বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

লতিফ সিদ্দিকীকে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছে হেফাজত

lotif-sহজ ও তাবলিগ নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করায় ডাক-টেলিযোগাযোগ ও তথ্য-প্রযুক্তিমন্ত্রী আবদুল লতিফ সিদ্দিকীকে মন্ত্রিসভা থেকে বহিষ্কারের জন্য ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছে হেফাজতে ইসলাম। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাকে মন্ত্রিসভা থেকে বহিষ্কার করা না হলে গত বছরের ন্যায় ফের আন্দোলনে নামার হুঁশিয়ারি দিয়েছে দলটি।
সোমবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ আল্টিমেটাম দেওয়া হয়।বিবৃতিতে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ বলেন, বিশ্বনবী মুহাম্মদ (স.) পৃথিবীর দেড়শ কোটি মুসলমানের কাছে নিজের জীবনের চাইতে প্রিয় ব্যক্তিত্ব। তিনি মানবতার মুক্তির দূত এবং মহান আল্লাহর প্রেরিত সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বশেষ নবী।
অন্যদিকে হজ মুসলমানদের প্রধান পাঁচটি মৌলিক ধর্মীয় স্তম্ভের অন্যতম। পবিত্র হজ ও হাজীদের কটাক্ষ করে মহানবীকে (স.) বিদ্রুপাত্মক ভাষায় তাচ্ছিল্য করার স্পর্ধা দেখিয়ে বর্তমান সরকারের মন্ত্রী আবদুল লতিফ সিদ্দিকী নিউইয়র্কে যে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য রেখেছেন তা কেবল একজন উগ্র নাস্তিকের পক্ষেই সম্ভব। অবিলম্বে তাকে মন্ত্রিসভা থেকে বহিষ্কার ও ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেওয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তারপূর্বক সর্বোচ্চ শাস্তি প্রদান করতে হবে।
বিবৃতিতে আরও বলা হয়,সরকার যদি মন্ত্রিসভা থেকে তাকে বহিষ্কারসহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থ হয় তবে দেশের লক্ষ-কোটি নবীপ্রেমিক জনতা আবারো ২০১৩ সালের মতো সারাদেশে নাস্তিক-বিরোধী আন্দোলনে নামতে বাধ্য হবে এবং প্রমাণিত হবে আওয়ামী লীগ নাস্তিক-মুরতাদদের দল।
তারা বলেন- আমরা ক্ষুব্ধ, বিস্মিত, স্তম্ভিত ও লজ্জিত এজন্য যে, প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে রাষ্ট্রীয় খরচে বিদেশে গিয়ে আবদুল লতিফ সিদ্দিকী মহানবী (সা.) এর ব্যাপারে জঘন্য কটূক্তি,পবিত্র হজ ও হাজীদের ব্যাপারে চরম আপত্তিকর মন্তব্য এবং তাবলীগ জামাতের ব্যাপারে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করার সাহস পেলেন।
নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘আমরা একই সঙ্গে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করছি- সরকার ও প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যদি তার বিরুদ্ধে যথাযথ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ না করে তাহলে তার জন্য সালমান রুশদী ও তাসলিমা নাসরিনের পরিনতি অপেক্ষা করছে। বাংলাদেশের মাটিতে তাকে পা রাখতে দেওয়া হবে না; সেই সঙ্গে সংখ্যাগরিষ্ঠ নবীপ্রেমিক জনতা সরকারের হঠকারিতারও উপযুক্ত জবাব দেবে।’
বিবৃতিদাতারা হলেন- হেফাজতে ইসলামের সিনিয়র নায়েবে আমির আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী,নায়েবে আমির মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী, মাওলানা শামসুল আলম, মাওলানা শাহ আহমদুল্লাহ আশরাফ, মাওলানা আবদুল মালেক হালিম, মাওলানা তাফাজ্জল হোসাইন হবিগঞ্জ, মুফতি মোজাফফর আহমদ, মাওলানা আবদুল হামিদ পীর সাহেব মধুরপুর ও মহাসচিব মাওলানা জুনাইদ বাবুনগরী।
উল্লেখ্য পবিত্র হজ প্রসঙ্গে ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী বলেন, “আমি কিন্তু হজ আর তাবলিগ জামাতের ঘোরতর বিরোধী। আমি জামায়াতে ইসলামীরও বিরোধী। তবে তার চেয়েও হজ ও তাবলিগ জামাতের বেশি বিরোধী।”
তিনি বলেন, “এ হজে যে কত ম্যানপাওয়ার নষ্ট হয়। হজের জন্য ২০ লাখ লোক আজ সৌদি আরবে গিয়েছে। এদের কোনো কাম নাই। এদের কোনো প্রডাকশন নাই। শুধু রিডাকশন দিচ্ছে। শুধু খাচ্ছে আর দেশের টাকা দিয়ে আসছে।”
মন্ত্রী বলেন, “এভারেজে যদি বাংলাদেশ থেকে এক লাখ লোক হজে যায় প্রত্যেকের পাঁচ লাখ টাকা করে ৫০০ কোটি টাকা খরচ হয়।”
হজ কিভাবে এসে এর ব্যাখ্যা দিয়ে মন্ত্রী বলেন, “আব্দুল্লাহর পুত্র মোহাম্মদ চিন্তা করল এ জাজিরাতুল আরবের লোকেরা কিভাবে চলবে। তারাতো ছিল ডাকাত। তখন একটা ব্যবস্থা করলো যে আমার অনুসাসীরা প্রতিবছর একবার একসাথে মিলিত হবে। এরমধ্য দিয়ে একটা আয়-ইনকামের ব্যবস্থা হবে।”