শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পাহাড়ি ঢলে তলিয়ে গেছে ২১শ ৫০ হেক্টর কৃষি জমি

water33নিজস্ব প্রতিবেদকটানা বর্ষন ও মেঘনা নদী আর সিলেট এবং ভারতের ত্রিপুরার পাহাড়ী ঢলের পানি বেড়ে চলছে ব্রাহ্মনবাড়িয়ার ৮টি উপজেলায়। পানি বেড়ে যাওয়া অব্যাহত থাকায় ২১শ ৫০ হেক্টর জমির রোপা আমনের চারা ও বীজতলা ইতিমধ্যে তলিয়ে গেছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় হুমকির মুখে পড়েছে জেলায় রোপা আমন চাষ। আর পানিতে জমি তলিয়ে যাওয়া এখন বীজতলায় চারা জাগানোও সম্ভব না ।  চলতি মৌসুমে রোপা আমন ধান চাষাবাদ করা সম্ভব হবে না বলে জানিয়েছে জেলার কৃষকরা। একের পর এক ক্ষতির মুখে পরায় এবারও  আর্থিক ক্ষতির আশংকা করছেন তারা।  কি ভাবে আগামী দিন চাষাবাদ করবে তা নিয়ে এখন চিন্তিত কৃষকরা। 
কৃষি সমৃদ্ধ এলাকা হিসেবে পরিচিত ব্রাক্ষনবাড়িয়ার জেলা। জেলায় এবার ৪৫ হাজার হেক্টর জমিতে এ বছর রোপা আমনের চাষাবাদ হয়েছে। কিন্তু গত কয়েক দিনের টানা বর্ষণ আর মেঘনা নদীর পানি বৃদ্ধি  ও সিলেট এবং ভারতের ত্রিপুরার পাহাড়ী ঢলের কারণে ইতিমধ্যে জেলার ৯টি উপজেলা মধ্যে ৮টি উপজেলা সদর, সরাইল, বিজয়নগর, আখাউড়া, কসবা,নাছিরনগর ও আশুগঞ্জ উপজেলায় ২১শ ৫০ হেক্টর জমির রোপা আমনের চারা ও বীজতলা ইতিমধ্যে তলিয়ে গেছে। প্রতিদিনই তলিয়ে যাওয়া জমির সংখ্যা বেড়েই চলছে। আর এ অবস্থা যদি চলতে থাকে আরো বিপুল পরিমান এলাকার রোপা আমন ধানের জমি তলিয়ে যাওয়ার আংশকা দেখা দিয়েছে। কৃষকরা বলছে, কিছু দিন আগে পানি বৃদ্ধির কারণে ডুবে গেছে বীজ তলা। এর পর আবারো বীজ রোপন করে বীজতলায় চারা জাগিয়ে বিঘা প্রতি ৩ হাজার টাকা খরচ করে রোপা আমন চাষাবাদ করা হয়েছে। কিন্তু আবারো পানি বৃদ্ধির কারণে এখন তলিয়ে গেছে রোপা আমন ধানের জমি। পানিতে জমি তলিয়ে যাওয়া এখন বীজতলায় চারা জাগানোও সম্ভব হবে না। এতে চলতি মৌসুমে রোপা আমন ধান চাষাবাদ করা আর সম্ভব হবে ন
এদিকে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক মো. বছির উদ্দিন জানান ২১শ ৫০ হেক্টর জমি রোপা আমন ও বীজ তলা পানিতে তলিয়ে গেছে। এবং পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় দিন দিন তলিয়ে যাওয়া এলাকা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ইতি মধ্যেই ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার তালিকা করে উর্ধ্বতন কতৃপর্ক্ষকে জানানো হয়েছে। 
জমি তলিয়ে যাওয়ায় প্রতি হেক্টরে অন্তত ২ মেট্রিক টন ধান উৎপাদন ব্যাহত হবে। জেলার ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের অতিদ্রুত সরকারী সহায়তা দেয়ার দাবি জানিয়েছেন কৃষকেরা।