শনিবার, ১৩ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ২৯শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আত্মবিশ্বাস ফেরানোর চ্যালেঞ্জ মাশরাফির

1411664251.বছরের শুরুতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দু’টো টি-২০ ম্যাচে ছিলেন অধিনায়ক। নেতৃত্বের বাহুবন্ধনী আবারও এলো মাশরাফি বিন মর্তুজার হাতে। নিয়মিত অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম বিয়ের কারণে সরে দাঁড়ানোয় এশিয়ান গেমস পুরুষ ক্রিকেটে বাংলাদেশ দলের নেতৃত্ব দিবেন মাশরাফি। এর আগে এক টেস্ট এবং সাতটি ওয়ানডে ম্যাচে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিয়েছেন ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’। তবে ওয়ানডেতে শেষবার দায়িত্বটা পালন করেছেন ২০১০ সালে। এশিয়াড দিয়ে টি-২০ সংস্করণে আবার নেতৃত্বে ফিরলেও আবেগে ভেসে যাননি মাশরাফি। বরং চওড়া কাঁধে দায়িত্বটা নিয়েছেন পেশাদার খেলোয়াড় হিসেবে, ‘এটা আমার ওপর একটা বাড়তি দায়িত্ব। তাই চেষ্টা করব ঠিকঠাক মতো দায়িত্বটা পালন করার’।

এশিয়ান গেমস উপলক্ষে আয়োজন করা হয় সংবাদ সম্মেলনের, অথচ নেতৃত্ব নিয়েই যেন বেশি প্রশ্নের জবাব দিতে হল মাশরাফিকে। গত ২৬ আগস্ট বোর্ড সভাতেই নির্ধারিত হয় এশিয়াডে মুশফিক না থাকায় অধিনায়কত্ব করবেন ডানহাতি এই পেসার। পরে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এমপি তিন ধরনের সংস্করণের ভিন্ন অধিনায়ক নির্বাচনের ইঙ্গিতও দেন। তাই টি-২০ তে মাশরাফিকে স্থায়ীভাবে অধিনায়ক করার একটা গুঞ্জন উঠেছে। মাশরাফি নিজে অবশ্য বলটা ছেড়ে দিলেন বোর্ডের কোর্টে, ‘এ ব্যাপারে বোর্ডকে প্রশ্ন করাই আমার মনে হয় সবচেয়ে ভালো হয়। আমার কাছে এ ব্যাপারে কোন তথ্য নেই, তাই কিছু বলতেও পারছি না। শুধু জানি আমাকে এ দায়িত্বটা দেয়া হয়েছে আর আমিও এটার ওপর মনোযোগ দিয়েছি’।

অধিনায়কত্ব করতে নিজে কতটুকু প্রস্তুত সে ব্যাপারেও যেন এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলেন মাশরাফি, ‘সত্যি কথা বলতে কি, এটা নিয়ে এখনো ভাবিনি। প্রত্যেকটা সিরিজে লক্ষ্য থাকে ভালো খেলার। এখানেও (দক্ষিণ কোরিয়ার ইনচনে) যাচ্ছি তেমন লক্ষ্য নিয়ে। অধিনায়ক হিসেবে বাড়তি যে দায়িত্বটা দেয়া হয়েছে সেটি নিয়েই ভাবছি। আমার সাথে এ ব্যাপারে আর কোনো আলোচনা হয়নি। তাই এ নিয়ে চিন্তাভাবনা বা কোনো কথা না বলাই ভালো’। এশিয়াডে স্বর্ণ ধরে রাখার লক্ষ্য নিয়ে আজ রাত ১১টা ৫৫ মিনিটে দক্ষিণ কোরিয়ার বিমানে চেপে বসবে বাংলাদেশ পুরুষ ক্রিকেট দল। ততক্ষণে অবশ্য মেয়েদের ক্রিকেটে স্বর্ণের ফয়সালা হয়ে যাবে। আজ মেয়েদের ফাইনালে পাকিস্তানের বিপক্ষে স্বর্ণজয়ের চ্যালেঞ্জ সালমা-পান্নাদের সামনে।

চার বছর আগে গুয়াংজু এশিয়ান গেমসে জেতা স্বর্ণপদকটা ধরে রাখার চ্যালেঞ্জ ছেলেদের। সেই ক্রিকেটে এ বছরে ব্যর্থতার যে বৃত্তে বন্দী সেটি থেকে বেরিয়ে আসার তাগিদ তো রয়েছেই। দু’টো লক্ষ্যকেই এক করে নিলেন মাশরাফি, ‘টার্গেট তো অবশ্যই স্বর্ণ জেতা। আগেরবার আমরা স্বর্ণ জিতেছিলাম, এবারও একই লক্ষ্য। আর যদি চ্যাম্পিয়ন হতে পারি, স্বর্ণপদক জিততে পারি তবে এটা দেশের জন্যও ভালো হবে। আলাদা করে বললে এই আসর প্রত্যেক ক্রিকেটারের জন্য আত্মবিশ্বাস নিয়ে ফেরার উপলক্ষ। জিতলে আমার মনে হয় কিছুটা হলেও খারাপ সময় থেকে বেরিয়ে আসতে পারব আমরা’। ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন হিসেবে গ্রুপপর্ব খেলতে হচ্ছে না বাংলাদেশকে। সরাসরি খেলবে কোয়ার্টার ফাইনালে। ভারত-পাকিস্তান না থাকায় সম্ভাব্য প্রতিপক্ষ শ্রীলঙ্কা ও আফগানিস্তান।

ফেভারিট হিসেবে কোনো আসর শুরুর অভিজ্ঞতা খুব বেশি নেই বাংলাদেশের। এবার সেটিও যোগ করেছে নতুন চ্যালেঞ্জ। মাঝে জাতীয় দল ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে থাকায় একসঙ্গে অনুশীলনও করা হয়নি এশিয়াড দলের। তবে পরিকল্পনা করেই এগোনোর লক্ষ্য বাংলাদেশ অধিনায়কের। মুশফিক না থাকলেও নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে এই আসরে ফিরেছেন সাকিব আল হাসান। এটাকেই বড় প্রেরণা হিসেবে নিয়েছেন মাশরাফি, ‘ওরা দু’জনই খুব গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়। মুশফিক থাকলে অবশ্যই ভালো হত। ওকে অনেক মিস করব। আর সাকিবের মত খেলোয়াড় বাইরে থাকুক এটা আমরা কখনোই চাই না। আমি বলব সাকিবের ফেরাটা বাংলাদেশের পুরো ক্রিকেটের জন্যই ভালো সংবাদ। ও আগে যেমন ছিল ফেরার পর তেমনই থাকবে, প্রত্যেকটা ম্যাচও খেলবে ইনশাল্লাহ’।