সোমবার, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শিক্ষক শহিদুলের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির মামলা

news-image

Untitled-1

নিজস্ব প্রতিবেদক : ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের কাজীপাড়াস্থ জামাত নিয়ন্ত্রিত ‘ব্রাহ্মণবাড়িয়া আইডিয়াল হাই একাডেমী’র ইংরেজী শিক্ষক ও একটি ইংরেজী জাতীয় দৈনিকের (ডেইলি স্টার) জেলা প্রতিনিধি শেখ শহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে দশম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে।

হয়রানির শিকার ছাত্রীর বাবা আমানউল্লাহ ভূঁইয়া শামীম এ ঘটনায় ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ডিসি, এসপি, সদর থানার ওসি ও বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

এদিকে ঘটনাটি এলাকায় রটে যাওয়ার পর বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এ ঘটনার প্রতিবাদে ক্লাস বর্জন, ঝাঁড়– মিছিল ও মানবন্ধন কর্মসূচী পালন করেছে।

ছাত্রীর বাবার দায়ের করা অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষক শহিদুল ইসলামের সরকারপাড়ার বাসায় তার মেয়েকে ব্যাচে প্রাইভেট পড়তে দেন। গত ৯ সেপ্টেম্বর ওই শিক্ষক মেয়েটিকে পরদিন ১০ সেপ্টেম্বর সকাল সাতটায় পড়ার জন্য আসতে বলেন। পরদিন ছাত্রীর মা তাকে শিক্ষকের বাসায় নিয়ে যান। এসময় শিক্ষকের কক্ষে অন্য কোন শিক্ষার্থী না থাকায় ছাত্রীর মা তাকে ফিরিয়ে নিয়ে আসতে চান। এসময় শিক্ষক শহিদুল তাকে (ছাত্রীর মা) বলেন, ‘আপনার মেয়ে লেখাপড়ায় একটু দুর্বল বিধায় তাকে আলাদাভাবে বেশী পড়াতে হবে’।  এই বলে ওই ছাত্রীর মাকে আশ্বস্থ করে ফিরিয়ে দেন। এরপর শিক্ষকের বাসা থেকে নিজের বাসায় ফিরে মেয়েটি অস্বাভাবিক আচরণ করে। সারাদিন কিছু না খেয়ে নীরবে কান্না করে সে। কান্নার কারণ জানতে চাইলে মেয়েটি তার মায়ের কাছে সবকিছু খুলে বলে।

মায়ের বরাত দিয়ে লিখিত অভিযোগটিতে বলা হয়, শিক্ষক শহিদুল মেয়েটিকে ইংরেজী পড়া লিখতে দেয়। এর এক পর্যায়ে শহিদুল মেয়েটির হাত ধরে। এরপর তার ল্যাপটপ থেকে কিছু অশ্লীল ছবি দেখিয়ে মেয়েটিকে বলে সে এসব চিনে কিনা। এসময় মেয়েটি সেখান থেকে উঠে আসার চেষ্টা করে। কিন্তু শহিদুল তাকে জড়িয়ে ধরে রাখে এবং চুমু দেয়।

ঘটনার পরদিন মেয়েটি তার মা ও স্বজনদের নিয়ে শহিদুলের বাসায় গেলে তিনি বলেন, ‘আমার দুই গালে জুতা দিয়ে মারুন, তবু ব্যাপারটা এখানেই শেষ করে দিন। এমন কাজ আর কখনও করবেন না বলে ক্ষমা চান তিনি।

এদিকে শিক্ষক শহিদুল ঘটনা স্বীকার করায় ওই ছাত্রীর পরিবার তার বিচার দাবিতে মাঠে নামে। মেয়েটির বাবা প্রথমে বিষয়টি লিখিতভাবে ডিসি ও বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে জানায়। পরে তিনি বিষয়টি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা), পুলিশ সুপার, ইউএনও, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, ডেইলি স্টারের সম্পাদক, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং সবশেষে সদর থানার ওসির কাছেও লিখিতভাবে জানান।

মেয়েটির বাবা এ প্রতিনিধিকে বলেন, ‘একজন শিক্ষক যদি এমন করে তাহলে কীভাবে হবে। ওই শিক্ষকের কঠিন শাস্তি হওয়া উচিত। এর আগেও তিনি নানা অপকর্ম করে অল্পতেই ছাড় পেয়ে গেছেন’।

কাজীপাড়ার ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. শাহআলম বলেন, স্কুলের মেয়েরা এর আগেও তার কাছে যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছে। আমরা চাইনা তার মতো একজন লম্পট শিক্ষক স্কুলে থাকুক।

এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া আইডিয়াল হাই একাডেমীর ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক অলিউর রহমান বলেন, এ ঘটনার পর তিনি (শহিদুল) নিজে থেকেই স্কুলে আসছেন না। তাছাড়া শিক্ষক শহিদুল এর আগেও ২০০২ সালে এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করে। তখন তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছিল। তার চরিত্র ভাল নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, একের পর এক ঘটনা ঘটিয়ে তিনি শিক্ষক সমাজের ইজ্জ্বত নষ্ট করেছেন। তার উপযুক্ত বিচার হওয়া উচিত।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার ওসি আকুল চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর পুলিশ পাঠিয়ে ঘটনার তদন্ত করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ঘটনাটি সত্য বলে প্রতীয়মান হয়েছে। এখন ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তবে এসব অভিযোগের বিষয়ে শিক্ষক শহিদুল ইসলামের বক্তব্য জানার জন্য বারবার চেষ্টা করেও তার সঙ্গে যোগাযোগ সম্ভব হয়নি। মামলার পর থেকে তিনি গা-ঢাকা দিয়েছেন।

এ জাতীয় আরও খবর

দেশে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড ঘটে না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মিসরে গির্জায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিহত ৪১

ফাঁস হওয়া গোপন ভিডিও নিয়ে যা বললেন অঞ্জলি

‘বালুখেকো’ সেলিমকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

পাখির আঘাতে বিকল লন্ডনগামী বিমানের ফ্লাইট

বঙ্গবন্ধু এক্সপ্রেসওয়েতে বাসের ধাক্কায় নিহত ২

বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত বুয়েট শিক্ষার্থীরা

বুয়েটের আন্দোলনকারীরা শিবির: জয়

অনুশীলনে গুলিবিদ্ধ বিজিবি সদস্যের মৃত্যু

সরকারি চাকরিজীবীদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ বিষয়ে করা রিট খারিজ

বঙ্গবন্ধু হত্যার বড় সুবিধাভোগী জিয়া ও তার পরিবার : তথ্যমন্ত্রী

আপনারা সবাই আমারে খায়া ফেললেন : পররাষ্ট্রমন্ত্রী