শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আজকের আবিষ্কার, আগামীর পৃথিবী

fc3e4d45f40956a9a5b9057dcb45dde1-6

পানি থেকেই হবে জ্বালানি, যোগাযোগের জন্য লাগবে না অন্য কোন মাধ্যম। মস্তিষ্ক থেকে মস্তিষ্কে সরাসরি হবে আলাপন। আগামী কিছু আবিষ্কারের কথা জানুন
লাইটবাল্বের আবিষ্কারক টমাস আলভা এডিসন বলে গিয়েছেন, যেকোনো আবিষ্কারের জন্য দুটি জিনিস প্রয়োজন কল্পনা ও খুঁটখাট অপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র। কল্পনাশক্তিকে কাজে লাগিয়ে যেকোনো অসাধ্যকে জয় করা সম্ভব।

পানি থেকে জ্বালানি
বাকি পৃথিবীও কিন্তু বসে নেই। গ্লাসগো বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকেরা ইতিমধ্যেই পানি থেকে কীভাবে হাইড্রোজেন জ্বালানি প্রস্তুত করা সম্ভব, তা নিয়ে ব্যাপক হইচই শুরু করে দিয়েছেন। ‘সায়েন্স’ জার্নালে প্রকাশিত একটি প্রবন্ধে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক লি ক্রনিন জানিয়েছেন, তঁাদের পদ্ধতি অনুযায়ী হাইড্রোজেনকে এক বিশেষ তরল পদার্থের সাহায্যে অজৈব জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। এতে আলাদা করে কোনো বিদু্যৎ বা এনার্জি খরচ হবে না, বরং সূর্য আর বাতাস থেকে যে শক্তি দিয়ে পানি তৈরি হয়, তা দিয়েই হাইড্রোজেন জ্বালানি তৈরি করা যাবে।

878d2a6047021966276ceed2f5e808bb-8অক্টোপাসরোবাটিক হাত
বিজ্ঞানী মহলে অক্টোপাস বেশ জনপ্রিয় আর ব্যস্ত প্রাণী। বিশ্বকাপে ভবিষ্যদ্বাণী করার পাশাপাশি অক্টোপাসকে নানা বৈজ্ঞানিক গবেষণায়ও অনুপ্রেরণা দিতে হয়। এ যুগের সেরা কিছু আবিষ্কার যেমন ‘সাকশন কাপ’ (যা রোবটদের যেকোনো বস্তুকে ধরতে সাহায্য করে) অথবা আট-পা ওয়ালা আন্ডারওয়াটার রোবট (যা পানির িনচে সাঁতার কাটতে পারে এবং ভারী যেকোনো কিছু বহন করতে পারে) এই অক্টোপাসকে অনুসরণ করেই তৈির করা হয়েছে। এ বছর অক্টোপাসের আটটি শুঁড়ের অবলম্বনে এমআইটির দারবেলোফ ল্যাবরেটরি পরিধানযোগ্য রোবোটিক হাতের মডেল তৈরী করেছে। নিজের হাতের গতির সঙ্গে মিল রেখে বিপজ্জনক কাজে কর্মরত শ্রমিকেরা এই বাড়তি হাত ব্যবহার করতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে নিজ হাত ব্যবহার না করলেও চলবে, রোবোটিক হাত স্বাভাবিক হাতের চালনা অনুকরণ করে একই দক্ষতার সঙ্গে বিপজ্জনক কাজটি সম্পন্ন করবে।
সত্যিকারের টেলিপ্যাথি
হাতের পাশাপাশি মস্তিষ্ক এখন বৈজ্ঞানিক গবেষণায় বেশ এগিয়ে গেছে। ফ্রান্স, যুক্তরাষ্ট্র ও স্পেনের বিজ্ঞানীরা মিলে ইতিমধ্যে বিশ্বের প্রথম ‘টেলিপ্যাথি’ করতে সফল হয়েছেন। ইলেকট্রোএনসিফ্যালোগ্রাম নামক এক প্রযুক্তির মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করে ফ্রান্স ও ভারতে অবস্থানরত দুই বিজ্ঞানী মস্তিষ্কের সিগন্যাল দিয়ে একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। এই যোগাযোগের ফলে কোনো কথা বা ইঙ্গিত ছাড়াই তাঁরা দুটি মস্তিষ্কের মধ্যে কিছু শব্দ আদান–প্রদান করেছেন, যা এ সময়ের সবচেয়ে চাঞ্চল্যকর স্নায়ুবিজ্ঞান গবেষণা হিসেবে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।
মহাশূন্যে উড়াল দিল ভারতের মহাকাশযান।

fb7d47a19220b6442dd8927bf07eead6-7বায়োনিক ব্রেন

আরএমআইটির বিজ্ঞানীরা মস্তিষ্কের মেমরি (স্মৃতি) কোষকে অনুকরণ করে আরও শক্তিশালী মেমরি যন্ত্র তৈরি করতে সফল হয়েছেন। এ অত্যাধুনিক যন্ত্র আকারে ক্ষুদ্র ও স্বাভাবিকের তুলনায় কয়েক গুণ বেশি গতিসম্পন্ন। আলাদাভাবে মেমরি যন্ত্রের পাশাপাশি একই প্রযুক্তি দিয়ে কম্পিউটার মাদারবোর্ড ও মেমরিকে আরও কার্যকর করা যাবে, জানালেন আরএমআইটির গবেষক শরৎ শ্রীরাম। পুরোপুরি মস্তিষ্কের সিগন্যাল সিস্টেমকে অনুকরণ করে যেকোনো যন্ত্রকে ‘বায়োনিক ব্রেন’-এর কাছাকাছি নিয়ে আসা সম্ভব আর এ আবিষ্কার সেই সুদূরপ্রসারী যাত্রার একটি মাইলফলক।

মহাকাশে ভারতীয় যান
গত মাসের ২৪ তারিখ ভারতীয় মহাকাশযান ‘মঙ্গলায়ন’ যখন মঙ্গলগ্রহের কক্ষপথে প্রবেশ করল, তখন পৃথিবীর প্রতিটি টেলিভিশনই তাদের ব্রেকিং নিউজ়ে এটি সম্প্রচার করতে ব্যস্ত। যুক্তরাষ্ট্র আর চীনের মতো শক্তিশালী রাষ্ট্রের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমাদের উপমহাদেশের কোনো মহাকাশযান মঙ্গলগ্রহ পর্যন্ত পৌঁছে গিয়েছে, তা সত্যিকার অর্থেই তাক লাগিয়ে দেওয়ার মতো। ইন্ডিয়ান স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশনের (আইএসআরও) চেয়ারম্যান রাধাকৃষ্ণানের ভাষ্য অনুযায়ী, মাত্র ৭৪ মিলিয়ন ডলার খরচ করে এ মিশনটি সফল হয়েছে; যেকোনো মহাকাশ গবেষণায় ব্যয় করা অর্থের চেয়ে অনেক অংশেই কম।