বৃহস্পতিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

“ঈদের খাবার হউক সবার”

aaaaডেস্ক রির্পোট:ভাঙ্গা মাটির পাতিলের অংশকে দড়ি দিয়ে বেঁধে টেনে নিয়ে এলো এক শিশু। অপর জন বলছে কত ভাই ? কত দিয়ে কিনলেন, উত্তর – একলক্ষ টাকা। তারপর স্বল্প বস্ত্র পরিহিত দুই শিশু আর কয়েকজনকে ডেকে এনে,কল্পিত সেই পশুকে জবাই করলো। মড়ছে ধরা দেয়ালের পাশে বসে ওরা রান্না চড়াল, রান্না শেষে গোল হয়ে বসে গাছের পাতার উপর মাটি রেখে বিরিয়ানী পোলাও ইত্যাদী কল্পনা করে মুখের কাছাকাছি নিয়ে ভিন্ন এক শব্দে খাবার খাচ্ছে এমন অভিনয় তাদের। দরিদ্র জনগোষ্ঠীর শিশুদের এমন মিছামিছি খেলা নতুন নয়। ঈদ মৌসুমে ধর্নাঢ্য পরিবার গুলো মোটাতাজা বড় বড় কোরবানীর পশু আর বাহারী খাবার দাবার নিয়ে আনন্দ ফ’র্ত করে । অন্যদিকে মিছামিছি অভিনয়ে ঈদের দিনেও অনেক শিশু মেতে থাকে মিছে খাবার খেলায় । 
ঈদের দিনে এই শিশুদের কেউ কেউ ঘুরে বেড়ায় মানুষের বাড়ি বাড়ি, ঠোঙ্গা অথবা ব্যাগ হাতে। কারো ভাগ্যে এক দুটুকরো করে মাংস জমে, কারো ভাগ্যে জুটে না। বাড়ি বাড়ি ঘুরে এমন অনেকে আছে যারা বাহারী রিসিপির রান্নার গন্ধ পায় কিন্তু তৈরী করা খাবার পায় না। শুধু শিশূরাই নয় ঈদের দিনে অনেক দরিদ্র মানুষ দূর দূরান্ত থেকে ছুটে আসে শহরে । বাড়ি বাড়ি মানুষের গেটের কাছে ভীড় করে এক টুকরো মাংসের আশায়। দিনভর না খেয়ে জমানো মাংস নিয়ে অনেকে বসে যায় রাস্তার পাশে ঈদের দিনের মাংস বাজারে। যারা কোরবানী দিতে পারেনি এমন অনেকে এ মাংস বাজারের ক্রেতা হয়ে কিনে নিয়ে যায়। ঈদের দিনে বিকেলে এমন মাংস বাজার জমে বিভিন্ন স্থানে।  মাংস বিক্রির কিছু টাকা দরিদ্র মানুষ চলে যায় যার যার গন্তব্যে, এটা ওটা কিনে খেয়ে কেউ কেই শুয়ে পড়ে স্টেশন বাসস্ট্যান্ড অথবা শহরের রাস্তার পাশে। কেউ খেয়ে কেউ না খেয়ে। এটা গল্প বা কোন কল্প কথা নয়। এমনই বাস্তবতা রয়েছে আমাদের সমাজে। 
ঈদুল আযহার নানা তাৎপর্য রয়েছে। জ্ঞানহীন বলে এতো কিছু বুঝিনা। তবে কোরবানী মাংস বন্টনের যে নিয়ম তাতে বলা হয়েছে, তিন ভাগে বন্টন করতে হবে , একভাগ নিজের জন্য , একভাগ আত্মীয় স্বজন আর অন্যভাগ থাকবে সামর্থবান নয় এমন দরিদ্রদের জন্য। এই বন্টন ব্যবস্থায় ঈদের দিনে কেউ যেন ভুখা না থাকে সেই ব্যাপারটিকেই গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।
কিন্তু এমন ঘটনাও রয়েছে এই বন্টন না মেনে অনেকে উল্টো কিছু করেন। নামী দামী ধনী আত্মীয স্বজন বন্ধু বান্ধবের বাসায় কিছু মাংস দিয়ে বাকী গুলো রেখে দেন ডিপ ফ্রিজে।  
এমন অনেক বাড়ি আছে যে সব বাড়ির গেট থেকে ভীড়ে ঠেলাঠেলিতে অনেক অস্বচ্চল দরিদ্র মানুষ এগিয়ে গিয়েও ধমক খেয়ে খালি হাতে ফিরে আসে। 
গত কয়েকবছর পূর্বে ঈদের দিনে এমন নিরানন্দ অনেক মানুষের সন্ধান পেয়েছিলাম ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেল স্টেশনে। আমার কয়েকজন ছোটবেলার সহপাঠী বন্ধুর একটি উদ্যোগে কয়েক হাজার নিরানন্দ মানুষকে তৃপ্তির হাসি দিয়ে ঢেকুর তুলতে দেখেছি। ভালই লেগেছিল বলে ঈদের দিনে বিকেলে পর থেকে সেই আয়োজনে প্রতিবছরই আমি যাই। সেখানে একটি ব্যানারে লিখা থাকে , “ঈদের খাবার হউক সবার ” আয়োজনে -জীবন জীবনের জন্য। রেল স্টেশনের দক্ষিণ দিকে মৌড়াইল প্রবেশের খালি জায়গায় বিকেল থেকে শুরু হয় রান্না বান্না, ২০ টিরও অধিক বড় ঢেকচিতে মাংস আর খিচুরী রান্না হয়। সন্ধ্যার পর এখানে শুরু হয় খাবার বিতরণ। কয়েক হাজার মানুষ জমে এখানে। এখানে খাবারের সিস্টেম হচ্ছে, যত ইচ্ছা খাওয়া যাবে এ স্থানে বসে। খাবার অনত্র নেয়া যাবে না। এক বেলা খাবার এখানে বসে পেট পুড়ে খায় সেইসব মানুষ যারা সারদিন ঘুরে বেড়িয়েছে মানুষের বাড়ি বাড়ি, রান্নার গন্ধ পেয়েছে তারা কিন্তু রান্না করা খাবার পেটে দিতে পারেনি, এখানে ভীড় করে সেই সব শিশুরা যারা মাটির পাতিল ভাঙ্গা পাতা মাটি নিয়ে মিছামিছি খেলা করে ঈদের দিনেও । এখানে এসে এই শিশুরা সহ ও দরিদ্র মানুষ গুলো একবেলা খাবারের সুযোগ পায়। এই আয়োজনটিতে আমি  অন্যরকম আনন্দ পাই বলে আমিও একজন স্বেচ্ছাসেবক হয়ে প্রতিবছরই অংশ নেই সেখানে। আয়োজনে গিয়ে পুরনো বন্ধুদের সঙ্গে যেমন দেখা সাক্ষাৎ আড্ডা হয়। তেমনি একটি ভাল কাজে সম্পৃক্তও হতে পারি। 
আয়োজনটি শুরু করতে গিয়ে আমার বন্ধু তারেক মাহমুদ বলেছিল , এই আয়োজনটি এখন আমরা করছি , দেখিস একদিন অন্যখানেও হবে। এই বন্ধুটির কথা বিশ্বাস করি সব সময়ই। আমারও বিশ্বাস এমনই আয়োজন এক সময় বিস্তৃত হবে দেশের বিভিন্ন স্থানে , যেই আয়োজনের মাধ্যমে ঈদের দিনে কেউ ঈদ খাবার থেকে বঞ্চিত হবে না, ভুখা থাকবে না। স্থানে স্থানে ঝুলবে অথবা সবার মনে বাসা বাঁধবে এই শ্লোগান “ ঈদের খাবার হউক সবার।

এ জাতীয় আরও খবর

৮৭ হাজার টাকার মদ খান পরীমণি, পার্সেল না দেওয়ায় চালান তাণ্ডব

যুদ্ধ পরিস্থিতি মোকাবিলায় আগাম প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব ঢাকায় আসছেন শনিবার

পি কে হালদারের বিরুদ্ধে প্রথম চার্জশিট দিচ্ছে দুদক

কেমন ছিল জিম্মিদশার দিনগুলো, জানালেন জাহাজের ক্যাপ্টেন রশিদ

ইসরায়েলে ড্রোন হামলা হিজবুল্লাহর, ১৪ সেনাসদস্য আহত

হাথুরুকে নিয়ে ধোঁয়াশা নেই, ২১ এপ্রিল রাতে ফিরছেন ঢাকায়

উপজেলা নির্বাচন সরকারের আরেকটা ভাওতাবাজি : আমীর খসরু

গরমে গতি কমিয়ে ট্রেন চালানোর নির্দেশ

পশ্চিমবঙ্গে ৪৬ ডিগ্রিতে পৌঁছাবে তাপমাত্রা

গুলশানে চুলোচুলি করা সেই ৩ নারী গ্রেপ্তার

দায়িত্বশীল ও টেকসই সমুদ্র ব্যবস্থাপনার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর