শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিধানসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিজেপি-শিবসেনা জোটে ভাঙন

image_966_144312ভারতের মহারাষ্ট্রে বিধানসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিজেপি-শিবসেনার ২৫ বছরের জোটে ভাঙন ধরেছে। দীর্ঘদিনের দুই রাজনৈতিক জোট পরস্পরকে ছেড়ে এবার 'একলা চলো' নীতি বেছে নিয়েছে। সংবাদসূত্র : টাইমস অব ইনডিয়া ইন্দো-এশিয়ান নিউজ সার্ভিসের খবরে বলা হয়েছে, মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার একদিন আগে বৃহস্পতিবার বিজেপি ও শিবসেনার দীর্ঘ ২৫ বছরের জোট ভেঙে যাওয়ার ঘোষণা আসে। একই দিন কংগ্রেসের সঙ্গে ১৫ বছরের রাজনৈতিক জোট ভাঙার ঘোষণা দেন শারদ পাওয়ারের 'ন্যাশনাল কংগ্রেস পার্টি' (এনসিপি)। কংগ্রেস নেতা ও রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পৃথি্বরাজ চাভেন বলেন, 'বিজেপি শিবসেনার সঙ্গে জোট ছাড়ার ঘোষণা দেয়ার এক ঘণ্টার মধ্যেই এনসিপি আমাদের সঙ্গে জোটের সমাপ্তির সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সম্ভবত তারা নতুন মিত্র পেয়েছে। তবে তাদের নতুন বন্ধু কারা তা ৩-৪ দিনের মধ্যে হয়তো জানা যাবে।' এদিকে এনসিপি নেতা শারদ পাওয়ার বিজেপির সঙ্গে আলাপ-আলোচনা চালাচ্ছেন বলে রাজ্যে জল্পনা-কল্পনা হচ্ছে। তবে এনসিপি বিষয়টি নাকচ করে দিয়ে বলছে, 'রাজনীতি নিয়ে খেলা কংগ্রেসের পুরনো ইতিহাস। তারা কখনো বলে আমরা বিজেপির সঙ্গে গেছি, আবার কখনো বলে শিবসেনার সঙ্গে গেছি। গত ১৫ বছর ধরেই এমনটি বলে আসছে।' অপর এক খবরে জানা গেছে, ২৫ বছরের জোটসঙ্গী শিবসেনাকে ত্যাগ করার ঘোষণা দিয়েছে কেন্দ্র সরকারের নেতৃত্বে থাকা বিজেপি। তবে বিজেপি নেতা রাজিব প্রতাপ রাডি বলেন, তার দল শিবসেনাদের সঙ্গে মিটমাট করার বহু চেষ্টা করেছে। তবে এখন সময় শেষ।' এখন আগের চেয়েও ভালো কিছু হবে, এনসিপি ও কংগ্রেসকে রাজ্যের নেতৃত্ব থেকে সরানো যাবে। প্রসঙ্গত, আগামী ১৫ অক্টোবর মহারাষ্ট্রের বিধানসভা নির্বাচন। মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার আগ মুহূর্তে দলগুলোর পুরনো বন্ধু ত্যাগ প্রমাণ করছে, এবারের নির্বাচনে লড়াই হবে চতুর্মুখী। এ রাজ্যে গত ১৬ বছর ধরে ভোটাররা হয় কংগ্রেস জোটকে অথবা বিজেপি জোটকে ক্ষমতায় বসিয়েছে। তবে এবার ঝুলন্ত পার্লামেন্ট দেখা যেতে পারে, যেখানে কোনো দলেরই নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকবে না বলে বিশ্লেষকরা মনে করছেন।