শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হজে আল্লাহর প্রতি চূড়ান্ত আনুগত্যের প্রকাশ ঘটে

downloadহজ পালনের পুরো বিষয়ের সাথেই আল্লাহর প্রতি বান্দার আনুগত্য এবং তার কাছে নিজেকে সমর্পণের চূড়ান্ত প্রকাশ ঘটে। হজযাত্রীর হজে যাওয়ার পরিকল্পনা গ্রহণের পর থেকেই তার মধ্যে আল্লাহর ঘর দর্শন ও আল্লাহর সান্নিধ্য লাভের তীব্র আকাক্সাজনিত আবেগ সৃষ্টি হয়, যা ক্রমেই বাড়তে থাকে। একপর্যায়ে পবিত্র কাবা দর্শনের পর সেই আবেগের চূড়ান্ত বহিঃপ্রকাশ ঘটে। আল্লাহর কাছে নিজের উপস্থিতির জানান দিতে তিনি উচ্চারণ করেন, ‘লাব্বায়িক আল্লাহুমা লাব্বায়িক…।’
হজের উদ্দেশে রওনা দেয়ার পর থেকেই হজ পালনে একনিষ্ঠতার জন্য হজ পালনেচ্ছু ব্যক্তিকে বিশেষ পোশাক পরিধান করতে হয়। কিছু বৈধ কাজ থেকেও তাকে বিরত থাকতে হয়। শরিয়তের পরিভাষায় যাকে ‘ইহরাম’ বলা হয়। মক্কার চার দিকে বিভিন্ন এলাকার মানুষের জন্য নির্দিষ্ট কিছু স্থান চিহ্নিত করা আছে যেগুলো পার হওয়ার আগে হাজীদের অবশ্যই ইহরাম বাঁধতে হয়। বর্তমানে হাজীরা বিমানে যাতায়াত করে থাকেন বলে স্ব স্ব দেশ থেকে রওনা হওয়ার সময়ই ইহরাম বেঁধে ফেলেন। 
নামাজের জন্য শুরুতেই তাকবির-ই তাহরিমা যেমন জরুরি তেমনি হজের শুরুতে ইহরামও জরুরি। হাজীদের মধ্যে পূর্ণ ঐক্য ও অভিন্নতা প্রকাশের সাথে সাথে বিনয় ও নম্রতা প্রকাশের উদ্দেশ্যে হজ পালনকালে বিশেষ পোশাক (সেলাইবিহীন দু’টি চাদর, যার একটি শরীরের ওপরের অংশে এবং বাকিটি শরীরের নিচের অংশে লুঙ্গি হিসেবে) পরতে হয়। মাথায় পাগড়ি, টুপি বা অন্য কিছু পরিধান করা, পায়ে জুতা অথবা মোজা পরিধান করা এবং কোনো সেলাইযুক্ত বস্ত্র পরিধান করা যাবে না। পশুপাখি শিকার করা, স্ত্রীর সাথে মেলামেশা, অশ্লীল বইপত্র পড়া, অপ্রয়োজনীয় কথাবার্তা বলাও বারণ আছে এ সময়ে। সাধারণত হাজীরা ইহরাম বাঁধার পর বেশি করে দরুদ ও ইস্তেগফার এবং উচ্চৈঃস্বরে তালবিয়া পাঠ করেন। তালবিয়ার এই অংশ বেশি পড়া হয়, ‘লাব্বায়িক আল্লাহুম্মা লাব্বায়িক, লা শারিকালাকা লাব্বায়িক, ইন্নাল হামদা ওয়ান্নিঈমাতি লাকা ওয়াল মুলকা লাকা লা শারিকালাকা।’ অর্থাৎ, হে আল্লাহ, আমি তোমার দরবারে উপস্থিত! আমি তোমার দরবারে উপস্থিত! তোমার কোনো শরিক নেই। আমি তোমার দরবারে উপস্থিত! যাবতীয় প্রশংসা ও নিয়ামাত তোমারই। আর রাজত্বও তোমার, তোমার কোনো শরিক নেই। এসব শব্দ উচ্চারণের মধ্য দিয়ে বান্দার আল্লাহর প্রতি আনুগত্ব ও দাসত্ব প্রকাশ পায়। এসব বাক্য বারবার উচ্চারণের মধ্য দিয়ে আন্তরে সে ভাব উদিত হতে থাকে। 
শাহ্ ওয়ালী উল্লাহ রহ:-এর ভাষায়, ইহরামের মাধ্যমে নিষ্ঠার সাথে আল্লাহ তায়ালার প্রতি সম্মান ও আবেগপূর্ণ ভালোবাসা সজ্ঞানে সচেতনভাবে প্রকাশ করা হয়। মানুষ তার প্রবৃত্তির কামনা-বাসনাগুলো, প্রিয় অভ্যাসগুলো, সাজসজ্জা ও আরাম-আয়েশ ত্যাগ করে আল্লাহর সামনে নিজেকে বিনীত ও বিনম্র অবস্থায় উপস্থাপন করে। 
মূলত হজের জন্য পা বাড়ানো থেকে শুরু করে যাবতীয় কাজ সম্পন্ন করা পর্যন্ত পোশাক-আশাক, কথা-কাজ, চিন্তা-চেতনায় সর্বাবস্থায় আল্লাহর প্রতি আনুগত্য, তার প্রতি বিনয়াবত হওয়ার প্রকাশ ঘটে। যা হজের পরেও হাজীদের বাস্তব জীবনে কম বেশি প্রতিফলন ঘটে।