বুধবার, ২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৯ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আইএস জঙ্গিদের নির্মূল জোটের বৈঠকে বাংলাদেশকে যুক্তরাষ্ট্রের আমন্ত্রণ

ISIইসলামিক স্টেট (আইএস) জঙ্গিদের প্রতিহত করতে জাতিসংঘের সমর্থন চেয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। এছাড়া গত মঙ্গলবার সিরিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে শুরু হওয়া অভিযানে অংশ নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে পাঁচ আরব রাষ্ট্রসহ ৫৪টি দেশ। জোটে অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত বৈঠকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে বাংলাদেশকেও।

প্রথম আলোর প্রকাশিত সংবাদ সূত্রে জানা গেছে, গতকাল বুধবার রাতে নিউইয়র্কে আইএস জঙ্গিদের নির্মূল সংক্রান্ত একটি বৈঠক অনুষ্ঠানের কথা ছিল। বৈঠকে অংশ নিতে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে বাংলাদেশকেও।

সেই বৈঠক এবং আমন্ত্রণ বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সূত্রে জানা গেছে, পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী বৈঠকে যোগ দিচ্ছেন না। তা ছাড়া যদিও সন্ত্রাসবিরোধী লড়াইয়ের পক্ষে বাংলাদেশের অবস্থান পরিষ্কার, তবু সরকার এখনই আইএসবিরোধী জোটে যোগ দেওয়ার ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত নিচ্ছে না।

আইএসকে মোকাবিলায় বহুজাতিক জোট গঠনের পরিকল্পনার রূপরেখা দুই সপ্তাহ আগে ঘোষণা করেছেন বারাক ওবামা। জাতিসংঘ অধিবেশনে জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুনও আইএস নিয়ে তার উৎকন্ঠা প্রকাশ করেছেন।

বান কি মুন সিরিয়া ও ইরাকে জিহাদপন্থীদের পরিচালিত ‘বর্বরতার তীব্রতা’র কথা উল্লেখ করে বলেন, এই নিষ্ঠুরতা পৃথিবীতে সংকটের তালিকা দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর করেছে।

বুধবার জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য দেশগুলোর সর্বসম্মতিতে ইরাক ও সিরিয়ার বিশাল এলাকা দখলে নেওয়া জঙ্গি দল ইসলামিক স্টেটে (আইএস) বিদেশি যোদ্ধ‍াদের যোগদান নিষিদ্ধ করে শর্ত সাপেক্ষে একটি প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ।

বারাক ওবামা গত মঙ্গলবার জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের ফাঁকে বিভিন্ন আরব দেশের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেন।

তবে আইএসকে সহজে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে না বলেও মন্তব্য করে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন অনেক নিরাপত্তা বিশ্লেষক।

বিশ্লেষকেরা বলছেন, নানা বৈচিত্র্যময় এ জোট শেষ পর্যন্ত টিকবে কি না, তা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট এরই মধ্যে জানিয়ে দিয়েছেন, লড়াই বছরের পর বছর চলতে পারে। জোটের সদস্যরাও সম্মুখীন হতে পারে সামরিক-বেসামরিক ক্ষয়ক্ষতির মতো নানা প্রতিবন্ধকতার।

সিরিয়ায় মার্কিন নেতৃত্বাধীন হামলার শুরুতেই সরাসরি অংশগ্রহণ বা সমর্থন দিয়েছে পাঁচ আরব দেশ—সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, জর্ডান, বাহরাইন ও কাতার। বিপরীতে, জোটে অংশ নেওয়া প্রশ্নে ওয়াশিংটনের ইউরোপীয় মিত্র ব্রিটেন ও ফ্রান্স সতর্ক পা ফেলার নীতি অবলম্বন করেছে।

সিরিয়ায় অভিযানের ব্যাপারে বিভক্ত আরব দেশগুলোকে যুক্তরাষ্ট্র কীভাবে জোটে টেনে এনেছে এবং তারাই বা কী ভূমিকা রাখতে ইচ্ছুক, সেসব বিষয়ে মঙ্গলবার বিস্তারিত তথ্যও প্রকাশ করেছেন মার্কিন কর্মকর্তারা।

যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে এ লড়াইয়ে শরিক হলেও মূলত রাজনৈতিক সমর্থন দেওয়ার প্রস্তাব দিচ্ছে জোটের অনেক দেশই।

ওদিকে সিরীয় শহর কোবানের আশপাশে চালানো মঙ্গলবার মধ্যরাতের হামলার লক্ষ্যবস্তু ছিল আইএসের অবস্থান ও সরবরাহ রুট। এ ছাড়া ইরাক সীমান্তের কাছেও দুই দফা বিমান হামলার কথা নিশ্চিত করেছে পেন্টাগন। সোমবার সিরিয়ায় প্রথম দিনের হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের পাশাপাশি আরব বিশ্বের অন্তত পাঁচটি দেশ সহায়তা করেছে। ওই হামলার প্রধান লক্ষ্যবস্তু ছিল আইএসের শক্ত ঘাঁটি সিরীয় শহর রাকা। উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় ওই শহরটির পাশাপাশি আরও কয়েকটি এলাকায় হামলা চালিয়ে আইএসের বিভিন্ন প্রশিক্ষণকেন্দ্র, যানবাহন ও সংরক্ষণাগার ধ্বংস করা হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দাদের মতে, এই বিমান হামলা আইএসের যোদ্ধাদের ওপরে বিরাট প্রভাব ফেলেছে।

আল-জাজিরার খবরে বলা হয়, সিরিয়ার আলেপ্পো প্রদেশের একটি ভবনে বিমান হামলায় চার শিশুসহ অন্তত ১১ জন বেসামরিক লোক নিহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। এ হামলার জন্য মার্কিন বাহিনীকে দায়ী করেছে স্থানীয় সরকারবিরোধীরা। তবে এ বিষয়ে নিরপেক্ষ সূত্র থেকে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে অংশ নিতে নিউইয়র্কে যাওয়া বিশ্বনেতাদের মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে ইরাক ও সিরিয়ায় জঙ্গিগোষ্ঠী আইএসের বিষয়টি।

সূত্র- আল-জাজিরা, বিবিসি, রয়টার্স, গার্ডিয়ান ও প্রথম আলো