শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ধর্মই শান্তির প্রতীক

download (1)মানুষ শান্তিকামী।সমগ্র বিশ্বে শান্তি-সংহতি প্রতিষ্ঠার জন্য কতই না চেষ্টা। অর্থ-বিত্তবৈভব কোনোকিছুরই নেই অভাব। কিন্তু একটু শান্তির অভাবে এসবই যেন ফিকে হয়ে যায়। সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত মানুষের নিরন্তর প্রয়াস যেন বৃথা হয়ে যায়। প্রতি বছরের মতো এবারও জাতিসংঘ ঘোষিত বিশ্ব শান্তি দিবস পালিত হচ্ছে; কিন্তু এটি কি শুধুই আনুষ্ঠানিকতা? বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় ধর্মের ভূমিকা কী? এসব জিজ্ঞাসার উত্তর দিয়েছেন বিজ্ঞজন

ভোগসর্বস্বতা অশান্তিকে জিইয়ে রাখে


সাইফুদ্দীন আহমদ


সহকারী অধ্যাপক, শান্তি ও সংঘর্ষ অধ্যয়ন বিভাগ, ঢাবি


 


প্রশ্ন : শান্তি অর্থ কী?


উত্তর : এটা আপেক্ষিক একটা ব্যাপার। এর কোনো মাপকাঠি নেই। বিভিন্নজনের কাছে, বিভিন্ন গোষ্ঠীর কাছে এর সংজ্ঞা ভিন্ন ভিন্ন। তবে একাডেমিক্যালি আমরা শান্তির সংজ্ঞায় বলি, যেখানে কোনো ভায়োলেন্স নেই। আমাদের ধারণা, ভায়োলেন্স বলতে আমরা দৃশ্যমান যে ভায়োলেন্স দেখি, আসলে কিন্তু তা নয়। ভায়োলেন্স অদৃশ্যমানও হতে পারে। যেমন_ সমাজের কাঠামোতে, রাষ্ট্রের কাঠামোতেও ভায়োলেন্স থাকতে পারে। রাষ্ট্র যদি তার কাঠামোতে 'অসমতা' জিইয়ে রাখে তখন সেটিও ভায়োলেন্স হিসেবে চিহ্নিত হবে। আগেই বলেছি, যেখানে ভায়োলেন্স আছে সেখানে শান্তি থাকতে পারে না।


প্রশ্ন : এমন শান্তির চিন্তা করা ইউটোপিয়া বা 'বাস্তবতা বিবর্জিত' কিনা?


উত্তর : না, এটি বাস্তবতা-বিবর্জিত নয়, এটাকে বলা হয় 'সমতাভিত্তিক সমাজ'। পৃথিবীতে এমন সমাজ ছিল। এমনকি বর্তমানে একদম এরূপ না হলেও প্রায় কাছাকাছি সমাজ আছে। উদাহরণ হিসেবে স্ক্যান্ডেনেভিয়ান দেশগুলোর কথা বলা যায়। এসব দেশের সমাজগুলো অনেক বেশি সমতাভিত্তিক, যেটা আমাদের সমাজে আমরা কল্পনাও করতে পারি না। যেমন_ এখানে একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসেবে আমি কল্পনাও করতে পারি না, আমি সুইপারের সঙ্গে এক টেবিলে বসে নাশতা করব। স্ক্যান্ডেনেভিয়ান সমাজগুলোতে তারা এটা করতে পারে এবং তারা বাস্তবে এটা করেও এসেছে।


প্রশ্ন : ধর্ম কি শান্তির পরিপূর্ণ নির্দেশনা দেয়?


উত্তর : অবশ্যই পরিপূর্ণ নির্দেশনা দেয়। ধর্মের আবির্ভাবই হয়েছিল শান্তির জন্য। প্রত্যেক ধর্মই শান্তির কথা বলে, কোনো ধর্মই বিন্দুমাত্র অশান্তির কথা বলে না। কিন্তু বর্তমান বাস্তবতা আমাদের বিভ্রান্ত করতে পারে, করেও। যেমন_ ইসলাম ধর্মের কথা বললেই আমরা বুঝি এ ধর্ম নারীকে তার অধিকার থেকে বঞ্চিত করেছে, আসলে কিন্তু তা নয়। আমরা যারা ধর্ম প্র্যাকটিস করছি তারা ভুল বলছি বা ভুল ব্যাখ্যা দিচ্ছি। আবার হিন্দু ধর্মে যে চারটা শ্রেণী বিভাজনের কথা আমরা জানি, এটাও হিন্দু ধর্মে নেই। তারা নিজেরাই ধর্মের অপব্যাখ্যা দিয়ে ধর্মের মধ্যে অসমতা তৈরি করছে। এভাবে শান্তি বিঘি্নত হচ্ছে। আরেকটা হলো, ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি। এতে তৈরি হচ্ছে আন্তঃধর্মীয় সংঘাত।


প্রশ্ন : মানুষের ভোগবাদী চিন্তা কি আমাদের অশান্তির মূল কারণ?


উত্তর : এটা একটা কারণ তো বটেই। এজন্য ধর্ম সব সময় ত্যাগের কথা বলে। শান্তি ও সংঘর্ষ অধ্যয়নে একটা টার্ম আছে সেটি হলো, 'ইনকম্পিটেবল গোল' অর্থাৎ একটা জিনিস নিয়ে কয়েকজন টানা-হেঁচড়া করা। এটা সমাজে অশান্তি সৃষ্টি করে। এ পৃথিবীতে সম্পদ সসীম কিন্তু চাহিদা অসীম, ক্ষুধা অসীম। তাই ভোগকে সীমিত করতে হবে। ভোগসর্বস্বতা অশান্তিকে জিইয়ে রাখে। এখানে রাষ্ট্রের সক্ষমতার ব্যাপার আছে। পাশ্চাত্য দুনিয়ায় সম্পদের অভাব নেই। তাই বলে তাদের দ্বারা অশান্তি সৃষ্টি হয় না, এমন নয়। বরং তারা তাদের বৃহত্তর ভোগের জন্য অন্য দেশে অশান্তি লাগিয়ে রাখছে।


 

ধর্মের উপায়গুলো ভিন্ন হলেও উদ্দেশ্য এক


স্বামী স্থিরাত্মানন্দ মহারাজ


সহ-সম্পাদক রামকৃষ্ণ মিশন, ঢাকা


 
প্রশ্ন : বিশ্ব শান্তির জন্য ধর্ম কীভাবে ভূমিকা পালন করে?


উত্তর : আপাতদৃষ্টিতে বিরাজমান ভিন্ন ভিন্ন ধর্মের অবস্থান ভিন্ন ভিন্ন পরিলক্ষিত হলেও সব ধর্মের উদ্দেশ্য কিন্তু এক। প্রত্যেকটি ধর্মই শান্তির জন্য কাজ করে যাচ্ছে। আমাদের সমস্যা হলো, আমরা সমন্বয় করতে পারছি না। সমন্বয় করতে পারলে দেখব, সব ধর্মের গূঢ় অর্থ আসলে একই। আমাদের উপায়গুলো ভিন্ন হতে পারে; কিন্তু উদ্দেশ্য এক। যেমনি রঙধনুর ভিন্ন রঙ হলেও সবই কিন্তু সুন্দর। আর বলার অপেক্ষা রাখে না, ধর্ম শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে সহায়তা করে। যেমন_ ইসলাম বলে, যার হাত ও মুখ থেকে অন্য মানুষ নিরাপদ সেই উত্তম মুসলমান। হিন্দু ধর্ম বলে, জীবে দয়া করে যেইজন সেইজন সেবিচে ঈশ্বর। আমরা যদি ধর্মের নির্দেশনা অনুযায়ী প্রত্যেকে প্রত্যেকের জায়গা থেকে নিজের কর্তব্য পালন করি তাহলে অবশ্যই বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠা হবে।


প্রশ্ন : তাহলে হিন্দু ধর্মে যে শ্রেণিবিভাজন করা হয়েছে, সেটি শান্তির অন্তরায় নয় কি?


উত্তর : এ বিভাজন এসেছে ত্রুটি থেকে। ধর্ম এমন বিভাজনের কথা বলেনি। স্বার্থপরতা ধর্ম নয় আর স্বার্থপরতা থেকেই আসে বিভাজন। ধর্ম স্বার্থপরতার জায়গা থেকে বিভাজনের কথা বলেনি। ধর্ম যেটার কথা বলেছে সেটা ভেদ নয়, বৈচিত্র্য। যেমন_ আমাদের শরীরের বিভিন্ন বিভাগ আছে। এখানে হাত হাতের কাজ করছে, পা পায়ের কাজ করছে। এভাবে আমরা যদি প্রত্যেকে প্রত্যেকের কর্ম সম্পর্কে সচেতন হই তাহলেই একটা শান্তিপূর্ণ সমাজ বিনির্মাণ করতে পারব।


 


 
কোরআন-হাদিসের বাণীই বিশ্ব শান্তির পরাকাষ্ঠা


প্রফেসর ড. ইয়াহইয়ার রহমান


সাবেক ডিন, ধর্মতত্ত্ব ও ইসলামী শিক্ষা অনুষদ, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া


 


প্রশ্ন : বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় ইসলাম কীভাবে ভূমিকা পালন করতে পারে?


উত্তর : ইসলামের মহান আদর্শ শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য যথেষ্ট। ইসলামের এ মহান আদর্শকে নিজের জীবনে বাস্তবায়ন করতে হবে এবং অত্যন্ত সুন্দরভাবে অন্যের জন্য তুলে ধরতে হবে। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ গ্রন্থ আল কোরআন আর সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মানুষ হজরত মুহাম্মদ (সা.) এর বাণীই বিশ্ব শান্তির পরাকাষ্ঠা। আল কোরআন থেকে শান্তির শিক্ষা নিতে হবে, সেইসঙ্গে নিতে হবে আল হাদিসের বাণী থেকেও।


প্রশ্ন : বিশ্বব্যাপী মুসলমানদের অনৈক্য শান্তির পথে অন্তরায় নয় কি?


উত্তর : অবশ্যই অন্তরায়। এক মুসলিম রাষ্ট্রের প্রধান কথা বলছে অন্য মুসলমানদের বিরুদ্ধে, আর পশ্চিমা দুনিয়া সেটাকে উদ্ধৃত করে বলছে, মুসলমানরা সন্ত্রাস করছে। এটা খুবই দুঃখজনক। আল্লাহ তায়ালা কোরআনে বলেছেন, 'তোমরা অমুসলিমদের বন্ধু হিসেবে নিও না।' একজন মুসলমান অমুসলিমের সঙ্গে ভ্রাতৃত্বপূর্ণ সম্পর্ক করতে পারে, কিন্তু বন্ধুত্ব করতে পারে না। অথচ আমরা মুসলমানরা একটা অংশকে শত্রু ভেবে অমুসলিমের একটা অংশকে বন্ধু ভাবছি। এসব কর্মকা- মুসলমানদের মধ্যে অনৈক্যকে আরও উসকে দিচ্ছে।


প্রশ্ন : সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠায় আলেম সমাজের ভূমিকা সম্পর্কে কী বলবেন?


উত্তর : প্রথমে বলব, যতটুকু পালন করা দরকার ততটুকু পালন করছে না। তারা নিজেদের মধ্যে ছোটখাটো বিষয় নিয়ে এখনও মতবিরোধে লিপ্ত। এটা খুবই দুঃজনক। এ সুযোগে অন্যরা ফায়দা লুটছে। ধর্মের মৌলিক বিষয়ে আলেমদের মতভেদ আছে বলে আমি জানি না। যেটুকু আছে সেটুকু বসে সমাধান করার মতো। মসজিদের ইমাম-খতিবরাও তাৎপর্যপূর্ণ কথা বলতে পারেন না, মসজিদ এলাকায় প্রভাব বিস্তার করে ইসলামের সুমহান আদর্শকে ছড়িয়ে দিতে পারেন না। মোদ্দাকথা, আলেম সমাজের মধ্যে এ মুহূর্তে ঐক্য খুবই প্রয়োজন।


 


 


আন্তঃধর্মীয় মিল নিয়েই কথা বলা উচিত


ড. তপন ডি রোজারিও


সহযোগী অধ্যাপক


বিশ্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগ


ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়


 
প্রশ্ন : বিশ্বে অশান্তি সৃষ্টিতে ধর্মকে কি কোনোভাবে দায়ী করা যায়?


উত্তর : না, কোনোভাবেই দায়ী করা যায় না। আপাতদৃষ্টিতে আমরা যা দেখি এটি হলো যারা প্র্যাকটিস করছে তাদের সমস্যা। আমরা অনুসারীরা নিজ নিজ ধর্মকে শ্রেষ্ঠ মনে করে অন্য ধর্মের ওপর বৈষম্য চাপিয়ে দিই। আসলে কিন্তু সব ধর্মই শ্রেষ্ঠ। কোনো ধর্মই মানুষের অকল্যাণের কথা বলে না, অশান্তির কথা বলে না। আবার যারা কোনো ধর্মই মানেন না, যে কোনো ধর্মকেই অশান্তির কারণ মনে করেন, আমি মনে করি তারাও ঠিক নন। আমরা দেখেছি, যেসব মতবাদ ধর্মকে নিন্দা করে মানুষের কল্যাণের চেষ্টা করেছে তারা মুখ থুবড়ে পড়েছে। আরেকটি সমস্যা হলো, আমরা যারা ধর্ম পালন করি তাদের কেউ কেউ অন্য ধর্মাবলম্বীর ব্যাপারে সঙ্কীর্ণ চিন্তা পোষণ করি। এটা ঠিক নয়। পৃথিবীতে আগে মানুষ এসেছে, পরে এসেছে ধর্ম। তাই প্রথমত একটা মানুষকে মানুষ হিসেবে দেখতে হবে, তারপর তার ধর্ম বিবেচনা করতে হবে।


প্রশ্ন : প্রচলিত প্রত্যেকটা ধর্মেই নিজেদের মধ্যে বিভাজন আছে। এটাকে আপনি অশান্তির কারণ বলে মনে করেন কি?


উত্তর : হ্যাঁ, এটা ঠিক যে বিভাজন আছে। আসলে এটা হয়েছে কিছু নির্দিষ্ট প্রেক্ষাপট বা পরিস্থিতিকে সামনে রেখে। এসব বিভাজনের যুক্তিও কিন্তু আছে। এসব বিভাজিত দলের মধ্যে অমিল খুবই কম। মিলটাই বেশি। মৌলিক অংশটা কিন্তু ঠিক আছে। আমরা মিল অংশটা নিয়েই কথা বলতে পারি। বাগানে ভিন্ন ভিন্ন ফুল থাকলে বাগানের সৌন্দর্যই বরং বৃদ্ধি পায়।


প্রশ্ন : বিশ্ব অশান্তি সৃষ্টিতে শিক্ষাহীনতা কতটুকু দায়ী?


উত্তর : আমি মনে করি, খুব বেশি দায়ী নয়। এ সমাজে শিক্ষিত শয়তানই বরং বেশি। শিক্ষিত হলেই সে নিজেকে বড় মনে করছে, অন্যের তুলনায় নিজের জন্য বেশি দাবি করছে, তাতেই তৈরি হচ্ছে অশান্তি। শিক্ষিত হলে তো শান্তি প্রতিষ্ঠায় তার দায়িত্ব আরও বেড়ে যায়। ধর্মের সুন্দর বাণীগুলো মানুষের কাছে পেঁৗছে দেয়া তার দায়িত্ব হয়ে যায়। প্রশ্নটা হলো, সে কি সেটা করছে? বেশিরভাগ সময়ই করছে না। তাই অশান্তির জন্য অশিক্ষাকে আমি ফ্যাক্টর মনে করি না। সবাই নিজ নিজ জায়গা থেকে নিজের দায়িত্বটা পালন করতে পারলেই শান্তি প্রতিষ্ঠা হবে।


 

বুদ্ধের 'অহিংসা'ই শান্তির মূলমন্ত্র


প্রিন্সিপাল সুকোমল বড়ুয়া


মহাসচিব (বাংলাদেশ), রিলিজিয়ন ফর পিচ, নিউইয়র্ক


 


প্রশ্ন : শান্তির জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন কী?


উত্তর : সাম্য, মৈত্রী এবং ভ্রাতৃত্ব আমাদের মূলমন্ত্র। এ মূলমন্ত্রের চর্চার মাধ্যমেই আমরা শান্তি পেতে পারি। আমাদের সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠা খুব কঠিন বিষয় নয়। কোনো ধর্ম অন্য কোনো ধর্মের অনুসারীর অনিষ্ট কামনা করে না। আমরা আমাদের ধর্ম সম্পর্কে ঠিকভাবে জানলে সমাজ, রাষ্ট্র তথা আন্তর্জাতিক পরিম-লে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হতো।


প্রশ্ন : বুদ্ধের আদর্শ বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় কীভাবে কাজ করবে?


উত্তর : অহিংসা আমাদের ধর্মের মূল। অবিশ্বাস থেকে আসে দ্বন্দ্ব, দ্বন্দ্ব থেকে আসে হিংসা, হিংসা থেকে প্রতিহিংসা। আমরা সবাই বলি শান্তির কথা; কিন্তু শান্তির চর্চা করি না। এক্ষেত্রে আমাদের সবচেয়ে বড় প্রয়োজন পরমতসহিষ্ণুতা। সব ধর্মেই এর ওপর গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। আমরা যদি বিশ্বাস করি, একটি সেস্নাগানে 'আমি বাঁচব, সবাইকে বাঁচতে দিব' তাহলে আমাদের কোনো সমস্যাই থাকবে না। আমাদের প্রত্যেকের উচিত যার যে ধর্মই হোক তা ভালোভাবে জানার চেষ্টা করে তার চর্চা করা। আমরা ধর্মকে আমাদের ব্যক্তিগত হীনস্বার্থে ব্যবহার করছি। ফলে অনেক অনর্থ সৃষ্টি হচ্ছে।


প্রশ্ন : বাংলাদেশে ধর্মীয় সম্প্রীতি বিচার করবেন কীভাবে?


উত্তর : আমাদের ধর্মীয় সম্প্রীতি আমাদের গর্ব, আমাদের ইতিাহাস, আমাদের ঐতিহ্য। গ্রামগঞ্জে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান মুসলিম_ আমরা সবাই শৈশব থেকে একসঙ্গে বড় হয়েছি। আমি যেখানেই সুযোগ পাই, আমাদের এ ধর্মীয় সম্প্রীতির কথা বলি এবং আনন্দ পাই। আমরা বিভিন্ন ধর্মের যারা আছি তারা যত বেশি একসঙ্গে বসব, কথা বলব, বাস করব, একসঙ্গে খাব_ আমাদের পারস্পরিক সম্পর্ক আরও গভীর হবে।