শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ষষ্ঠীর সন্ধ্যায় মণ্ডপে জনজোয়ার । শান্তি ও কল্যাণ কামনায় আজ মহা সপ্তমী ।

2

 

 

 

 

সর্বজনীনের মণ্ডপে দর্শণার্থীদের ঢল। —নিজস্ব চিত্র।

 
নিজস্ব প্রতিবেক : ঠাকুর দেখা শুরু হয়ে গিয়েছিল পঞ্চমীতেই। ষষ্ঠীতে দুই শহরের রাস্তায় একেবারে উপচে পড়া ভিড়। উৎসবের আনন্দে মেতে উঠেছে আট থেকে আশি।

এক পঞ্জিকা মতে দুর্গাপুজো এ বার তিন দিনের। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই উদ্যোক্তারা দশমীতে প্রতিমা বিসর্জন দেন না। উল্টে পঞ্চমীতেই শুরু হয়ে যায় ঠাকুর দেখা। এ বছর বহু পুজোরই উদ্বোধন হয়ে গিয়েছে চতুর্থীতে। তখন অবশ্য অনেক মণ্ডপেরই কাজ বাকি ছিল। তবে ষষ্ঠীতে সব মণ্ডপের সাজই সারা হয়ে যায়। সকাল থেকে শুরু হয়ে যায় মণ্ডপে মণ্ডপে ঘুরে ঠাকুর দেখা।

মঙ্গলবার দুপুর থেকেই ব্রাহ্মণ বড়িয়া শহরে পুজো দেখার ভিড় হতে শুরু করে। এরপর বেলা যত গড়িয়েছে, ভিড়ও তত বেড়েছে। বিভিন্ন গ্রাম থেকেও এদিন অনেকে পুজো দেখতে শহরে আসেন। সারা বছরের দিন যাপনে অন্য মাত্র যোগ করে শারদ্যোৎসব। এখন ব্রাহ্মণ বাড়িয়া শহরের পুজো মানেই নতুন কিছু। নতুন ভাবনা। নতুন চিন্তা। শহরে থিম পুজোই বেশি হয়। নানা সাজের মণ্ডপ, প্রতিমা, আলোকসজ্জা। আগে বড় বাজেটের পুজোগুলোয় বেশি ভিড় হত। এখন সেই ছবিটা বদলেছে। ভিড় টানার নিরিখে পিছিয়ে নেই ছোট বাজেটের পুজোগুলোও। ভিড় টানতে উদ্যোক্তারা পুজোর মাধ্যমে নানান বার্তা তুলে ধরার চেষ্টা করেন। এ বারও পুজোর শহরে ছবিটা একই। দর্শকদের নজড় কাড়তে চেষ্টার কোনও কসুর বাকি রাখেননি কেউই। এদিন দুপুরের পর থেকেই শহরের বিভিন্ন পাড়ার পুজোয় ভিড় হতে শুরু করে। সন্ধ্যা নামার সঙ্গে সঙ্গে ভিড় আরও বেড়েছে। কেউ সপরিবার পুজো দেখতে বেরিয়েছেন। কেউ বা বন্ধুদের সঙ্গে। বাবা- মায়ের সঙ্গে পুজো দেখতে বেরোয় ছোট ছোট ছেলেমেয়েরাও।

মিশ্র-সংস্কৃতির শহর ব্রাহ্মণ বাড়িয়ার বিভিন্ন মণ্ডপে এ দিন সকাল থেকেই সাউন্ড বক্সে বেজেছে বাংলা ও হিন্দি গান। কোথাও আবার ছিল সানাই, আর অবশ্যই ঢাকের বোল।

সাথে মুসলমানদের ঈদের জন্য সর্বত্রই আনন্দের বন্যা বইছে ।