মঙ্গলবার, ১৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১লা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কোরবানির মাসাইল

1412003864.আল্লাহর এক মহান হুকুম কোরবানি আগত। আমরা সবাই দীর্ঘ এক বছর যাবত উন্মুখ হয়ে আছি, কবে বাৎসরিক এ ওয়াজিব হুকুমটি পালনের সুযোগ আসবে। আল্লাহর রাহে পশু জবেহের মধ্য দিয়ে নিজেকে উৎসর্গ করব দরবারে এলাহীতে। ত্যাগ করব যতো পঙ্কিলতা-কদর্যতা। নতুন করে নিজেকে গড়ব আল্লাহর হুকুমের সামনে অবনতমস্তক এক অনুগত বান্দাহরূপে। আমাদের কোরবানি, আমাদের উৎসর্গ যেন পূর্ণতা পায়, যেন শরিয়তে ইসলামিয়্যার আহকাম অনুপুঙ্খ আদায়ের সাধনা করতে পারি, যেন বলতে পারি, ইয়া আল্লাহ! আমি দুর্বলের যতটুকু সাধ্য- চেষ্টা করেছি। আপনি আমার নামাজ, আমার কোরবানি, আমার জীবন, আমার মরণ শুধু আপনার জন্যই কবুল করুন। আপনাদের সে মহানব্রতে কিঞ্চিৎ শরিক থাকার আশায় নিচে প্রশ্নোত্তর আকারে কোরবানির কিছু মাসাইল পেশ করছি।

প্র. কার ওপর কোরবানি ওয়াজিব?

উ. যার মালিকানায় সাড়ে বায়ান্ন ভরি রুপা অথবা (নিত্য প্রয়োজনের অতিরিক্ত) এ পরিমাণ (৫২৫০০ টাকা) সম্পদ বা ব্যবসায়িক মালামাল থাকবে তার ওপরই কোরবানি ওয়াজিব।

প্র. কোরবানি না করে সমপরিমাণ টাকা সদকা করলে ওয়াজিব আদায় হবে কি?

উ. না, কোরবানির দিনসমূহে (১০, ১১, ১২ জিলহজ) কোরবানিই করতে হবে। যদি কোন অপারগতাবশতঃ সময়ের মধ্যে কোরবানি করা কোনোক্রমেই সম্ভব না হয়; পরে টাকা সদকা করা ওয়াজিব।

প্র. পরিবারের সব সদস্যের ওপর কি কোরবানি ওয়াজিব হয়?

উ. সুস্থ মস্তিষ্ক, প্রাপ্তবয়স্ক (বালেগ), সম্পদশালী প্রত্যেক নর-নারীর ওপরই কোরবানি ওয়াজিব, এ ক্ষেত্রে পরিবার বিবেচ্য নয়।

প্র. কয়েক ভাই একত্রে ব্যবসা করে, যাদের যৌথ সম্পদ নেসাব পরিমাণ; পৃথকভাবে কেউ নেসাবের মালিক নয়, তাদের প্রত্যেকের ওপর কি কোরবানি ওয়াজিব?

উ. না, তাদের কারো ওপরই কোরবানি ওয়াজিব নয়।

প্র. কোরবানির উদ্দেশ্যে ক্রয়কৃত পশু মরে গেলেও কি কোরবানি করতে হবে?

উ. নেসাবের মালিক হলে তার ওয়াজিব বাকি থাকবে। মালিক না হলে, অন্য পশু কিনে কোরবানি করতে হবে না।

প্র. মৃতদের পক্ষ থেকে কোরবানি করা যাবে কি?

উ. নেসাবের মালিক হলে প্রথমত নিজের কোরবানি অবশ্যই আদায় করতে হবে, অন্যথায় গোনাহ হবে। মৃতদের পক্ষ থেকে কোরবানি করলে তারা সে সওয়াব প্রাপ্ত হবে।

প্র. কেউ একটি মাদী পশু কোরবানি করার নিয়ত করল। ঘটনাক্রমে পশুটি নিকটবর্তী সময়ে বাচ্চা প্রসব করবে। এমতাবস্থায় ঐ পশুটিই কোরবানি করা কি জরুরি?

উ. যদি মান্নত না করে থাকে শুধু নিয়ত করার কারণে ঐ পশুটিই কোরবানি করা ওয়াজিব হবে না। অন্য পশু দ্বারাও তার কোরবানি আদায় হয়ে যাবে। প্রসব নিকটবর্তী জন্তু জবেহ করার কারণে বাচ্চা মরে যাওয়ার আশঙ্কা থাকলে তা জবেহ করা মাকরুহ। 

প্র. ছেলের অনুমতি ব্যতীত তার পক্ষ থেকে কোরবানি করল এ আশায়, পরে তার থেকে টাকা আদায় করে নিবে- এরূপ কোরবানি শুদ্ধ হবে কি?

উ. ছেলের অজ্ঞাতে কোরবানি করার পর যদি সে টাকা দিয়েও দেয় তবু এ কোরবানি দ্বারা ছেলের ওয়াজিব আদায় হবে না। 

প্র. মুসাফির ছেলের অজ্ঞাতে তার পক্ষ থেকে কোরবানি করলে তা শুদ্ধ হবে কি?

উ. এটা বাবার জন্য নফল। ছেলে মুসাফির হওয়ার কারণে তার ওপর কোরবানি ওয়াজিব নয় বিধায় এ কোরবানি ছেলের পক্ষ থেকে নফল হিসেবে আদায় হবে। (উল্লেখ্য, অন্যের পক্ষ থেকে তাকে না জানিয়ে কোরবানি করে দিলে তার ওয়াজিব কোরবানি আদায় হয় না। তবে নফল কোরবানি অন্যের পক্ষ থেকে করা যায়। যেমনটা আমরা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মৃত বাবা-মা বা অন্যদের জন্য করে থাকি।)

পশু কেমন হবে

প্র. কোন প্রাণী দ্বারা কোরবানি করা যাবে?

উ. যে কোনো চতুষ্পদ গৃহপালিত প্রাণী- গরু, মহিষ, উট (দুই বছর) এবং ছাগল, দুম্বা, ভেড়া (এক বছর) ইত্যাদি। একটি ছোট প্রাণীতে একটি মাত্র কোরবানি আদায় করা যাবে। আর বড় প্রাণীতে এক থেকে সাত পর্যন্ত যে কোনো সংখ্যক ব্যক্তি শরিক হয়ে কোরবানি করতে পারবে। 

প্র. গরু, ছাগল কোরবানি করার সামর্থ্য না থাকলে মুরগি কোরবানি করা যাবে কি?

উ. এরূপ করা মাকরুহ। 

প্র. বয়স পূর্ণ হয়নি এমন প্রাণী দ্বারা কোরবানি করা যাবে কি?

উ. দুম্বা এবং ভেড়া যদি এতটা মোটাতাজা হয় যে, এক বছর পূর্ণ হওয়া পালে ছেড়ে দিলে ছোট মনে হয় না এমন ভেড়া ও দুম্বা দ্বারা কোরবানি হবে। অন্যসব প্রাণীর ক্ষেত্রে বয়স পুরো হওয়া ছাড়া কোরবানি হবে না। স্মরণযোগ্য, যদি বয়স পূর্ণ হওয়ার ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যায় তবে দাঁত শর্ত নয়।     

প্র. লেংড়া প্রাণী দ্বারা কোরবানি আদায় হবে কি?

উ. শুধু তিন পায়ে হাঁটে এমন প্রাণী দ্বারা কোরবানি করা যাবে না। যদি লেংড়া পাটিও মাটিতে রাখে এবং হাঁটার সময় ব্যবহার করে তবে তা দ্বারা কোরবানি করা যাবে।

প্র. শিং ভাঙা প্রাণী দ্বারা কোরবানি আদায় হবে?

উ. যে প্রাণীর শিং একেবারে গোড়া থেকে উপড়ে ফেলা হয়েছে, তা দ্বারা কোরবানি হবে না। যদি শিং আংশিক (তিন-চতুর্থাংশ হলেও) ভেঙে যায় বা জন্মগতভাবেই শিং না ওঠে; এমন প্রাণী দ্বারা কোরবানি করা যাবে।

প্র. জবেহ করার জন্য শোয়ানের সময় এমন কোনো দোষ সৃষ্টি হলো যা দ্বারা কোরবানি হয় না; এমতাবস্থায় কি করণীয়?

উ. এটাকেই জবেহ করে দিবে, এতে কোরবানি আদায় হয়ে যাবে।    

আমার ওপর কোরবানি ওয়াজিব হলে এ সংক্রান্ত জরুরি মাসআলা জানাও আমার জন্য জরুরি। নিজের জানা না থাকলে যদি কোনো বিষয়ে আমার সন্দেহ সৃষ্টি হয়, মনে খটকা লাগে তবে অবশ্যই কোনো আলেমের স্মরণাপন্ন হব। আল্লাহ আমাদের কোরবানি সহিহ-শুদ্ধভাবে আদায়ের তাওফিক দান করুন।