বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চলতি সাপ্তাহে আশুগঞ্জ আসছে ভারতীয় চালের দ্বিতীয় চালান

ashugong portআমিরজাদা চৌধুরি, আশুগঞ্জ থেকে ফিরে
ব্রাক্ষণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ আর্ন্তজাতিক নৌ-বন্দরের প্রধান সড়কটি দীর্ঘ দিন যাবৎ সংস্কারের উদ্যোগ না নেয়ায় যানবাহন চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। দেশের অন্যতম ব্যবসায়িক প্রান কেন্দ্র হওয়ায় প্রতিদিন শত শত ট্রাক ও অন্যান্য যানবাহন ঝুকি নিয়ে মালামাল পরিবহন করছে। এতে করে প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হয়ে যানবাহনের মূল্যবান যন্ত্রপাতি নষ্ট হচ্ছে। মারাতœক ভাবে আর্থিক ক্ষতির শিকার হচ্ছেন এ নৌ-বন্দরের ব্যবসায়ীরা। আর সড়ক দিয়ে ট্রাকে পরিবহন হচ্ছে আশুগঞ্জ নৌ-বন্দর ব্যবহার করে ভারতীয় খাদ্য পন্য। ইতিমধ্যেই এ সড়ক ব্যবহার করে গত আগষ্ট মাসে ভারতে ৫হাজার ৮০ মেট্রিকটন খাদ্য পন্য পরিবহন করা হয়েছে। চলতি সাপ্তাহে বাকি ভারতীয় চাল আসছে এই নৌ বন্দরে। এ সড়কটি সংস্কারের কোন উদ্যোগ নিচ্ছে না সংশ্লিষ্ঠ কতৃর্পক্ষ কেউ। 
জানাযায় ২০০৫ সালে আশুগঞ্জ আন্তর্জাতিক নদী বন্দর হিসাবে স্বীকৃতি পাওয়ার পর বন্দরের একমাত্র প্রধান সড়কটির কিছু স্থানে কাজ করা হয়। এর পর আবারো কিছু দিন আগেই নাম মাত্র কিছু স্থানে সংস্কার করা হয়। কিন্তু নির্মান কাজ শেষ না হতেই আবারো সড়কটি চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে। এর পর থেকেই সড়কটির সংস্কারের নামে তালবাহানা করা হচ্ছে।বন্দর ফেরীঘাট থেকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের প্রবেশ স্থান পর্যন্ত প্রায় আধা কিলোমিটার এই গুরুত্বপুর্ণ সড়কটির কার্পেটিং উঠে গিয়ে কোন কোন স্থানে ৩/৪ ফুট বড় বড় গভীর গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই গর্তে পানি জমে কাদায় একাকার হয়ে যায়। যানবাহন চলাচলে বেঘাত সৃষ্টি হয় এবং দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করে। এতে করে প্রতিনিয়তই দুর্ঘটনার শিকার হয়ে বিকল হয়ে পড়ে পন্যবাহী ট্রাকসহ যানবাহন। 
আশুগঞ্জ নৌ বন্দর পরিবহন ব্যবসায়ী ও শ্রমিকরা মনে করে  প্রতিদিন কোটি কোটি টাকার সার, সিমেন্টে, রড ও অন্যান্য নির্মান সামগ্রী ট্রাকে করে ঢাকা, সিলেট, চট্রগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় যাচ্ছে এবং সড়ক পথে  নির্মান সামগ্রী এ বন্দরে আসছে। সড়কটির বেহাল দশার কারণে এ বন্দর থেকে পণ্য পরিবহন করতে খুব একটা রাজি হয় না ট্রাক চালকরা। যারা পরিবহন করতে রাজি হয় তা হলে ভাড়া দিতে হয় বেশি। এতে করে ব্যবসায়ীদের পন্য পরিবহনে খরচ বেড়ে যায় অনেক। সরকার প্রতি বছর এ বন্দর থেকে কোটি কোটি টাকা রাজস্ব আদায় করলেও রাস্তাটি সংস্কারের কোন উদ্যোগ নিচ্ছে না। 
জেলা ট্্রাক মালিক গ্রুপের সভাপতি তৌহিদুল ইসলাম নাসির জানিয়েছেন সড়কটি মেরামত করার জন্য বারবার অবগত করা হলে এখনো মেরামত হয়নি। তবে বিআইডব্লিউটির আশুগঞ্জ নৌ বন্দর পরিদর্শক শাহ আলম জানান অতি দ্রুত বন্দরের এ সড়কটি সংস্কারের জন্য উর্ধ্বতন কতৃপর্ক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। 
তবে বন্দর সংশ্লিষ্ঠরা সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের নিকট অবিলম্বে সড়কটির সংস্কারের দাবী জানিয়েছেন স্থানীয় ব্যবসায়ী ও পরিবহন মালিকরা।