শনিবার, ২০শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘তারেক রহমানের স্পর্ধা চুড়ান্ত পর্যায়ে চলে গেছে’

Dru_bg_938358995-300x224 (1)তারেক রহমানের স্পর্ধা চুড়ান্ত পর্যায়ে চলে গেছে। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে অর্বাচিনের মত কথা বলে যাচ্ছে তারেক রহমান। তাই ছেলে তারেক রহমানকে সামাল দেওয়ার জন্য খালেদা জিয়াকে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ম-লীর সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত।
 
শনিবার রাজধানীর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) চলমান রাজনীতি বিষয়ক নৌকা সমর্থক গোষ্ঠী আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এই সব মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগের এই প্রবীণ নেতা।
 
সম্প্রতি লতিফ সিদ্দিকীর দেয়া বক্তব্য সম্মন্ধে সুরঞ্জিত বলেন, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেন, আমাদের রাজনীতিতে বেয়াদবি ও উদ্ধত ব্যবহার পরিহার করতে হবে। লতিফ সিদ্দিকী সম্প্রতি হজ ও তাবলীগ জামায়াত নিয়ে কটূক্তি করে রাজনীতির মাঠ গরম করেছিলেন। কিন্তু গতকাল (শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে সবকিছু পরিষ্কার করে দিয়েছেন। তাকে মন্ত্রিপরিষদ থেকে, এমনকি দল থেকেও বহিষ্কার করা হয়েছে। এরপর এ বিষয়ে আর কোনো বক্তব্য থাকে না।
 
তিনি আরও বলেন, দেশ ও গণতন্ত্র যতদিন থাকবে ততদিন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীরা কিছু বেফাঁস কথা বলবেন এটাই স্বাভাবিক। তাই তাদের নিয়ন্ত্রণ করার জন্য সরকারকে আমি একটি আচরণবিধি করার পরামর্শ দিচ্ছি। তা না হলে মাঝে মাঝে এ ধরনের বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রিপরিষদ ও দলকে বিব্রত পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হতে পারে।
সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেন, আদালতের বিচারকদেরও একটা আচরণ বিধি থাকে। তাই মন্ত্রিপরিষদ সদস্যদের আচরণ নিয়ন্ত্রণের জন্য একটা বিধিমালা করা যায় কি-না তা সরকার ভেবে দেখতে পারে। যদিও মন্ত্রীদের শপথ পাঠ করানোর সময় তাদের আচরণবিধি সম্পর্কে জানানো হয়। কিন্তু তা অনেকে মানেন না।
তিনি বলেন, বিশ্বের উন্নত দেশগুলোতে মন্ত্রীদের কথাবার্তা, চালচলন, আচরণ নিয়ন্ত্রণ করার জন্য আচরণ বিধি আছে। যুক্তরাষ্ট, যুক্তরাজ্য এমনকি ভারতেও এ বিধিমালা আছে। তাই আমাদের দেশেও একটা বিধিমালা করা যায় কি-না তা ভেবে দেখা যায়। মন্ত্রীদের আচরণ শুধু রাজনৈতিক হলেই হবে না, তাদের আচরণ সামাজিকও হতে হবে। কারণ তাদের আচরণ শুধুমাত্র অনুশীলনীয়ই, নয় অনুসরণীয়ও বটে।
 
সুরঞ্জিত বলেন, মন্ত্রীদের আচরণ অনুকরণীয় ও শিষ্ঠাচারপূর্ণ হতে হবে। তারা যা ইচ্ছে তা করতে বা বলতে পারবে না। বর্তমানের এ সমস্যাটি জাতীয়ভাবে ভাবতে হবে। তবেই গণতন্ত্র শক্তিশালী হবে।
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার আন্দোলনের হুমকি সম্পর্কে তিনি বলেন, আমরাও রাজনীতি করি। তার সমস্যা আমরা বুঝি। একটা কিছু বলে মাঠে তো থাকতে হবে। তাই তিনি বারবার এমন আন্দোলনে হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন। ঈদের পর আপনারা যত কঠোর আন্দোলন করবেন, জনগণ তত কঠোরভাবে আপনাদের মোকাবেলা করবে।
 
তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কোন দেশে কোন বিতর্ক নেই। কেউ তাকে নিয়ে বিতর্কে জড়ায় না। মানুষের রাজনৈতিক আদর্শ ভিন্ন হতে পারে, মানুষ বিভিন্ন দলের সমর্থক হতে পারে। চীনের মাও সেতুং, ভারতের মহাত্মা গান্ধী, রাশিয়ার লেনিনকে নিয়ে কেউ কোন কথা বলে না। অথচ তারেক রহমান বঙ্গবন্ধুকে বিতর্কিত করার জন্য অর্বাচিনের মত কথা বলছেন। এখনও সময় আছে ছেলেকে সামাল দিন। আর না হলে পরিণতি ভয়াবহ হবে।
 
তিনি আরও বলেন, রাজনৈতিক কারণে আওয়ামী লীগ-বিএনপি একে অপরের বিরোধী হতে পারে, দুটি দলের আদর্শে, রাজনীতিতে ভিন্নতা থাকতে পারে। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর কোন বিরোধী থাকবে না, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কোন বিতর্ক থাকবে না। রাজনৈতিক ভিন্নতা থাকলেও বঙ্গবন্ধু সকলের।