বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রীতিম্যাচে ২-০ গোলে হেরে গেল আর্জেন্টিনা।

br ar

ক্রীড়া ডেস্কচির প্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিলের সঙ্গে প্রীতিম্যাচে ২-০ গোলে হেরে গেল আর্জেন্টিনা।চীনের বেইজিংয়ে শনিবার সন্ধ্যা ৬টায় শুরু হওয়া ম্যাচে শেষ পর্যংন্ত গোলের দেখা পায়নি মেসিরা। অন্যদিকে ব্রাজিলের দিয়েগো তারদেলি একাই করেন দুই গোল।
খেলার শুরুর দিকে বেশিরভাগ সময় বল দখলে ছিল আর্জেন্টিনার। এরমধ্যেই খেলার ৩০ মিনিটে ব্রাজিলের তারকা অস্কারের ক্রসে প্রথম গোল করেন তারদেলি। এরপর আর্জেন্টিনা পেনাল্টির সুযোগ পেলেও তা মিস করেন দলের অধিনায়ক লিওনেল মেসি। পরবর্তিতে ম্যাচের ২৫ মিনিট বাকি থাকতে দ্বিতীয় গোল করেন সেই তারদেলি। ব্রাজিলের জার্সি গায়ে তার এটি দ্বিতীয় গোল।
ফুটবলের দুই প্রবল প্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল এ পর্যন্ত ৯৫ বার মুখোমুখি হয়েছে। এর মধ্যে জয়ের পাল্লাটা আর্জেন্টিনার দিকে একটু ভারি।এরআগে আর্জেন্টিনার ৩৬ জয়ের বিপরীতে ব্রাজিল জয় পেয়েছিল ৩৫টি ম্যাচে। অপর ২৪টি ম্যাচ ড্র হয়।
তবে বিশ্বকাপে চারবারের সাক্ষাতে আর্জেন্টিনার ১ জয়ের বিপরীতে ব্রাজিল জয় পেয়েছে ২ ম্যাচ। অপর ম্যাচটি ড্র হয়।
গোলসংখ্যায়ও ব্রাজিলের চেয়ে আর্জেন্টিনা কিছুটা এগিয়ে রয়েছে। ব্রাজিলের ১৪৫ গোলের বিপরীতে আর্জেন্টিনা করেছে ১৫১টি গোল।
আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ব্রাজিলের সবচেয়ে বড় ব্যবধানের জয় এসেছিল ১৯৪৫ সালে। রিও ডি জেনেরোতে সেলেকাওরা আর্জেন্টিনাকে ৬-২ গোলের ব্যবধানে পরাজিত করে।
অন্যদিকে ব্রাজিলের বিপক্ষে আর্জেন্টিনার বড় জয়টি এসেছে ১৯৪০ সালে। বুয়েন্স আইরেসে আর্জেন্টিনা ৬-১ গোলে সেলেকাওদের পরাজিত করে।
সর্বশেষ পাঁচবারের সাক্ষাতে দুই দলই সমান দুটি করে জয় পেয়েছে। একটি ম্যাচ ড্র হয়েছে। ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে আর্জেন্টিনাকে ২-০ গোলে হারানো ব্রাজিল পরের বছরই (২০১২ সালের ৯ জুন) মেসির আর্জেন্টিনার কাছে ৪-৩ গোলে পরাজিত হয়। এরপর ১৯ সেপ্টেম্বর মেসির আর্জেন্টিনাকে ২-১ গোলে হারায় ব্রাজিল। দুইমাস পর ফিরতি সাক্ষাতে সেলেকাওদের একই ব্যবধানে পরাজিত করে আর্জেন্টিনা।
আর্জেন্টিনা সঙ্গে প্রীতি ম্যাচে ২-০গোলে জয়ের পর বেইজিংয়ের অলিম্পিক স্টেডিয়ামে ব্রাজিল সমর্থকরা উল্লাসে ফেটে পরে।