বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অজানা মহাকাশে অভিযান

খুব বেশি নয়, হাজার বছর আগেও আমাদের জীবন অনেক বেশি নির্ভর করত এরই ওপর। আকাশের তারাদের দিকে তাকিয়ে যেভাবে অনেকেই নিজের হারানো প্রিয়জনকে খুঁজে বেড়াত, কেউ তৈরি করত দেয়ালপঞ্জিকা, কেউ মহাসমুদ্রে চলার পথ বের করতে ব্যস্ত ছিল আর কেউ করত ভবিষ্যদ্বাণী। এসব এখন প্রযুক্তির ছোঁয়ায় অনেকাংশে পরিবর্তন হয়েছে।
মো. রাজিউল হাসান (রাজু)

image_966_144254গভীর রাতে সুবিশাল আকাশের দিকে তাকিয়ে আমরা প্রতিনিয়ত অবাক হই। এখানে বয়সের কোনো ভেদাভেদ নেই, মহাকাশে লুকিয়ে থাকা রহস্য সবাইকে একইভাবে টানতে থাকে।

খুব বেশি নয়, হাজার বছর আগেও আমাদের জীবন অনেক বেশি নির্ভর করত এরই ওপর। আকাশের তারাদের দিকে তাকিয়ে যেভাবে অনেকেই নিজের হারানো প্রিয়জনকে খুঁজে বেড়াত, কেউ তৈরি করত দেয়ালপঞ্জিকা, কেউ মহাসমুদ্রে চলার পথ বের করতে ব্যস্ত ছিল আর কেউ করত ভবিষ্যদ্বাণী।
এসব এখন প্রযুক্তির ছোঁয়ায় অনেকাংশে পরিবর্তন হয়েছে। যদি এই সুবিশাল নকশার একটা বোধগম্য ধারণার কাঠামো তৈরি করা যায় তাহলে কেমন হবে?
বর্তমান সময়ের সবচেয়ে অবাক করা আবিষ্কারের একটি ন্যানোটেকনোলজি। যদি নতুন কোনো মহাবিশ্ব দেখার ইচ্ছা হয় তবে ন্যানোটেক রিসার্চ ল্যাবে নির্দ্বিধায় যাওয়া যেতে পারে। আমরা স্বাভাবিক দৃশ্যমান আলোয় যা কোনো দিন চিন্তাও করতে পারি না, সেই না-দেখা জাগতের সঙ্গে প্রতিনিয়ত বসবাস করে আসছি।
এই না-দেখা জগতে আমাদের অনেক অজানা প্রশ্নের জবাব লুকিয়ে ছিল, অনেক কিছু ছিল অজানা। কিন্তু আমাদের এই বিশাল মহাকাশে কেউ কি নেই যারা ঠিক এমনিভাবে আমাদের অনেককাল না-দেখে আছে? আমরা ঠিক এতটাই ক্ষুদ্র যে ন্যানোল্যাবে খুঁজে পাওয়া নতুনদের খাতায় আমাদের নাম লেখা হতে পারে। তাহলে এলিয়েনদের নিয়ে আমাদের বৈজ্ঞানিক সব কল্পকাহিনী কি সত্যিকারেই ভিত্তিহীন? হিসাব করে দেখা যাবে, ন্যানো লেভেলের ওইসব প্রাণীর কাছে আমরা এখন ঠিক এলিয়েনদের মতোই আবির্ভাব ঘটাচ্ছি।
মহাকাশের একটা নকশা যদি আসলেই তৈরি করা যেত তাহলে আমাদের হয়তো খুঁজে পাওয়া যেত সেই নকশার খুব ছোট এক বিন্দুতে। প্রাণীদের মাঝখানে মানুষের পার্থক্য এখানেই। মানুষের অভিযান এখন মঙ্গল গ্রহে নতুন আবাসস্থল তৈরি করা। খুব বেশি নয়, ২০২৩ সালের একটা স্কিম তৈরি হয়ে গেছে। তখন কেউ হয়তো বলবে, 'আমার জন্ম মঙ্গলে'।
আধুনিক বিজ্ঞান আর বিজ্ঞানীরা আমাদের একটা নকশা এঁকে দিয়েছেন। তবে সে নকশা যে সব সময়ই অপরিবর্তিত থাকবে তা নয়। বিজ্ঞানের বয়স যত বাড়বে ঠিক তখন সে নিজেই হেসে ফেলবে তার ফেলে আসা কাজগুলো ভেবে। আমরা ঠিক বিজ্ঞানের কোন পর্যায়ে আছি বলা যাচ্ছে না, তবে আমরা মহাকাশের নকশা একটু হলেও অাঁকতে শিখেছি। আধুনিক জ্যোতির্বিদ্যা আমাদের অনেক প্রশ্নের উত্তর খুঁজে দিয়েছে কিন্তু আমাদের অভিযান তাই বলে থেমে নেই।
বিজ্ঞান যেমন আমাদের প্যারাল্যাল লাইফের ধারণা দিয়েছে, তেমনি গবেষকদের পার্টিক্যালের টেলিপোরটেশনের সফলতা আমাদের টাইম মেশিনের স্বপ্ন নয়, বাস্তবতার এক রূপ দেখিয়েছে। তবে অতীতে ভ্রমণ অসম্ভব বলে মনে করলেও, ভবিষ্যৎ ভ্রমণের আশা থেকেই যাচ্ছে।
সময়ের আপেক্ষিকতা নিয়ে পুরো পৃথিবী একসময় যেভাবে অবাক হয়েছে এর চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল কিছু মানুষের তাদের সময় থেকে এগিয়ে থাকা বা কিছু ব্যতিক্রম কল্পনায় মহাবিশ্বকে তার চলে আসা নিয়মে বেঁধে ফেলা। আমাদের সফলতা এখানেই।
কিছু দিন আগে প্রকাশিত একটা গবেষণার ফলাফল দিয়ে শেষ করতে চাই। আমরা যদি মনে করি প্রতিনিয়ত বর্ধমান মহাবিশ্ব অনেক স্তরে স্তরে সাজানো। আমাদের হিসাবের বাইরে এই গ্যালাক্সি আর ছায়াপথে শুধু আমাদের দৃষ্টি থেমে নেই।
গোবরের পোকার রাতে চলাচল নির্ভর করে এই মিল্কিওয়ে দেখেই। কী অদ্ভুত আমাদের পরিবেশটা। আমরা সবাই একে-অন্যের সঙ্গে একই সুতায় কোনো না কোনোভাবে বাঁধা পড়ি। বিবর্তনের সঙ্গে আমরা খাপ খাইয়ে নিজেদের বাঁচিয়ে রাখছি, ঠিক আজো পৃথিবীতে বিজ্ঞান আর প্রযুক্তির প্রয়োগের অভাবে এই শতাব্দীতেও আদি যুগের মতো অনেকে বেঁচে আছে। সেখানে নেই কম্পিউটার বা কোয়ান্টাম মেকানিক্সের আলোচনা। সেখানে আজো দিন শেষে লণ্ঠন জ্বেলে অন্ধকার দূর হয়।
এই নকশার মধ্যে আমাদের স্থানটা কোথায় দেখতে পারলে অনেক ভালো লাগত, কিন্তু প্রকৃতি তার ব্যাসিক ডিজাইনটা আমাদের মধ্যে বাঁচিয়ে রেখেছে সব সময়ই! আমরা চোখ খুলে সুবিশাল আকাশে তাকাই আর ভাবতে চেষ্টা করি ঠিক একটা নীল আকাশ, যেখানে কল্পনার কোনো শেষ নেই.. যেমন নেই এই মহাকাশের নকশার।
আমাদের এ পৃথিবীটা অদ্ভুত সুন্দর। আর এ সৌন্দর্যের মাঝে রয়েছে প্রকৃতির আশ্চর্য প্রভাব। কখনো কি মনে হয় না পৃথিবীর বাইরে কী রয়েছে? হয়তো কৌতূহলবশত জানতে ইচ্ছা হতে পারে। রাতের বেলা আকাশের দিকে দৃষ্টি দিলে দেখা যায় অজস্র তারা জ্বলজ্বল করছে। হ্যাঁ, পৃথিবীর বাইরে রয়েছে এক বিশ্ব, যা আমাদের আরো বিস্মিত করে তুলবে। আমাদের পৃথিবীর বাইরে রয়েছে আরো অসংখ্য গ্রহ, নক্ষত্র; যা রয়েছে নির্দিষ্ট দূরত্বে। একেকটি গ্রহ অন্য গ্রহের চেয়ে আকারে-আয়তনে অনেক বড়, তেমনি রহস্যময় সুন্দর। রাতের বেলা টেলিস্কোপ দিয়ে আকাশের দিকে চোখ রাখলে দেখতে পাওয়া যাবে আমাদের পৃথিবীর বাইরে যে মহাকাশ রয়েছে তা কত অদ্ভুত সৌন্দর্যের ভা-ার। মহাকাশের অন্যান্য গ্রহের তুলনায় আমাদের পৃথিবী এত ছোট যে, এটা গাণিতিক পরীক্ষা না করলে বোঝা যাবে না।
আরো বিস্ময়কর তথ্য হচ্ছে, আমরা যখন কোথাও পড়ে থাকি এক গ্রহ থেকে আরেক গ্রহের দূরত্ব আলোকবর্ষ। এর মানে হলো পৃথিবী থেকে ওই গ্রহে আলো পেঁৗছাতে লাগবে ১০০ বছর। মহান সৃষ্টিকর্তার কী অদ্ভুত সৃষ্টি! সত্যিই সৃষ্টিকর্তার কাছে আমরা চিরঋণী। বিজ্ঞানীরা প্রতিদিন নতুন নতুন গ্রহ আর উপগ্রহ আবিষ্কার করছেন। এর মধ্যে চাঞ্চল্যকর তথ্য হচ্ছে আমাদের পৃথিবীতে আমরা যেমন মানুষ বাস করি তেমনি মহাকাশে কিছু কিছু গ্রহের ভেতর অদ্ভুত প্রাণীর বসবাসের চিহ্ন পাওয়া গেছে। বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিতে এদের নাম 'এলিয়েন' হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। বিজ্ঞানের ব্যাপক উন্নতির কারণে বিজ্ঞানীরা মঙ্গলগ্রহের মতো আরেকটি পৃথিবীতে নভোযান পাঠাতে সক্ষম হয়েছেন।
আমরা রাতের আকাশে যে চাঁদ দেখতে পাই, এ চাঁদও মানুষ জয় করতে সক্ষম হয়েছে। মজার ব্যাপার এই যে, মানুষ এখন চাঁদে বসবাসের কথাও ভাবছে। এ জন্য আমেরিকায় ইতোমধ্যে ব্যাপক প্রস্তুতিও চলছে। এতেই বোঝা যায় সভ্যতার আদিম যুগ থেকে এ পর্যায়ে আমাদের পৃথিবী বৈজ্ঞানিক প্রযুক্তিতে কতটা এগিয়েছে। হয়তো সে দিন আর বেশি দূর নয়, যখন মানুষ মহাকাশে গিয়ে জীবিকা নির্বাহের কাজ শুরু করবে।