বুধবার, ১৭ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শিক্ষক নিয়োগে ক্ষমতা হারাচ্ছে পরিচালনা কমিটি

downloadডেস্ক রির্পোট: দেশের বেসরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কলেজ ও মাদ্রাসায় শিক্ষক নিয়োগের একচ্ছত্র ক্ষমতা হারাচ্ছে পরিচালনা কমিটি। এখন থেকে নিবন্ধন পরীক্ষার মাধ্যমে মেধাতালিকা করে তার ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়ার পরিকল্পনা করা হচ্ছে।

জাতীয় শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের নিয়েই এই মেধাতালিকা করা হবে। এর ভিত্তিতে শিক্ষক নিয়োগ দেবে সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পরিচালনা কমিটি। বর্তমান নিয়মেও নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হয়। কিন্তু পরিচালনা কমিটি উত্তীর্ণদের যে কাউকে নিয়োগ দিতে পারে বলে দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতির সুযোগ থাকে।

শিক্ষাসচিব নজরুল ইসলাম খান প্রথম আলোকে বলেন, শিক্ষক নিয়োগে স্বচ্ছতা আনার জন্য এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এটা করা গেলে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে যে অভিযোগ আছে, তা দূর হবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, লিখিত নিবন্ধন পরীক্ষার পর নির্ধারিত নম্বরের মৌখিক পরীক্ষা নিয়ে জেলাভিত্তিক মেধাতালিকা করা হবে। এরপর মেধাক্রম ও চাহিদা অনুযায়ী প্রার্থীদের নিয়োগ দেওয়া হবে। পরিচালনা কমিটি শুধু যোগদানপত্র দেবে। এ জন্য এনটিআরসিএর আইন ও বিধিতে প্রয়োজনীয় পরিবর্তন আনা হবে।

নতুন উদ্যোগটি কেমন হবে জানতে চাইলে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধূরী প্রথম আলোকে বলেন, ‘এ ধরনের সিদ্ধান্ত অনেক আগেই নেওয়া উচিত ছিল। তবে দেরিতে হলেও এ ধরনের উদ্যোগ নেওয়ায় সাধুবাদ জানাই। আমরা পরিচালনা কমিটির ক্ষমতা খর্বের পক্ষে নই। কিন্তু বাস্তবে পরিচালনা কমিটির মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগে বিস্তর দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া যায়। অযোগ্যদের শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেওয়ার ফলে শিক্ষার মানও কমছে। আবার অনেক যোগ্য প্রার্থীও বঞ্চিত হন।’ তিনি মনে করেন, শুধু ভালো সিদ্ধান্ত নিলেই হবে না, সেটা বাস্তবায়ন ও নিয়মিত তদারক করতে হবে।

বর্তমান নিয়মে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগে পরিচালনা কমিটি একচ্ছত্র ক্ষমতার অধিকারী। পরিচালনা কমিটি বিজ্ঞপ্তি দেওয়ার পর নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণরা আবেদন করেন। এরপর পরিচালনা কমিটির তত্ত্বাবধানে একটি নিয়োগ পরীক্ষা হয়। এর ভিত্তিতে শিক্ষক নিয়োগ হয়।

বর্তমান নিয়মে সাংসদেরা নিজ নির্বাচনী এলাকার সর্বোচ্চ চারটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পরিচালনা কমিটির সভাপতি হতে পারেন। অন্য প্রতিষ্ঠানের সভাপতি হন সাংসদের পছন্দের ব্যক্তিরা। ফলে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে রাজনৈতিক বিবেচনা এবং আর্থিক বিষয় মুখ্য হয়ে ওঠে।

এসব পরিচালনা কমিটির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ক্ষমতাসীনদের প্রভাব বিস্তার এবং টাকার ছড়াছড়িও হয়ে থাকে। কয়েক বছর আগে রাজধানীর ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের পরিচালনা কমিটির নির্বাচনে সোনালী ব্যাংকের একজন প্রয়াত সিবিএ নেতা শুধু ভোটারদের আনা-নেওয়ার জন্য ৮০টি গাড়ি ব্যবহার করে ব্যাপক আলোচনার জন্ম দিয়েছিলেন।

সারা দেশে প্রায় ১৯ হাজার বেসরকারি মাধ্যমিক স্কুল, সাড়ে তিন হাজার কলেজ ও সাড়ে নয় হাজার মাদ্রাসা রয়েছে।

পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রতিবছর ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা তাঁর উপজেলার স্কুল-কলেজ ও মাদ্রাসায় কোন কোন বিষয়ে কতজন শিক্ষক নিয়োগ করা প্রয়োজন, তা নির্ধারণ করে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে পাঠাবেন। জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সেটা দেখে নির্ধারিত ছক অনুযায়ী শিক্ষকদের প্রয়োজনীয়তার তথ্য সমন্বয় করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর এবং এনটিআরসিএ কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠাবেন। এনটিআরসিএ ওই তালিকার ওপর ভিত্তি করে বিজ্ঞপ্তি ও পরীক্ষা নিয়ে জেলার চাহিদা অনুযায়ী মেধাতালিকা অনুযায়ী ফল প্রকাশ করবে। মেধাতালিকার ক্রম অনুযায়ী নিয়োগ দিতে হবে। এ বিষয়ে অভিযোগ উঠলে জেলা প্রশাসক শুনানি করে এনটিআরসিএর মতামত নেবেন।

জানতে চাইলে রাজধানীর মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ শাহান আরা বেগম বলেন, নতুন এই উদ্যোগ বাস্তবায়ন করা গেলে তুলনামূলকভাবে ভালো হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিলো বিজিপির আরও ১২ সদস্য

তীব্র গরমের পরে রাজধানীতে স্বস্তির বৃষ্টি

উপজেলা নির্বাচন বর্জনের সিদ্ধান্ত বিএনপি ও জামায়াতের

এখনও কেন ‘জলদস্যু আতঙ্কে’ এমভি আবদুল্লাহ

বাড়ছে তাপমাত্রা, জেনে নিন প্রতিরোধের উপায়

বিএনপির অনেকে উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে : কাদের

অনিবন্ধিত অনলাইনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেবো : তথ্য প্রতিমন্ত্রী

প্রার্থীদের মনোনয়নপত্রের প্রিন্ট কপি চাওয়া যাবে না : ইসি

ইসরায়েলকে সহায়তা করায় জর্ডানে বিক্ষোভ

পণ্যের দাম ঠিক রাখতে বিকল্প ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে : প্রতিমন্ত্রী

লিটারে ১০ টাকা বাড়ল সয়াবিন তেলের দাম

ফরিদপুরে বাস-পিকআপের সংঘর্ষে নিহত বেড়ে ১৪