শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নবীনগরে প্রথম ইউপি নির্বাচন সোমবার

nabinagor up elecনবীনগরের পৌরসভা গঠিত হয়েছে প্রায় ১৫ বছর। আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর সোমবার প্রথম বারের মত অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে পৌরসভা নির্বাচন।

প্রতিক্ষিত নির্বাচনকে ঘিরে সর্বত্রই চলছে উৎসবের আমেজ। মাইকিং, মিটিং, সভা সমাবেশ ও গণসংযোগে ব্যস্ত সময় পার করছেন এখানকার প্রার্থীরা। নির্বাচনে মেয়র-কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন একশ প্রার্থী। মেয়র পদে প্রধান দুই দল ঘোষণা করতে পারেনি একক প্রার্থী।

তবে ভোটাররা বলছে যোগ্য প্রার্থীকেই ভোট দেবেন তারা। নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে ইতোমধ্যেই নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে সব প্রস্তুতি।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, নবীনগর পৌরসভার যাত্রা শুরু ১৯৯৯ সালে। সীমানা নিয়ে হাইকোর্টে মামলা থাকায় পৌরসভা গঠনের ১৫ বছর পেরিয়ে গেলেও নির্বাচন সম্ভব হয়নি। অবশেষে হাইকোর্ট থেকে মামলা নিষ্পত্তি হওয়ায় এ প্রথম নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছেন নির্বাচন কমিশন।

রিটানিং কর্মকর্তার কাছ থেকে প্রতীক বরাদ্দের পর থেকে পোস্টার আর লিফলেটে ছেঁয়ে গেছে পৌর এলাকা। ভোটের আগে হিসাব-নিকাশ চলছে পথে ঘাটে, হোটেল, রেস্তোরা ও পরিবহনে। বিভিন্ন ছন্দ মিশিয়ে প্রার্থীদের পক্ষে শ্লোগান ও মাইকিং প্রচার করে ভোটারদের মন আকর্ষণ করার চেষ্টা চলছে অবিরত। ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত নবীনগর পৌরসভায় মোট ভোটার ৩০,২৭০ জন তাদের মধ্যে পুরুষ ১৪ হাজার ৫ শত ৯০ জন, নারী ভোটার রয়েছে ১৫ হাজার ৬ শত ৮০ জন । মোট ভোটকেন্দ্র রয়েছে ১১টি।

নবীনগর পৌরসভায় অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে মেয়র পদে ১৫ জন, কাউন্সিলর পদে ৭৪ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১১জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

তবে ইতোমধ্যে পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদপ্রার্থী মোহাম্মদ ঈদন খান (টাইপ রাইটার) এক সংবাদ সম্মেলনে পৌরসভা নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন।

এদিকে নির্বাচন নিয়ে কৌতুহলের কমতি নেই ভোটারদেরও। কে হচ্ছেন পৌর পিতা ? তা নিয়ে আগ্রহের শেষ নেই। চলছে ব্যাপক আলোচনা। ভোটাররা হিসাব কষছেন কে হবেন তাদের নির্বাচিত প্রার্থী।

সাধারণ ভোটাররা জানান, সৎ, যোগ্য, শিক্ষিত, যুব সমাজ ও এলাকার উন্নয়নে কাজ করবেন এমন প্রার্থীকেই মেয়র হিসাবে বেছে নেবেন এখানকার ভোটাররা। তবে খুব চিন্তা করেই তারা নির্বাচিত করবেন তাদের প্রথম পৌর মেয়র।

আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট. শিব শংকর দাশ  বলেন, ‘নবীনগর পৌরসভার যাত্রা শুরু ১৯৯৯ সালে। সীমানা নিয়ে হাইকোর্টে মামলা থাকায় পৌরসভা গঠনের ১৫ বছর পেরিয়ে গেলেও নির্বাচন সম্ভব হয়নি। এবার প্রথম নির্বাচন। আমি মনে করি নবীনগরের মানুষ আমাকে বেছে নেবেন।’

বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী মাইনুদ্দিন মাইনু জানান, আমি নির্বাচিত হতে পারলে নবীনগরের মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত পৌরসভা গড়ার জন্য কাজ করব।

দলীয় কোনো প্রভাব নির্বাচনে পড়বে কিনা জানতে চাইলে তিনি বাংলামেইলকে বলেন, ‘নবীনগরবাসী আমার জন্য আছে তাই এমন কোনো আশঙ্কা আমার নেই।’

ভোটারদের কাছে টানতে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন সব প্রার্থীরা। এককভাবে প্রার্থী ঘোষণা করতে পারেনি আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রার্থীরা ছুটছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে নিজ উদ্যোগে হাজির হচ্ছেন প্রার্থীরা। উপস্থিত লোকদের উদ্দেশ্যে শুনাচ্ছেন আশার বাণী।

এদিকে নির্বাচনের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে বলে সহকারী রিটারনিং অফিসার মুহাম্মদ বদর-উদ-দোজা ভূঁইয়া জানিয়েছেন, প্রথম নির্বাচন হওয়ায় এখানকার ভোটাররা খুবই উচ্ছাসিত। আমাদের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। এখন মালামাল পাঠানোর বাকি।

শনিবার রাত থেকে সব প্রচার প্রচারণা বন্ধ হচ্ছে। কেউ কোনোরকম আচরণ বিধি লঙ্ঘন করেনি।

নবীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রূপক কুমার সাহা বাংলামেইলকে বলেন, ‘নির্বাচনে সব কেন্দ্র সিসিটিভিতে পর্যবেক্ষণ করা হবে এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পুরোপুরি প্রস্তুত রয়েছেন। এখন পর্যন্ত কোনো রকম আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হয়নি।