বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কসবায় মাটির নিচ থেকে স্কুলছাত্র শাহ জালালের লাশ উদ্ধার

lasশেখ কামাল উদ্দিন : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় নিখোঁজের ২ মাস ২০ দিন পর মঙ্গলবার (১৪ অক্টোবর) দুপুরে স্কুলছাত্র মো. শাহ জালাল (৮) এর লাশ গ্রামের বিলের ধানি জমির মাটির নিচ থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। র‌্যাবের অভিযানে দিনাজপুর থেকে গ্রেপ্তার হওয়া প্রধান আসামী সমসের আলীর (১৬) তথ্য অনুযায়ী পুলিশ লাশটি উদ্ধার করেছে। একমাত্র পুত্রকে হারিয়ে পরিবারের সদস্যরা নির্বাক। তাদের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম। 
নিহত মো. শাহ জালাল কসবা উপজেলার কুটি ইউনিয়নের দক্ষিণখার গ্রামের প্রবাসী নজরুল ইসলাম ও গৃহিনী শাহানা বেগমের একমাত্র ছেলে। সে মাইজখার আইডিয়েল স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্র ছিল। 
গ্রেপ্তার হওয়া সমসের আলী একই বাড়ির অলন মিয়ার পুত্র। সে নিহত শাহ জালালের আপন চাচাত ভাই। 
নিহতের পারিবারিক ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে; মো. শাহ জালাল গত ২৬ জুলাই বিকেলে গ্রামের বাড়ির রাস্তায় চাচাত ভাই সমসের আলীর সাথে হাটা-হাটি করছেন। কিন্তু রাত হয়ে গেলেও সে বাড়িতে ফিরে আসেনি। সমসের আলী তাকে দেখেনি বলে পরিবারের সদস্যদের জানায়। এ ঘটনায় ২৭ জুলাই কসবা থানায় সাধারণ ডাইরী করেছে তার বাবা। 
সমসের বাড়ি থেকে পালিয়ে গিয়ে ২১দিন  পরে শাহ জালালের বাবার কাছে ২৭ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবী করে। সে এ সময় শিশুর আওয়াজ শুনিয়েছে। শিশুটি তাকে বলেছে; বাবা আমাকে বাচাও। পরে শাহ জালালের বাবা তার বিরুদ্ধে কসবা থানায় অপহরন ও মুক্তিপনের মামলা করে। বিভিন্ন সময় নজরুল ইসলাম তার ছেলের জন্য বিকাশের মাধ্যমে সমসের আলী টাকা নিয়েছে। সর্বশেষ কুমিল্লায় পৌঁছে দেয়ার কথা বলেও তার কাছ থেকে টাকা নিয়েছে। 
দিনাজপুর র‌্যাপীড এ্যাকশান ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) গত সোমবার দিনাজপুর রেলস্টেশন থেকে সমসের আলীকে গ্রেপ্তার করে রংপুরে ক্যাম্পে নিয়ে আসে। খবর পেয়ে কসবা থানা পুলিশ গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে সমশের আলীকে কসবা থানায় নিয়ে আসে। সে পুলিশের কাছে শাহ জালালকে আরো কয়েকজন মিলে ওইদিনই খুন করে দক্ষিণখার গ্রামের সিঙ্গাডুবা বিলে ধানি জমিতে তার লাশ পুতে রাখার কথা পুলিশের কাছে স্বীকার করে। 
পরে পুলিশ তাকে নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে মাটির নিচে পুতে রাখা লাশটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। পুলিশ নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে।  
নিহতের বাবা নজরুল ইসলাম বলেন; তার একমাত্র পুত্র আর ২ কন্যা সন্তান ছিল। আমি কোন ক্ষতি করিনি। বাড়ির সীমানা নিয়ে ভাইয়ের সাথে বিরোধ থাকলেও বড় ধরনের কোন ঝামেলা ছিল না। কিন্তু সমসের ভাতিজা হলেও নিখোজের ২১ দিন পর ২৭ লাখ টাকা মুক্তিপণ চেয়েছে। ছেলেকে ফেরত দেয়ার কথা বলে প্রায়ই টাকা নিতেন। কিন্তু সে তাকে খুন করে ফেলল। 
কসবা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মফিজ উদ্দিন ভূইয়া বলেন; সমসের আলীকে দিনাজপুর থেকে র‌্যাব গ্রেপ্তার করে রংপুর ক্যাম্পে নিয়ে আসে। সেখান থেকে কসবা থানা পুলিশ তাকে কসবায় এনে জিজ্ঞাসা করায় সে খুনের কথা স্বীকার করেছে। তিনি বলেন; সমসের আলীর তথ্য অনুযায়ী বিলের ধানী জমির মাটির নিচে পুতে রাখা লাশটি উদ্ধার করা হয়েছে।