার আন্তর্জাতিক ফুটবলাঙ্গনে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে। সালাউদ্দিন দায়িত্ব নেয়ার পরপরই বিদায় করে দেন ব্রাজিলিয়ান কোচ ডিডোকে। তার পরিণতি দেখে নিজে থেকেই চলে যান আর্জেন্টাইন ট্রেনার অ্যারিয়েল কোলম্যান। ২০১০ সালে ঢাকা এসএ গেমসে স্বর্ণজয়ী ফুটবল কোচ সার্বিয়ার জোরানকে এক মাসের মধ্যে বিদায়ের চিঠি হাতে ধরিয়ে দেয়া হয়। তার সহকারী দাবরকেও বিদায় নিতে হয়। কাজ করার সুযোগ না পেয়ে ফিরে যান ক্রোয়েশিয়ার কোচ রবার্ট রুবচিচ। পরে তিনি পাওনা আদায়ে বাফুফের নামে ফিফার কাছে নালিশ করেন। ফিফা রুবচিচের পাওনা পরিশোধে বাফুফেকে বাধ্য করে। রুবচিচের পর আরেক ইউরোপীয় কোচ মেসিডোনিয়ার ইলিয়েভস্কিকে স্বল্প সময়ের মধ্যে বিদায় করে বাফুফে। এরই মধ্যে জাতীয় দলের স্থানীয় দুই কোচ আবু ইউসুফ ও সাইফুল বারী টিটুকে বরখাস্ত করা হয়। অধিকাংশ ক্ষেত্রে নেপথ্য কারণ ছিল, কোচদের পাওনা নিয়ে বাফুফের টালবাহানা।