শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আব্দুস সামাদ স্মরণে ভাষাসৈনিকের ভাষা স্তব্ধ করে দিয়েছে মুক্তিযোদ্ধা ছেলের রক্তস্নাত একটি মৃত্যু -সোপানুল ইসলাম

ad abdus samad“ কারার ঐ লৌহ কপাট
ভেঙ্গে ফেল কররে লোপাট
রক্ত জমাট শিকল পূজার পাষাণবেদী।”
সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধেস্বাধীনতাকামী নজরুলের বিদ্রোহী খর¯্রােতায় ক্ষীপ্ত উল্লাসে জেগে ওঠে এদেশের মানুষের নির্লিপÍ প্রাণ। বাংলার আকাশ যখন মধ্যাহ্ন সূর্যের দীপ্তিতে ভাস্বর এমনি সময়ে ভাষা সৈনিক এডভোকেট আব্দুস সামাদের ধূমকেতুর ন্যায় আবির্ভাব ঘটে। বাঙালি জাতি সেই বীরের জাতি। স্বীয় বুকের তাজা রক্তে পীচ ঢালা পথকে তাঁরা লাল করেছে। আমরা সেই বাঙালি জাতি যাঁরা-                  
“বাঘের সঙ্গে যুদ্ধ করিয়া আমরা বাঁিচয়া আছি,
আমরা হেলায় নাগেরে নাচাই নাগেরি মাথায় নাচি।”
একুশে ফেব্রুয়ারি এমনই এক ভাষাপ্রীতির বরেণ্য কিংবদন্তী। কালের শ্রেষ্ঠ জ্ঞান-তাপস মনীষী এড. আব্দুস সামাদ, হানাদার মুক্ত দেশগড়তে সশস্ত্র ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযোদ্ধে অংশ গ্রহণ করেছিলেন-  
দেশকে শত্রু মুক্ত করতে পিতা ও পুত্র – মোহাম্মদ হেসেন- একত্রে যুদ্ধ করেছে এবং দেশকে অনেক স্বপ্ন নিয়ে – সোনার বাংলা গড়তে স্বাধীন করেছে। অথচ স্বাধীন দেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নিরাপদ আশ্রয়ে থাকা জাতির সর্বকালের শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাকে মোহাম্মদ হোসেনকে পাখির মত গুলি করে র্নিমমভাবে হত্যা করেছে  এই স্বাধীন দেশেরই নির্বোধ যুব সমাজের একাংশ। ১৯৭৪ সালের ৫ এপ্রিল ছাত্র সমাজের নিদারুণ নৈতিক অবক্ষয়ের ফলে উচ্ছৃঙ্খলতার কষাঘাতে পিষ্ট হয়ে ভয়ংকর নৈরাজ্যের বিষ বাষ্পে দগ্ধ হয়ে রক্ত¯্রােতে তলিয়ে গেল এক পিতার স্বপ্ন তরী কলিজার টুকরা বীরমুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ হোসেন।
পৃথিবীর সবচেয়ে ভারী বস্তু – পিতার কাঁধে সন্তানের লাশ-  আর এমনি একটি ভারী লাশ বহন করেছিলেন ৪০ টি বছর আগে-  নিরবে নিভৃতে মানসিক বাক্শক্তিহীন স্তব্ধ পিতা আব্দুস সামাদ।
সন্তানের আঙ্গুলে ধরে পিতা সারাজীবন রাস্তা দেখিয়ে নিয়ে গিয়েছেন স্কুল, কলেজ এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ে। সেই পিতা কেমন করে কাঁধে নিয়ে পরপারের পথে বহন করে গেছেন গৌরবান্বিত সন্তানের বুলেটবিদ্ধ তাজা লাশ। সেদিন নিশ্চয় অ¯্রু ঝরে নি তাঁর চোখ থেকে, ঝরেছে শুধু এক বুক ভাঙ্গা লাল সবুজের রঙিণ রক্ত মাখা পতাকায় কলংকের একটি একটি দাগ। কত কঠিন হৃদয়ে শাণিত শিরে গর্জে ওঠেছিল কোমল আর কঠোরের সংমিশ্রণে বীর বাঙালি-পিতার আইনি লৌহদন্ড! সেদিন বিশ্বাস রাখতে পারে নি কোন বাঙালি আইন উপদেষ্টায়। তাই নিজের মেধায়, নিজের প্রচেষ্টায় নাকে সন্তানের শহীদ লাশের পবিত্র গন্ধ আর চোখে সন্তানের রক্তমাখা বুলেটের গুলিতে ঝাঁঝরা হওয়া রক্তাক্ত শহীদী মুখ, বুকে সন্তানের লাশের নিরাতপ আর্তনাদ — ‘বাবা’ — ওরা আমায় স্বাধীন দেশে একটুও সময় দেয় নি – নি:শ্বাস নিতে। ‘বাবা’— ন্যায়ের প্রতীক যে আইনের জন্য তুমি আমাকে সময় না দিয়ে সেদিন পিতৃ¯েœহ থেকে বঞ্চিত করেছিলে- আজ তোমার সেই আইনকে প্রতিদান দিতে বলো আর বধির থাকতে দিও না- ‘বাবা’– তোমার জীবনের অবিচ্ছেদ্দ অংশ আইনী পেশাকে।
তাই মিথ্যুক, মোনাফিক ও গাদ্দার কাউকে বিশ্বাস না করে নিজেই সন্তানের হত্যার বিচারের রেকর্ড ফাইল রেডি করেছে একমাত্র বিধাতার দেওয়া অসীম শক্তি – রক্তের দামে কেনা পিতৃত্বের ঐশ্বরিক ক্ষমতায়। বহু নির্ঘুম রাতের বলীদানে যুক্তি আর ধারা, উপ-ধারা দিয়ে দাঁড় করিয়েছে দিন-রাত একাকার করে পুত্রের রক্তের হালখাতা। আদালতের এজলাসে দাঁড়িয়ে বেহেস্তবাসী পুত্রের পক্ষে জেরা করেছেন কতটা পুঞ্জিভূত চাপা কষ্টে! কি যে ক্রোধ আর আবেগকে নিয়ন্ত্রন করে ভারডিক্ট করে গেছেন তা শুধু তিনিই জানেন।
এডভোকেট আব্দুস সামাদ এর লেখা “ক্যাম্পাস থেকে গণভবন” বইয়ের ১৯ পৃষ্ঠার শেষ কয়েক লাইনে পিতার আর্তনাদের লোমহর্ষক বর্ণনা মিলে—- মামলায় আসামীদের লক্ষ করে এড. আব্দুস সামাদ বলেছিলেন, “ তোমাদেরও তো পিতা আছে। আমার ছেলেটি কি অপরাধ করেছিল? কেন আমাদের বুক খালি করলে?  — বলার সংগে সংগেই আমি অর্ধচেতন অবস্থায় পড়ে যাই। ‘বাংলার বাণী’র সাংবাদিক নাজিমুদ্দিন মানিক এ করুণ দৃশ্য ‘বাংলার বাণী’তে ফালাও করে প্রকাশ করে।… .. .. ”
যখন তাঁর লেখা ‘ক্যাম্পাস থেকে গণভবন’র পৃষ্ঠা ২৬ পড়ি তখনও কান পেতে পিতার মায়া কান্না শুনতে পাই, “সেদিন আর কি ঘটেছিল তা আমাকে জানতে দেওয়া হয় নাই। মর্ফিয়া ইনজেকশানের চোটে ঘুমিয়েছিলাম না অজ্ঞান হয়ে পড়েছিলাম, তা স্মরণে আসছে না। তবে সে রাতে এক সময়ে যে আমার ‘পাওনা পুরস্কার’ আমার কাছে এসে পৌঁছেছে ততটুকু বুঝেছিলাম। তখনকার অবস্থার বিবরণ অদ্যবধি শুনে যাচ্ছি, এ দেহে যদ্দিন প্রাণ থাকবে হয়তো শুনতেই থাকব কিন্তু নিজের জ্ঞানে সজ্ঞানে তা না দেখা, না জানার ব্যথা আমার রয়ে গেল।”
কি মর্মান্তিক শোক বহন করেছিলেন সারা জীবন তা আমাদের কাছে হয়ে থাকবে- সারা জীবনের কান্না আর প্রশ্ন। তিনি তো উল্লেখ করে গেছেন তিনি জীবদ্দশায় সারা জীবন এই শোক বয়ে বেড়াবেন; তাহলে এখন তাঁর মৃত্যুর পর আজ কে এই প্রশ্ন গুলো বয়ে বেড়াবে?
তাঁর সততা, ত্যাগ, জ্ঞান-গরিমা, নীতি, নিষ্ঠা বা আদর্শের মূল্য নিয়ে তিনি দীর্ঘ জীবন শুধু প্রশ্ন করে একটি চাপা যন্ত্রণা নিয়ে নষ্ট এই ধূলার ধরণী থেকে বিদায় নিয়ে গেছেন।তাঁর এক সুহৃদ- দেওয়ান ভাইয়ের কাছে লেখা কিছু প্রশ্নের ভেতর পিতা হিসেবে , একজন স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসেবে, একজন সমাজ সেবক হিসেবে নানা বিষয়ে শোক ও ক্ষোভের প্রকাশ করে গেছেন  ৪৪ পৃষ্ঠায়ও, “ দেওয়ান ভাই সুদূর দিল্লী হতে চেয়ে দেখুন … .. .. যে স্বাধীনতার জন্য পিতা-পুত্র প্রাণপণে সংগ্রাম করেছিলাম, বিনিময় কিছুই প্রত্যাশা করি নাই.. .. . ..”
“দেওয়ান ভাই একবার এসে দেখে যান হত্যাকারীরা কীভাবে মোহাম্মদ হোসেনের মত সুন্দর ব্যবহারের, সবল, সুঠাম নির্দোষ নিরপরাধ মুক্তিযোদ্ধা ছাত্রকে ঘুম হতে তুলে নৃশংসভাবে হত্যা করে তাঁর পিতাকে মানসিকভাবে হত্যা করে -সমাজ তন্ত্রের কি সেবা তারা করেছে? দেশ গড়ার কি মহান কর্তব্য তারা পালন করেছে?…..”
অত্যন্ত সহজ, সরল সদাহাস্যেজ্জল, সদালাপী, জ্ঞান তাপস, প্রতিভাদীপ্ত মহান ব্যক্তিত্ব এড. আব্দুস সামাদ চাচা আইনজীবী হয়েও সমাজের সকল শ্রেণি- পেশার মানুষের কাছে ছিলেন প্রিয় পাত্র। সামাদ চাচা- শৈশব থেকেই আমাকে আদর ¯েœহ করতেন। ছোটবেলায় আমাকে মনীষীদের জীবনী পড়তে বেশি বেশি বলতেন। সেসময় সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে প্রকাশিত ‘উদয়ন’ ম্যাগাজিনটি প্রতিমাসে আমাকে এক কপি করে দিতেন। উনার লেখা কিছু বই আগেও পড়েছি। তবে এখন যতই আবার বই গুলো পড়ছি ততই আমার মধ্যে একটা অপরাধ বোধ বেশি জাগ্রত হচ্ছে-  এই ভেবে যে, উনার সাথে আমার আরো অনেক সময় দেওয়ার দরকার ছিল। আমাকে তিনি লেখার ব্যাপারে সব সময়ই উৎসাহ দিতেন। বয়সের কোন সীমাবদ্ধতা তাঁর মধ্যে সর্ম্পক স্থাপনে বাঁধা হয়ে দাঁড়ায় নি কখনো। আমি উনার ছোট ছেলে মাসুদ ও মাসুকের স্কুল পড়–য়া বন্ধু। তথাপিও আমাকে তাঁর জ্ঞানের রাজ্যে, অধ্যয়নের রাজ্যে সঙ্গী হিসেবে নিয়েছেন। ইদানিং প্রায় অনুষ্ঠানাদিতে চাচার সাথে দেখা হতো – এক সাথে আমন্ত্রণ থাকতো- আমি সব সময় নিজেকে তাঁর সান্নিধ্যে পেয়ে আনন্দিত হতাম। এইতো দশ/বার দিন আগে মাতিন আহমেদের ‘এসএসআইটি ফাউন্ডেশন’ এর পক্ষ থেকে একটি সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে সামাদ চাচাকে সম্মাননা স্মারক সনদ দেওয়া হয়। হয়ত এটি তাঁর জীবনের শেষ সম্মাননা প্রাপ্তির অনুষ্ঠান ছিল। তখনও উনার সাথে এক ফাঁকে আমার সংক্ষিপ্ত পরিসরে কথা হয়েছে।
ছিয়াশি বছরের প্রবীন অথচ মানসিকভাবে যুবক এই উদ্যমী মানুষটি আমাদের উৎসাহ আর চিন্তা চেতনার অনুঘটক ছিলেন। স্বভাবে চঞ্চল দ্রুত পদচালনায় অভ্যস্থ এই মানুষটি কথায়- বক্তৃতায় সুষ্ঠু রাজনীতির খেলার মাঠের দক্ষ খেলোয়ারদের অন্তর থেকে ভালবাসা দিয়ে দেশের ছাত্র সমাজের জন্য – যুব সমাজের জন্য কাজ করার প্রত্যাশা তিনি সর্বদা করে গেছেন।
চেতনার আকাশে চিরস্মরণীয় তাঁর মুখনি:সৃত বাণী খোদাই করে অনাগত মানুষের জন্য রেখে গেছেন। প্রজ্ঞাবান, হৃদসরোবর, সৎ, নিষ্ঠাবান- সাহসিরাই শুধু গন্ধ শোঁকে সেই সামাদীয় মর্মবাণী গুলো চয়ন করতে পারবে। পিপাসা মিটাতে পারবে তাদের অনুসন্ধিৎসু মনের ‘জ্ঞান-তপস্বীর সময়ের দাবী’
—– প্রশ্ন নিজেই আজ এডভোকেট সামাদের কাছে —  প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে গেলো।         


লেখক : সোপানুল ইসলাম,অধ্যক্ষ,আইডিয়াল রেসিডেন্সিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ,ব্রাহ্মণবাড়িয়া।