শনিবার, ২০শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার বিবাহ রবিবারে লাশ

unnamed3-300x254নিজস্ব প্রতিবেদক:পরিবারে তখনও শেষ হয়নি বিবাহ অনুষ্ঠানের আমেজ। দূর-দূরান্তের -স্বজন রয়েই গেছে কনের বাড়ীতে। এরেই মধ্যে রোববার দুপুরে নববধু কলেজ ছাত্রী ফরিদা ইয়াছমিনের মৃত্যুর খবর আসে বাড়ীতে। মুহুর্তে শোকের সাগরে ডুবে যায় কৃষক রফিকুল ইসলামের পরিবার।

নিহতের পরিবারের অভিযোগ ফরিদাকে শারীরিক নির্যাতনের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে তার মাদকাসক্ত স্বামী সোহেল। আর নিহতের পরিবার দাবি ফরিদা গলায় ফাঁস দিয়ে আতহত্যা করেছে। দিনাজপুর কোতোয়ালী থানা পুলিশ ইউডি মামলা করেছে।
রোববার রাত ১২টার দিকে ময়না তদন্ত শেষে ফরিদার লাশ পার্বতীপুরে দাফন করা হয়েছে।
জানা যায়, দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার চন্ডিপুর ইউনিয়নের বড়হরিপুর দাড়িয়াপাড়া গ্রামের রফিকুল ইসলামের কন্যা ফরিদা ইয়াসমিনের সাথে গত বৃহস্পতিবার বিবাহ হয় দিনাজপুর জেলার নিমনগর বালুবাড়ী এলাকার নুর আফরোজ সোহেলের সাথে। সোহেল ঢাকার গুলশানের আইবিল্ড লিঃ এ ইঞ্জিনিয়র হিসেবে কর্মরত। বাবা আসাদুজ্জামান দুলাল চৌধুরী এনএনসি ভিলা নামের একটি ছাত্রী নিবাসের মালিক।
ফরিদার বাবা রফিকুল ইসলাম বলেন, ফরিদা এনএনসি ভিলা ছাত্রী নিবাসে থেকেই দিনাজপুর সরকারী মহিলা কলেজে অনার্সে লেখা পড়া করে আসছিল। পরে নানা প্রলভনে ওই ছাত্রী নিবাসের মালিকের পুত্র সোহেলের সাথে ফরিদার বিয়ে হয়। বিয়ে পরবর্তি শুক্রবার ফরিদাকে আনুষ্ঠানিক ভাবে পার্বতীপুরে নিয়ে আসা হয় এবং শনিবার রাতে তাকে আবার দিনাজপুরে নিয়ে যায় তার স্বামী সোহেল। গত রবিবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে ফরিদা ও তার স্বামী মোবাইল ফোনে কথাও বলে পরিবারের সাথে। এর পর দুপুরের দিকে তার মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়। দিনাজপুর মেডিকেল কলেজে ফরিদার লাশ পাওয়া গেলেও স্বামী সোহেলকে সে সময় পাওয়া যায়নি।
তিনি বলেন, সোহেল মাদকাসক্ত অবস্থায় শারীরিক নির্যাতন করে ফরিদাকে হত্যা করেছে। লাশের গোসলে অংশ নেওয়া দুই নারী নাজমুন নাহার ও আম্বিয়া বলেন, লাশের গলায় কোন ফাঁসির দাগ ছিল না তবে তবে শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে জখমের চিহ্ন ছিল।
ফরিদার স্বামী সোহেলকে মোবাইল ফোনে পাওয়া না গেলেও সোহেলের বাবা দুলাল চৌধুরী বলেন, নববধু নীচতলায় পড়ার বই আনতে গিয়ে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আতহত্যা করেছে। জীবিত আছে ভেবে তাকে পরিবারের সদস্যরা ফাঁস থেকে নামিয়ে হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যায়। নব-বধু মানসিক ভারসাম্যহীন ছিল বলে তিনি দাবি করেন।
দিনাজপুর কোতওয়ালী থানার ওসি আলতাফ হোসেন বলেন, নববধুর মৃত্যুটি রহস্য জনক মনে হওয়ায় ইউডি মামলা করে লাশের ময়না তদন্ত করা হয়েছে। রিপোর্ট পাওয়ার পর প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।