শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশের উন্নয়নে ভারত সব সময় পাশে থাকবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে মোদির আশ্বাস

ডেস্ক রির্পোট :  hasina-modiবাংলাদেশের উন্নয়নে ভারত সব সময় পাশে থাকবে বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আশ্বস্ত করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বহুল প্রতীক্ষিত তিস্তা পানি বণ্টন ও স্থল সীমানা নিয়ে সৃষ্ট সমস্যা দ্রুতই সমাধানের আশ্বাস দেন তিনি। বলেছেন সমস্যা দুটো সমাধানে আমরা খুবই সিরিয়াস। মোদি বলেন, ম্যায় রাস্তা নিকালরাহা হুঁ। ভারত সব সময় বাংলাদেশের পাশে ছিল, আগামীতেও থাকবে। শনিবার দুপুর সাড়ে বারোটায় নরেন্দ্র মোদির নিউইয়র্ক প্যালেস হোটেলের কেনেডি রুমে এক একান্ত বৈঠকে মোদি হাসিনাকে এ আশ্বাস দেন। প্রায় ১৫ মিনিট ধরে কথা বলেন এই দুই নেতা। অত্যন্ত আন্তরিকতায় শেখ হাসিনাকে অভ্যর্থনা জানান ভারতের প্রধানমন্ত্রী। এগিয়ে এসে হিন্দীতে সেই একই কথার পুনরাবৃত্তি করলেন মোদি, ‘বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ বানায়া, উসকো লাড়কি দেশ বাঁচায়া।’ বৈঠকের পর লবিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী এ কথা জানান।


সম্প্রতি পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী দিল্লী সফরে গেলে একই কথা বলেছিলেন মোদি। বৈঠকের পর প্যালেস হোটেলে ভারতের মিডিয়ার প্রশ্নের উত্তরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের মাটি ভারতের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদে ব্যবহার করার সুযোগ দেয়া হবে না। পরে হোটেল গ্র্যান্ড হায়াতে আনুষ্ঠানিক ব্রিফিংয়ে পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক ও প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, অত্যন্ত আন্তরিকতা ও সৌহার্দপূর্ণ পরিবেশে দুই প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে আলোচনা হয়েছে। সন্ত্রাস মোকাবেলায় দুই নেতা একসঙ্গে কাজ করার জন্য দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। বৈঠকে আঞ্চলিক সহযোগিতা ও উন্নয়নের ওপর দুই নেতাই জোর দেন। মোদি বলেন, সবকো সাথ লেকে উন্নয়ন করনা হ্যায়। তিস্তার পানি বণ্টন ও স্থলসীমান্ত চুক্তি প্রসঙ্গে তোলেন শেখ হাসিনা। জবাবে মোদি বলেন, সমাধানের উপায় খুঁজছি। 


মোদিকে ঢাকা সফরের আমন্ত্রণ জানান শেখ হাসিনা। উত্তরে তিনি বলেন, প্রথম সুযোগেই ঢাকা যাব। শেখ হাসিনাকেও দিল্লী সফরের আমন্ত্রণ জানান মোদি। অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে বাংলাদেশের ওপর দিয়ে ত্রিপুরায় ১০ হাজার মেট্রিক টন খাদ্যশস্য ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় সাত রাজ্যে নিয়ে যাওয়ার সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান মোদি।