শনিবার, ১৩ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩০শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বোম্‌ চালাকের গলায় দড়ি!

45489_fu1নিজস্ব প্রতিবেদক:বোম্‌ মানে বোম্‌ আঙ্কেল। এবারের কোরবানিতে বেশি চালাকি করতে গিয়েছিলেন। আর করবেন ভাল কথা, সাথে পুরো পরিবারকে জড়িয়েছেন। জড়িয়েছেন না বলে আদাজল খাইয়েছেন বলা ভাল। আধা জল খাইয়েছেন বললেও ভুল হবে না। বরং পুরো জল খাইয়েছেন বললে সবচেয়ে ঠিক বলা হবে। ঘটনা বলছি।

ওষুধ-ইনজেকশনে মোটা তাজা গরু কোরবানি দিবেন না। তাই গ্রাম থেকে পালা গরু নিয়ে আসবেন। মেম আন্টি পইপই করে বুঝিয়েছেন যে, সব মোটা তাজা গরু ক্ষতিকর না। কিন্তু আঙ্কেল অনড়। আশুলিয়ার গ্রাম থেকে গরু নিয়ে আসা হবে। সাথে যাবে কাফি ভাই আর আমি। আঙ্কেল-আন্টির একমাত্র চিজ মিলি জেদ ধরেছে সে-ও যাবে। ছেলে বাটুলকে মেম আন্টি মানে মায়ের কাছে রেখে রওনা হয়েছে আমাদের সাথে। পিকনিক মুডে রওনা দেই সবাই ছোট্ট ট্রলারে। গরু ঠিক করা আছে। ট্রলারেই গরু নিয়ে ফিরবো। পথের জ্যাম এড়াতেই আঙ্কেলের এই ব্যবস্থা। সাদা ধবধবে গরু দেখে সবার পছন্দ হয়। গলায় মালা পরানো। ট্রলারে উঠিয়ে রওনা হই ঢাকার পথে। কাফি ভাই লুঙ্গি পরে রিল্যাক্স হয়ে বসেন। মিলি ঢাকা থেকে প্যাকেট করে আনা স্যান্ডউইচ আর ক্যান্‌ড কোক ধরিয়ে দেয় সবার হাতে। মাঝিকেও। ফুরফুরে মেজাজ আর বাতাসে ট্রলারের ভট ভট-এর সাথে তাল মিলিয়ে মিলি গান ধরে-‘মোরা আর জনমে হংস মিথুন-ও ছিলাম-!’
আধা কিলোমিটার যাইনি, মিলির গানে-ই কিনা জানি না, হঠাৎ বিকট এক ডাকে ৯ রিখটার স্কেলের ঝাঁকি দিয়ে দড়ি ছিঁড়ে পানিতে ঝাঁপ দেয় গরু। সেই বিকট ঝাঁকিতে ছোট্ট ট্রলার ৪৫ ডিগ্রি কাত হয়ে যায়। আর গরুর পর সিরিয়ালি একের পর এক পানিতে ঝপাং ঝপাং করে পড়েন কাফি ভাই, বোম্‌ আঙ্কেল আর মিলি।
সাঁতার না জানায় আমি অবচেতনভাবেই ট্রলারের কিনার আঁকড়ে ধরে ঝুলে থাকি। মাঝি নিমিষে ট্রলারকে সোজা করে ফেলে। ওদিকে মালা পরিহিত গরু ঊর্ধ্বশ্বাসে সাঁতরে নদীর পাড়ের দিকে ছুটছে। আর কাফি ভাই ‘ধর ধর’ চিৎকারে সাঁতরে ধাওয়া করছে গরুকে। বোম্‌ আঙ্কেল-ও ফলো করছেন কাফি ভাইকে। মনে হচ্ছে অলিম্পিক সাঁতারের স্বর্ণপদকের জন্য লড়ছে গরু, কাফি ভাই আর আঙ্কেল! মিলি পড়েছে ট্রলারের কাছেই। ও সাঁতার জানে। হামিং বার্ডের মতো দু’ ডানা নাচিয়ে মিলি ওয়াটার ড্যান্স করছে আর চিঁহি চিঁহি করে চিৎকার করছে- ‘সেভ মি, সেভ মি!’ আঙ্কেল গরুর মায়া ছেড়ে মেয়ের মায়ায় পেছনে ঘোরেন। কিন্তু মাঝি চিৎকার করে বলে, ‘আপনেরা গরু ধরেন, আমি ওনারে ধরতাছি-!’ মাঝি ট্রলার থেকে একটা চিকন লম্বা বাঁশ নিয়ে ওমাথা ভাসমান মিলির দিকে এগিয়ে দেয়। মিলি বাঁশের মাথা চেপে ধরে। আমি আর মাঝি বাঁশ দিয়ে টেনে মিলিকে ট্রলারে ওঠাই। মানুষকে বাঁশ দেয়াটা সব সময় খারাপ না, মাঝে মাঝে বাঁশ দিয়ে মানুষের জীবন বাঁচানো যায়। ট্রলারে উঠে ভেজা চপচপে সালোয়ার কামিজে লাজুক মিলি কানে কানে বলে ‘ছিঃ ছিঃ, ভেজা ড্রেসে আমার লজ্জা লাগছে রে।’ আমি ফিসফিসিয়ে সান্ত্বনা দিয়ে বলি, ‘লজ্জার কিছু নেই। তোকে থ্রি ইডিয়টসের ‘জুবি ডুবি’ গানের ভেজা কারিনার মতো লাগছে। শুধু আমির খান নেই। আসিফ ভাই থাকলে জুবি ডুবির ষোলকলাই পূর্ণ হতো।’
ওদিকে সাঁতরে কিনারের কাছাকাছি পৌঁছে গেছে গরু। কাফি ভাইও ১০০ মিটার ব্রেস্ট স্ট্রোক দিয়ে গরুর কাছাকাছি পৌঁছে গেছেন প্রায়। আঙ্কেল পেছন থেকে মুখ দিয়ে তিমির মতো ফোয়ারা ছেড়ে চিৎকার করে বলছেন, ‘রশিটা ধর, আগে রশিটা ধর!’ রশি ধরে ফেলেন কাফি ভাই। গরু ততক্ষণে তীরে পৌঁছে গেছে। উঠেও গেছে শুকনো পাড়ে। কিন্তু কাফি ভাই গলাপানিতে দাঁড়িয়ে রশি টানাটানি করছেন গরুর সাথে। ওপরে উঠছেন না। আমি আর মিলি ট্রলার থেকে সমস্বরে চিৎকার করে বলি, ‘উপরে ওঠো, গলায় ধরো, আদর করো!’ কিন্তু কিসে কি? কাফি ভাই উপরে ওঠেন না। আমরা কি আর জানি যে, উত্তেজনাকর সাঁতারে কখন যে কাফি ভাই তার পরনের লুঙ্গি জলাঞ্জলি দিয়েছেন? এখন লুঙ্গিহীন উনি না পারছেন পানি থেকে উঠতে, না পারছেন রশি ছাড়তে। গরু ছেড়ে দিলে ইজ্জত থাকে, ইজ্জত ছেড়ে দিলে গরু থাকে। আঙ্কেল শুনে বলেন, ‘তুই খুঁটির মতো দাঁড়িয়ে শক্ত করে ধরে রাখ, আমি উপরে উঠছি।’ এদিকে আমরাও ট্রলার নিয়ে তীরের কাছে চলে এসেছি। ঠিক তখনই গরুর এক ঝটকা টানে কাফি ভাই বিদ্যুৎ চমকের মতো শুকনো তীরে উঠে যান। আর উঠে পড়েই বস্ত্রহীন উনি হতভম্ব হয়ে পড়েন। গরুর গলা থেকেও রশি ছুটে গেছে তখন সেই ঝটকা টানে। রশি হাতে নিয়েই আবারও পানিতে ঝাঁপ দেন কাফি ভাই। জানের চেয়ে মান বড়। আর গরুও ছাড়া পেয়ে রশি ফ্রি হয়ে ঊর্ধ্বশ্বাসে দৌড়াতে দৌড়াতে চোখের নিমিষে হাওয়া হয়ে যায়। আমরা নির্বাক হয়ে যাই কয়েক মুহূর্ত। ভেজা কাপড়ে বোম্‌ আঙ্কেল ট্রলারে উঠে বসেন। গলা পানিতে খালি রশি হাতে কাফি ভাই তখনও দাঁড়িয়ে। গম্ভীর গলায় আঙ্কেল বলেন, ‘তোদের কাছে কোন এক্সট্রা কাপড় আছে ওকে পরানোর জন্য?’ মাঝি মাথা নিচু করে বলে, ‘আমার ঘুমানোর চাদরটা আছে।’ মাঝির চাদর পরেই রশি হাতে ট্রলারে উঠে আসেন কাফি ভাই।
বাসায় মেম আন্টি ঘটনা শুনে হোম থিয়েটারের হাই ভলিউমে বলে ওঠেন, ‘আমি আগেই বলেছিলাম কোরবানির পশু নিয়ে এত হিসাব-নিকাশ কিসের? এখানে হারজিতের কি আছে? সুস্থ পশু আল্লাহর নামে দিলেই হলো। যাও এখন হাট তো প্রায় শেষ। সবাই গিয়ে দেখ গরু পাওয়া যায় কিনা!’
কাঁপা কাঁপা গলায় বলি, ‘যদি না পাওয়া যায়?’ চিৎকার করে বলেন আন্টি, ‘না পাওয়া গেলে আর কি করবি? হাতে তো রশি আছেই। তোর আঙ্কেলের গলায় পরিয়ে দিস!’ ইলেকট্রিক শক খাওয়ার মতো চমকে ওঠে মুখ বিকৃত করে ওঠেন বোম্‌ আঙ্কেল। যেন এক গ্লাস করলার রস গিলেছেন!

এ জাতীয় আরও খবর

ক্যানসার আক্রান্ত অভিনেত্রীর পাশে ফারহান

যুক্তরাষ্ট্রে ঈদ উদযাপনে গোলাগুলি, আহত ৩

ফিলিস্তিন রাষ্ট্রকে স্বীকৃতি দিতে প্রস্তুত স্পেন

গোর-এ-শহীদ ময়দানে ৬ লাখ মুসল্লির ঈদের নামাজ আদায়

একদিনে শীর্ষস্থান হারালেন মুস্তাফিজ

মায়ের জমানো টাকা ও গাড়ি বেচে সিনেমা, হল না পেয়ে কাঁদলেন নায়ক

অপরাজনীতি যেন চিরতরে দূর হয়, প্রার্থনা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

পরিবারের মুখে হাসি ফোটাতে আড়ালেই থাকে তাদের কষ্ট

শুধু বিএনপি নয়, পুরো দেশ দুঃসময় পার করছে : মির্জা ফখরুল

ঈদের আনন্দ থেকে কেউ যেন বঞ্চিত না হয় : রাষ্ট্রপতি

রোজায় এক হাজার ইফতার পার্টি করেছে বিএনপি : প্রধানমন্ত্রী

মিরপুর চিড়িয়াখানায় হাতির আঘাতে কিশোরের মৃত্যু