বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয় ও স্টাডি সেন্টার দেশে আসার অনুমতি দিচ্ছে সরকার

somoy_news_297নিজস্ব প্রতিবেদক:উচ্চশিক্ষার নতুন দ্বার খুলতে বিদেশি বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও স্টাডি সেন্টারকে বাংলাদেশে আসার অনুমতি দিচ্ছে সরকার। যদিও বিষয়টিকে ভালো চোখে দেখছেন না শিক্ষাবিদরা। তাদের মতে এটা ‘আত্মঘাতী’ সিদ্ধান্ত। অন্যদিকে, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের দাবি, সুযোগটি কাজে লাগাতে পারলে উচ্চশিক্ষায় বাংলাদেশ হবে দক্ষিণ এশিয়ার প্রাণকেন্দ্র।

 
সরকারের অনুমতি ছাড়াই অর্ধ-যুগেরও বেশি সময় ধরে বাংলাদেশে কার্যক্রম চালিয়ে আসছে বিশ্ববিদ্যালয়সহ ৫০টিরও বেশি বিদেশি উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বছর কয়েক আগে এমন ৫৬টি প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করে বিজ্ঞপ্তি দেয়ার পরও থামানো যায়নি তৎপরতা।
 
এ অবস্থায় তাদেরকে নজরদারিতে আনার জন্য একটি গেজেট জারি করেছে সরকার। ‘বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা বিধিমালা-২০১৪’ নামে সম্প্রতি প্রকাশিত এই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, নির্ধারিত কিছু শর্ত মেনে বিদেশি উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পূর্ণাঙ্গ বা শাখা ক্যাম্পাস স্থাপন ও পরিচালনা করা যাবে। সরকারের এ সিদ্ধান্তকে দেশের শিক্ষাব্যবস্থার জন্য ‘অশনি সংকেত’ হিসেবে দেখছেন শিক্ষাবিদরা।
 
অধ্যাপক ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, এখানে যারা আসবে তারা কেউ আমাদের শিক্ষার উন্নয়নের জন্য আসবেনা, তারা আসবে একান্তই তাদের বাণিজ্যিক লাভের আশায়। ধীরে ধীরে আমাদের নিজস্ব ডিগ্রীগুলো থেকে মানুষের আস্থা উঠে যাবে।
 
অধ্যাপক ড. সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, আমরা এখন আমাদের দেশি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকেই নিয়ন্ত্রণ করতে পারছিনা, এই মুহূর্তে তাই নতুন বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয় আসলে দেশে একটা অরাজকতা সৃষ্টি হবে। দেশের বাইরে টাকা চলে যাওয়ার একটা পথ আমরা খুলে দিচ্ছি।
 
তবে তাদের এসব যুক্তি মানতে নারাজ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান। এই নতুন প্রতিষ্ঠানগুলোকে সঠিকভাবে তদারকির জন্য আলাদা একটি কমিটি গঠন করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।