রবিবার, ৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘যেভাবে বলব, সেভাবে করবি ও বলবি নইলে মা-বোন বাঁচবে না’

14_135415একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা-মামলায় জজ মিয়াকে গ্রেপ্তারের পর পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) অফিসে নিয়ে কর্মকর্তারা বলতেন, 'বাবা, যেভাবে বলব, সেভাবে করবি ও বলবি, নইলে তোর মা-বোন বাঁচবে না।' আবার তাঁকে কবরে পাঠানোর হুমকিও দেওয়া হয়েছিল। এসব কারণে জজ মিয়া সাজানো ও মিথ্যা স্বীকারোক্তি দেন আদালতে।

গতকাল মঙ্গলবার একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা-মামলায় সাক্ষ্য দিতে গিয়ে এমন কথা জানান জজ মিয়া ওরফে জালাল আহম্মেদ। গ্রেনেড হামলার ঘটনায় দায়ের করা হত্যা ও বিস্ফোরক মামলায় ১০৪তম সাক্ষী হিসেবে সাক্ষ্য দেন তিনি। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের সামনে ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১-এর বিশেষ এজলাসে সাক্ষ্যগ্রহণ হয়। বিচারক শাহেদ নুর উদ্দিন জজ মিয়ার জবানবন্দি নেন। আগামী ১৩ ও ১৪ অক্টোবর তাঁকে আসামিপক্ষের জেরা করার জন্য তারিখ ধার্য করা হয়েছে। এর আগে জজ মিয়ার মা ও বোন আদালতে সাক্ষ্য দেন।

প্রসঙ্গত, ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে ২০০৫ সালে জজ মিয়াকে আটক করে বহু আলোচিত 'জজ মিয়া নাটক' সাজানো হয়। কিন্তু ২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে জজ মিয়া নাটকের অবসান হয়। তদন্তে জানা যায়, একুশে আগস্টের ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে জজ মিয়া নাটক সাজানো হয়েছিল।

জজ মিয়া গতকাল তাঁর জবানবন্দিতে বলেন, তিনি গ্রেপ্তার হওয়ার আগে গ্রামের বাড়ি নোয়াখালী জেলার সেনবাগে ছিলেন। ২০০৫ সালের ৯ জুন তিনি অসুস্থ অবস্থায় বাজারে ওষুধ কিনতে গেলে মোখলেছ চৌকিদারের সঙ্গে দেখা হয়। চৌকিদার তাঁকে বলেন, 'তোমার নামে স্মাগলিংয়ের মামলা আছে। ওই মামলায় ওয়ারেন্টও আছে।' এ কথা বলে চৌকিদার থানায় ফোন করেন। থানা থেকে পুলিশ গিয়ে তাঁকে সেনবাগ থানায় নিয়ে যায়। থানার এসআই রফিক জজ মিয়াকে জানান, এই থানায় কোনো মামলা নেই। ঢাকা থেকে ওয়ারেন্ট এসেছে। ওই দিনই ঢাকা থেকে সিআইডির এসপি রশিদ সাহেব (মামলার তদন্ত কর্মকর্তা) সেনবাগ থানায় যান। জজ মিয়ার চোখ-মুখ বেঁধে থানা থেকে মাইক্রোবাসে করে ঢাকা নিয়ে আসেন তিনি।

জজ মিয়া বলেন, 'রশিদ সাহেব আমাকে বলেন, তুমি বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে গ্রেনেড হামলা করেছ। তখন আমি বলি, না স্যার আমি ঘটনা সম্পর্কে কিছুই জানি না। এ কথা বলার পর তিনি আমাকে মারধর করেন। এসপি বলেন, তুই যদি এটা স্বীকার না করিস, তাহলে অন্য মামলায় আসামি করে তোকে ক্রসফায়ারে দিয়ে দেব। তোকে মেরে কবরে পাঠিয়ে দেব।'

জজ মিয়া আরো বলেন, 'এরপর চোখ বাঁধা অবস্থায় আমাকে ঢাকায় নিয়ে আসা হয়। ঢাকায় আসার পর চোখ খুললে আমি দেখি, সাদা পোশাকধারী কয়েকজন পুলিশ। তাদের কাছ থেকে জানতে পারি, এটা মালিবাগের সিআইডি অফিস। এরপর হামলায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার না করলে তাঁরা আমার ফ্যামিলির সদস্যদের মেরে ফেলবেন বলে হুমকি দেন। তাঁরা বলেন, আমরা যেভাবে বলি, তোকে সেভাবে শুনতে হবে। আমাদের কথা শুনলে তুই বেঁচে যাবি। কথাগুলো বলেন সিআইডির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। তখন আমি বলি, স্যার, তাহলে আমাকে কিভাবে বাঁচাবেন? উত্তরে তাঁরা জানান, এ মামলায় আমাকে রাজসাক্ষী রাখা হয়েছে, আমার ফ্যামিলিকে তাঁরা দেখবেন।

এ জাতীয় আরও খবর

দেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্র বানিয়েছে আওয়ামী লীগ : ফখরুল

৯ বছর পর জিম্বাবুয়ের কাছে বাংলাদেশের সিরিজ হার

বাংলাদেশকে ৩০ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক

বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে হত্যা মামলার আসামিকে কুপিয়ে খুন

সরকারের উন্নয়নের ফানুস ফুটো হয়ে যাচ্ছে: সাকি

কিয়ারা আপনার প্যান্ট কোথায়, প্রশ্ন নেটিজেনদের

হাঁটুর অস্ত্রোপচারের পর দোয়া চাইলেন শোয়েব আখতার

চীন সীমান্তে সামরিক মহড়া চালাবে যুক্তরাষ্ট্র-ভারত

শিল্পাঞ্চলে আলাদা সাপ্তাহিক ছুটির ভাবনা

সরকার নিরুপায় হয়ে জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়েছে : কাদের

মিরাজের শিকারে জিম্বাবুয়ের তৃতীয় উইকেট

পুলিশের গাড়িতে বাসের ধাক্কা, কনস্টেবলের প্রাণ গেল