বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঈদকে সামনে রেখে ব্যস্ত সময় পার করছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কামার শিল্পীরা

kamerনিজস্ব প্রতিবেদক : আর কয়েক দিন পরই ঈদ উল আযাহা। ঈদকে সামনে রেখে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কামারপল্লীতে ব্যস্ত সময় পার করেছে শিল্পীরা। সূর্যোদয়ের পূর্ব থেকে মাঝ রাত পর্যন্ত কামারপাড়া মুখরিত লোহা-হাতুড়ির ঠনা ঠন্ , ঠনা ঠন্ শব্দে। তারপরও তারা ভাল নেই। শুধু মাত্র বিশেষ দিবসে তাদের কদর বাড়লেও বছরের অন্যান্য সময় থাকতে হয় অনাদরে। এ কারণে এ পেশা থেকেও মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন অনেকে। 

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার গোর্কণঘাটের কামারদের এক সময়  দেশব্যাপী খুব কদর ছিল। কৃষিনির্ভর এ জেলায় এ বিশাল উপজেলার কৃষক ও গৃহস্তদের নিত্য প্রয়োজনীয় লৌহযন্ত্রের চাহিদা মিটিয়ে পার্শ্ববর্তী অন্যান্য জেলা ও উপজেলায় বিক্রি হতো কামারের হাতের তৈরি বিভিন্ন লৌহযন্ত্র। কিন্তু এখন আর সে দিন নেই। শুধুমাত্র বিশেষ দিবসে তাদের কদর বাড়ে। আসছে কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে কামার শিল্পীরা দা, ছুরি, কোড়াল,বটি তৈরিতে ব্যস্ত থাকলেও দেশ-বিদেশের মেশিনের তৈরি বিভিন্ন যন্ত্রপাতির বাজার দখল করায় এখন আর কামার শিল্পের অতি প্রয়োজনীয় কাচামাল লোহার ক্রমাগত মূল্যবৃদ্ধির ফলে বাজার দরে রাখতে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাদের। মেশিনের তৈরি পন্যের সয়লাভ ও কামরের তৈরি পন্য চাহিদা না থাকার ফলে বাধ্য হয়ে দলে দলে কামারশিল্পীরা ছেঁড়ে দিচ্ছে তাদের নিজস্ব পেশা।

ঈদকে সামনে রেখে কামার শিল্পীরা ব্যস্ত সময় কাটালে ও তারা খুশি নন। কেননা বছরের একবার কাজের চাপ থাকলে ও সারা বছর বেকার বসে থাকতে হয়। বংশগত প্রথার কারণে তারা এ পেশা ধরে রেখেছেন। 

কামার শিল্পীদের হাতের তৈরী করা লৌহযন্ত্র বিক্রিতারা জানান ব্রাহ্মণবাড়িয়ার গোর্কণঘাটের কামারদের   কদর সারা দেশ জুড়ে। এখানকার তৈরী করা পণ্য রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে সরবরাহ করা হয়।

কামার শিল্পীরা তাদের পৈত্রিক পেশা ছেড়ে বিভিন্ন পেশায় যোগ দেওয়ায়, এক সময় হয়তো কামার শিল্প ছবির ফ্রেমে বাধা থাকবে। আগামী প্রজন্মকে হয়তো তখন ছবি দেখিয়ে পরিচয় করাতে হবে কামার শিল্পকে। তাই সে অবস্থার হাত থেকে কামার শিল্পকে বাঁচাতে সরকারের সু-দৃষ্টির প্রয়োজন বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।