শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঝাড়ু হাতে রাস্তায় মোদি

2ee8c75123ddb7a3def3a34983ce8a57-37নতুন ভারত গড়ার কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। আর এ পরিকল্পনার অংশ হিসেবেই ভারতকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন একটি দেশে পরিণত করার স্বপ্ন দেখেন তিনি। এ পরিচ্ছন্নতার অর্থ হলো, ঘরের শৌচাগার থেকে শুরু করে বড়-ছোট সব রাস্তাঘাট হবে স্বাস্থ্যকর আর জঞ্জালমুক্ত। সে স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে বক্তৃতায় থেমে না গিয়ে নিজেই ঝাড়ু হাতে মাঠে নামলেন মোদি। খবর এনডিটিভি, এএফপি ও পিটিআইয়ের।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে নয়াদিল্লির ইন্ডিয়া গেটে রাজপথ ঝাড়ু দিতে নেমে পড়েন নরেন্দ্র মোদি। এ দিনটি বেছে নেওয়ার কারণ, ২ অক্টোবর ছিল মহাত্মা গান্ধীর ১৪৫তম জন্মদিন। পরিচ্ছন্ন, জঞ্জালের ঝঞ্ঝাটমুক্ত ভারত গড়ার স্বপ্ন ছিল তাঁর চোখেও। তাই গান্ধীর নাম নিয়েই ভারতে এযাবৎকালের সবচেয়ে বড় পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালিয়ে ইতিহাস গড়লেন মোদি।

২০১৯ সালে হবে মহাত্মা গান্ধীর সার্ধশততম জন্মবার্ষিকী। সে দিনটি সামনে রেখে পাঁচ বছরব্যাপী এ পরিচ্ছন্নতা অভিযানের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রী আগেই দিয়েছিলেন। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে অংশগ্রহণ শেষে দেশে ফেরার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ভ্রমণের ক্লান্তি ভুলে হাতে ঝাড়ু তুলে নেন তিনি।

‘স্বচ্ছ ভারত অভিযান’ বা ‘ক্লিন ইন্ডিয়া ক্যাম্পেইন’ নামে এ কর্মসূচি উদ্বোধনের সময় মোদির সঙ্গে অংশ নেন গোয়ার গভর্নর মৃদুলা সিং, খ্যাতিমান ক্রিকেটার শচীন টেন্ডুলকার, যোগগুরু বাবা রামদেব, কংগ্রেস নেতা সাবেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শশী থারুর, জনপ্রিয় অভিনেতা কমল হাসান, আমির খান, সালমান খান, অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া, শিল্পপতি অনিল আম্বানি প্রমুখ। অভিযানে দেশজুড়ে ৩০ লাখ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী অংশ নেন। সরকারি কর্মকর্তারা বলছেন, পাঁচ বছরব্যাপী এই অভিযানে খরচ হবে ৬২ হাজার কোটি রুপির বেশি।

মন্ত্রী ও সরকারি কর্মকর্তাদের পাশাপাশি স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনের পাশে পরিচ্ছন্নতা অভিযানে নামেন আম আদমি পার্টির (এএপি) প্রধান ও দিল্লির সাবেক মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। দেশজুড়ে ঝাড়ু হাতে জঞ্জাল সাফ করেছেন অসংখ্য সাধারণ মানুষ আর স্কুল-কলেজের হাজারো শিক্ষার্থীও।

মোদির নিন্দুকেরা এ নিয়ে নানা কথা বলছেন। প্রথমবারের মতো মহাত্মা গান্ধীর জন্মদিনের সরকারি ছুটি বাতিল করে এ অভিযান চালানোয় অনেকে ক্ষুব্ধ। তবে এসব সমালোচনা গায়ে মাখছেন না মোদি। রাস্তা ঝাড়ু দেওয়া শুরু করার আগে দেওয়া ২৫ মিনিটের ভাষণে তিনি বলেন, ‘এটি আমার দেশাত্মবোধ থেকে উৎসারিত, রাজনীতি থেকে নয়। আমরা এ কাজ রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকে করছি না।’

ইন্ডিয়া গেটের কর্মসূচিতে অংশ নিতে যাওয়ার পথে এক জায়গায় আবর্জনা দেখে সেখানে থেমে ঝাড়ু দেন মোদি। তারপর পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের কলোনি বাল্মীকি বস্তিতে পরিচ্ছন্নতা অভিযানে অংশ নেন।