সোমবার, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এক কাপ চা’ রোমান্টিক এবং নির্মল হাসির ছবি

77538a92c5dd5e53e5a679adba6f45a4-11বিনোদন প্রতিবেদক :অভিনেতা হিসেবেই পরিচিত ফেরদৌস। এক কাপ চা ছবিটি দিয়ে নাম লিখিয়েছেন প্রযোজকের খাতাতেও। আজকের আলাপন তাঁর সঙ্গে।


আপনার প্রযোজিত এক কাপ চা ছবির কাজ শেষ হয়েছে অনেক আগে। কিন্তু মুক্তি দিতে এত দেরি হচ্ছে কেন?


এক কাপ চা ছবির শুটিং একটানা করতে পারিনি। সে সময় আমার হাতে থাকা আরও কয়েকটি ছবির শুটিংয়ের ফাঁকে ফাঁকে এই ছবির কাজ করেছি। ছবির চিত্র ধারণ করেছিলাম ৩৫ মিমি ক্যামেরায়। শুটিং শেষ হওয়ার পর ৩৫ মিমি নাকি ডিজিটাল ফরম্যাটে মুক্তি দেব, তা নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে ছিলাম। শেষ পর্যন্ত ডিজিটাল ফরম্যাটে মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিই। আর ডিজিটাল ফরম্যাটে রূপান্তরের জন্য কয়েকবার ভারতের চেন্নাইয়ে যেতে হয়। এতে করে অনেকটা সময় চলে যায়। আগামী ১৪ নভেম্বর ছবিটি মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেছি।

প্রযোজক ফেরদৌস যতটা সহযোগিতা পেয়েছেন…

প্রযোজক হিসেবে এটা আমার প্রথম ছবি। আর আমার প্রযোজিত প্রথম ছবিতে আমার সহশিল্পী বন্ধু, কলাকুশলীরা সবাই নিজেরা উদ্যোগী হয়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। বাংলা চলচ্চিত্রের সেরা কিছু মানুষ এক কাপ চা ছবিতে যুক্ত হয়েছেন। ছবির গল্পের প্রয়োজনে যেখানে যা দরকার তার সবই করেছেন, এটা নিশ্চিতভাবে বলতে পারি। সবকিছু মিলিয়ে চেষ্টা করেছি ভালো মানের একটি ছবি উপহার দেওয়ার।

দর্শকেরা এক কাপ চা ছবিটি কেন দেখবে বলে আপনি মনে করেন?

এই ছবিটি যে ভিন্ন কিছু তা নিশ্চিতভাবে বলতে পারি। গতানুগতিকতার বাইরে গিয়ে গল্প বলার চেষ্টা করেছি। এক কাপ চা রোমান্টিক এবং নির্মল হাসির ছবি। দর্শক প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে পরিপূর্ণ বিনোদন নিয়ে বের হতে পারবেন।

বাংলা ছবি নিয়ে আপনার কী ভাবনা?

আমি বলতে চাই, আমরা যারা বাংলা ভাষায় কথা বলি, তারা বাংলা ছবি দেখবই। দর্শক কিন্তু প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে নির্মল বিনোদন আশা করে। তিন ঘণ্টা ধরে তারা যে প্রেক্ষাগৃহে থাকবে, সেই উপযোগী ছবি কম নির্মিত হচ্ছে। ইদানীং বেশির ভাগ ছবি দক্ষিণী ছবির আদলে তৈরির চেষ্টা করা হয়। আমাদের এসব থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।

আপনি কলকাতার ছবিতেও নিয়মিত কাজ করছেন। কলকাতার ছবি এখন দারুণ একটা সময় পার করছে। অথচ আমাদের ছবি…

কলকাতার মানুষের একটা ব্যাপার আমার খুবই ভালো লাগে, তারা নিয়মিতই প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে ছবি দেখে। তারপর ছবি নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা করে। আমাদের এখানে প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে ছবি দেখার প্রবণতা একেবারেই কমে গেছে। এ ক্ষেত্রে হলের পরিবেশ অন্যতম কারণ। তা ছাড়া আমাদের ছবির গল্পের জোরটা কম। কোনো একটা ছবি হিট হলে সবাই সেই ধারাটি নিয়ে মেতে থাকে। সেটা নাটক এবং গানের ক্ষেত্রেও একই। নতুন নতুন বিষয় এবং ব্যতিক্রমী গল্প নিয়ে আমরা খুব বেশি ভাবতে চাই না।

এখনকার ব্যস্ততা…

আমার এখনকার ব্যস্ততা এক কাপ চা–কে ঘিরেই। নতুন কিছু ছবিরও কাজ করছি। এগুলো হচ্ছে: মৌসুমীর শূন্য হৃদয়, আনোয়ার সিরাজের ভাবীর আদর, অরূপ রতনের স্বর্গ থেকে নরক, মুশফিকুর রহমান গুলজারের মন জানে না মনের ঠিকানা।